কলকাতা, রবিবার ৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৩

জনধনে জমা টাকা ফেরত দেবেন না: মোদি >> রাজ্যে সেনা মোতায়েন ইস্যুতে মমতা-রাজ্যপাল দ্বৈরথ চরমে >> হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু, অমানবিক এটিএমের লাইন >> নোট বাতিলের ঠিক আগে দমদমে চার কোটি টাকায়

রবিবার | রেসিপি | আমরা মেয়েরা | দিনপঞ্জিকা | শেয়ার | রঙ্গভূমি | সিনেমা | নানারকম | টিভি | পাত্র-পাত্রী | জমি-বাড়ি | ম্যাগাজিন

 

জনধনে জমা টাকা ফেরত
দেবেন না: মোদি

এতদিন গরিবের সঙ্গে বড়লোকরা কথাই বলতেন না। আর এই একমাস ধরে অনুনয় বিনয় করে নিজেদের টাকা গরিবের জনধন ব্যাংক অ্যাকাউন্টে জমা করেছে সেইসব ধনীরা। আর এখন সেইসব ধনী হাতজোড় করে জনধন অ্যাকাউন্টের গরিব মানুষদের কাছে এসে বলছে সেই জমা টাকা তুলে দিতে। কিন্তু আমি বলছি একদম ফেরত দেবেন না। জনধন অ্যাকাউন্টে গরিব মানুষরা অন্যদের যে মোটা টাকা জমা করেছেন, তাঁরা একটা টাকাও তুলবেন না। সাফ বলে দিন কোনও টাকা ফেরত হবে না। ওইসব টাকা গরিবদের হয়ে গেল। আজ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এই চাঞ্চল্যকর পরামর্শ দিয়েছেন গরিব মানুষকে।

রাজ্যে সেনা মোতায়েন ইস্যুতে
মমতা-রাজ্যপাল দ্বৈরথ চরমে
নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: পণ্য ও যাত্রীবাহী গাড়ির পরিসংখ্যান সংগ্রহের কাজে রাজ্যের বিভিন্ন টোলপ্লাজায় সেনা নামানোর ইস্যুতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে নরেন্দ্র মোদির সংঘাত ক্রমশ বাড়ছে। এই ইস্যুতে সেনা-রাজ্য তরজা শনিবার আরও এক ধাপ মাত্রা পেয়ে মমতা-রাজ্যপাল সংঘাতের চেহারা নিয়েছে। দেশের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা সংস্থাকে মুখ্যমন্ত্রী যেভাবে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছেন, তাকে আদৌ সমর্থন করেননি রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠি। নাম না করে তিনি মমতার সমালোচনা করে মন্তব্য করেছেন। চলতি তরজায় রাজ্যপাল সেনাবাহিনীর পাশে দাঁড়ানোয় বেজায় চটেছেন মুখ্যমন্ত্রী এবং তাঁর দল ও মন্ত্রিসভার সদস্যরা। সরাসরি রাজ্যপালের কাছে গিয়ে পালটা ক্ষোভ জানিয়ে শাসক দল তাঁর আচরণকে প্রকাশ্যেই নিন্দা করে এই দ্বন্দ্বকে চরমে নিয়ে গিয়েছে। যদিও রাজ্যপাল রাত পর্যন্ত তাঁর অবস্থান থেকে সরে আসার কোনও ইঙ্গিত দেননি। সব মিলিয়ে মমতা-ত্রিপাঠি দ্বৈরথ কেন্দ্র-রাজ্য চলতি সংঘাতকে আগামী দিনে কোন জায়গায় নিয়ে গিয়ে দাঁড় করায়, আপাতত সেদিকেই তাকিয়ে গোটা রাজ্য।

হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু, অমানবিক এটিএমের লাইন
বিএনএ, চুঁচুড়া: নোটের এই আকালে টাকা তোলার মরিয়া চেষ্টা কি মানুষকে অমানবিক করে দিচ্ছে? এই প্রশ্ন উঠছে কারণ, চোখের সামনে এক মাঝবয়সি লোককে যন্ত্রণায় ছটফট করতে দেখেও এটিএমের সামনের লাইনে দাঁড়ানো জনা পনেরো মানুষের কেউ একটুও বিচলিত হলেন না। সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলেন না কেউ। অথচ তাঁদের সঙ্গেই লাইন দিয়ে দাঁড়িয়েছিলেন ওই ভদ্রলোক।

নোট বাতিলের ঠিক আগে দমদমে চার কোটি টাকায়
অমিত শাহের নামে জমি

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: নোট বাতিলের আগে বিহার, রাজস্থানের মতো এ রাজেও জমি-বাড়ি কেনায় উদ্যোগী হয় বিজেপি। দমদমে বিমানবন্দর থেকে ১০ মিনিট দূরে বেলঘড়িয়া এক্সপ্রেসওয়ের ধারে চার কোটি টাকা খরচ করে ১৬ কাঠা জমি, বারুইপুরে পুকুরসহ তিনতলা বাড়ি কেনার কাজ শেষ হয়ে গিয়েছে। বীরভূম, বর্ধমান ও বাঁকুড়াতেও জমি চিহ্নিত হয়েছে। কোথাও অগ্রিম দেওয়া হয়েছে। কোথাও পাকা কথা হয়ে গিয়েছে। জমি কেনার কথা স্বীকার করে বিজেপি’র রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, আমরা প্রতিটি জেলায় আধুনিক পার্টি অফিস তৈরি করার জন্য একবছর আগে থেকেই জমি দেখছিলাম। বিধানসভা নির্বাচন চলে আসায় তা একটু থমকে যায়।

নোট ইস্যুতে মমতার হাত ধরতে আপত্তি নেই,
সাফ জানাল কেরল সিপিএম

বেজায় চাপে প঩ড়েছেন বিমান-সূর্যকান্তরা
দিব্যেন্দু বিশ্বাস  নয়াদিল্লি
৩ ডিসেম্বর: নোট বাতিল নিয়ে জাতীয় স্তরে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আন্দোলনকে খোলাখুলি সমর্থন জানাতে কোনও সমস্যা নেই। আপত্তি নেই বৃহত্তর স্বার্থে নোট বাতিল ইস্যুতে জাতীয় স্তরের প্রতিবাদ-আন্দোলন কর্মসূচিতে মমতার হাত ধরতেও। দলের বঙ্গ শিবিরকে ফের চরম অস্বস্তিতে ফেলে আজ এ কথা সাফ জানিয়ে দিল কেরল সিপিএম। কেরলের সিপিএম সরকারের অর্থমন্ত্রী টি এম থমাস আইজ্যাক এবং দলের কেরল কমিটির শীর্ষ নেতা তথা সিপিএমের লোকসভার লিডার পি করুণাকরণ আজ স্পষ্ট জানিয়েছেন, এমনিতেই নোট বাতিলের প্রতিবাদে সংসদের ভিতরে এবং বাইরে তাঁরা সমস্ত বিরোধী এককাট্টা হয়েছেন।

এখনও জাতে ওঠেনি নলেন গুড়
সন্দেশে স্বাদ নেই, শীতের আশায় বুক বাঁধছে ভিয়েনঘর
বাপ্পাদিত্য রায়চৌধুরী  কলকাতা
বছরভর সাদা ফ্যাকাসে সন্দেশ। রকমফের বলতে কখনও কড়াপাক, কখনও নরম পাক। আকারে, নকশায়, গড়নে তফাৎ হয় বটে, কিন্তু সেসব শুধু চোখের আরাম। মুখে দিলে তফাৎ কই? তফাৎ তো শুধু এই লেপমুড়ির সময়টাতেই। নলেন গুড়ের সন্দেশ। কান টানলে মাথা আসার মতো, শীত আসলেই নলেন গুড়। পারদ যত কমে, ততই চড়ে স্বাদ। এবার শীত নেই। তাই গুড়ের সেই জৌলুস নেই। স্বাদেও কেমন কেমন ভাব। পেটুকে বাঙালি তো বটেই, স্বাদ খুইয়ে মন খারাপ ভিয়েনঘরেরও। আহামরি গুড়ের সন্ধান না মেলায়, সন্দেশের স্বাদ আসছে না যে! অতএব, আরও ঠান্ডার আশায় ওত পেতে থাকা ছাড়া আর কোনও উপায় নেই ডাকসাইটে মিষ্টি প্রস্তুতকারকদের।

শতকরা ৭৪ দিনই দূষিত বাতাস ঢুকছে
হাওড়াবাসীর ফুসফুসে

তুলনামূলক ভালো কলকাতা

রাহুল দত্ত  কলকাতা
শতাংশের নিরিখে ১০০ দিনের মধ্যে ৭৪ দিনই দূষিত বায়ু ঢুকছে হাওড়াবাসী ফুসফুসে। কলকাতার ক্ষেত্রেও বায়ু দূষণের মাত্রা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। হাওড়া শহর নিয়ে কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ (সিপিসিবি) যে চাঞ্চল্যকর রিপোর্ট প্রকাশ করেছে, তা রীতিমতো উদ্বেগ বাড়িয়েছে পরিবেশকর্মী ও সরকারের। রিপোর্টে বলা হয়েছে, কলকাতাবাসী শতকরা ৫৪ দিন পরিশোধিত বায়ু পান। তবে এই কেন্দ্রীয় রিপোর্টে সারা দেশের যে তথ্য তুলে ধরা হয়েছে, তাতে বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির লোকসভা কেন্দ্র বারাণসী। দেশের পরিপ্রেক্ষিতে যা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। রিপোর্টে বলা হয়েছে, বারাণসীর দূষণ এমন মাত্রায় পৌঁছেছে যে, এই তীর্থস্থানের মানুষ বছরে একদিনও পরিশোধিত বাতাস পান না।

ড্যান্সিং কুইনের জন্যই ক্যাবারে গেয়েছিলেন লতা

মেরা নাম চিন চিন চু...। শক্তি সামন্তের ১৯৫৮ সালের ছবি হাওড়া ব্রিজের এই গানের মাধ্যমেই বড় ব্রেক পেলেন এক অ্যাংলো-বার্মিজ নর্তকী। হেলেন রিচার্ডসন। সেই শুরু। হিন্দি সিনেমায় আইটেম গার্ল হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করলেন হেলেন। ছয় আর সাতের দশকে বহু হিট হিন্দি ছবির পিছনে হেলেনের আইটেম সংয়ের ভূমিকা অনস্বীকার্য। ৭০০-এর বেশি ছবিতে অভিনয় করেছেন হেলেন। হিন্দি সিনেমায় ক্যাবারে ও বেলি ড্যান্সের আমদানি প্রথম শুরু করেছিলেন তিনিই। গত ২১ নভেম্বর ছিল তাঁর জন্মদিন। জন্মদিনে সৎ মাকে গাড়ি উপহার দিয়েছেন স্টার ছেলে সলমন। হেলেনের জন্ম ১৯৩৮ সালে তৎকালীন বার্মায়। বাবা ছিলেন অ্যাংলো। মা বার্মিজ। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে মিত্রশক্তির পক্ষে লড়াই করতে গিয়ে প্রাণ হারান হেলেনের বাবা। একসময় বার্মা দখল করে নেয় জাপানি সেনা। তখন প্রাণ বাঁচাতে বহু মানুষ বার্মা ছাড়েন। হেলেনের পরিবারও ছিল তাঁদের মধ্যে। হেলেন এক সাক্ষাৎকারে নিজেই সেই অমানুষিক লড়াইয়ের কথা জানিয়েছিলেন। অসমের ডিব্রুগড় থেকে কলকাতা হয়ে হেলেনের পরিবার পাড়ি জমান অধুনা মুম্বই। সেখানে নার্সের কাজ পান হেলেনের মা। কিন্তু এত বড় পরিবার সামলানো তাঁর পক্ষে সম্ভব ছিল না। বাধ্য হয়েই পড়াশোনা ছেড়ে মাকে সাহায্য করতে নেমে পড়েন হেলেন।

সংক্ষেপে

১৩ হাজার কোটি কালো টাকা
ঘোষণা করা ব্যবসায়ী নিখোঁজ

আমেদাবাদ, ৩ ডিসেম্বর: আয় ঘোষণা প্রকল্পে নিজের ১৩ হাজার কোটি কালো টাকার হদিশ দিয়েছিলেন তিনি। প্রকল্প অনুযায়ী ৩০ নভেম্বরের মধ্যে সেই টাকার উপর ২৫ শতাংশ কর দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তার দিন ১০ আগে থেকেই নিখোঁজ আমেদাবাদের ব্যবসায়ী মহেশ শাহ। আয়কর দপ্তর থেকে তাঁর বাড়ি এবং অফিসে বারবার তল্লাশি চালিয়েও পাওয়া যায়নি তাঁর খোঁজ। যদিও ওই ব্যবসায়ীর ছেলে মণিতেশের দাবি, ‘বাবা পলাতক নন। তাঁর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। ফিরে এলেই কথামতো কর জমা দিয়ে দেবেন তিনি।’ কিন্তু ব্যবসায়ীর চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টের কথায় কিছুটা চিন্তায় আয়কর দপ্তরের কর্তারা। তেহমূল সেথনা নামের ওই সিএ’ই ব্যবসায়ীকে অঘোষিত টাকা আইডিএস-এ মাধ্যমে ঘোষণা করে কর দেওয়ার জন্য উৎসাহিত করেছিলেন। আয়কর দপ্তরের কর্তাদের তিনি জানিয়েছেন, ‘দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করলেও, তাঁর বুদ্ধি ছিল মারাত্মক। একইসঙ্গে উপরমহলের সঙ্গেও ভালোরকম যোগাযোগ রয়েছে।’ এই তথ্যেই সিঁদুরে মেঘ দেখছে আয়কর দপ্তর। তাদের ধারণা, বড় বড় যে সব ব্যবসায়ী কালো টাকা লুকিয়ে রেখেছেন, সেই চক্রের সঙ্গে যোগ থাকতে পারে এই ব্যবসায়ীর।

জনধন অ্যাকাউন্টে কলকাতাসহ দেশে
.৬৪ কোটি কালো টাকার হদিশ মিলল

নয়াদিল্লি, ৩ ডিসেম্বর (পিটিআই): দেশব্যাপী জনধন অ্যাকাউন্টগুলিতে ১ কোটি ৬৪ লক্ষের হিসাব বহির্ভূত টাকা জমা পড়েছে বলে জানাল আয়কর দপ্তর। মূলত, কলকাতা, মেদিনীপুর, আরা (বিহার), কোচি এবং বারাণসীর বিভিন্ন জায়গা থেকে এই টাকার খোঁজ মিলেছে। শনিবার একটি বিবৃতি দিয়ে তারা জানিয়েছে, ‘এই চারটি জায়গা থেকে জনধন অ্যাকাউন্টে যে সব ব্যক্তির অ্যাকাউন্টে এই টাকা জমা পড়েছে, তাঁরা আয়কর রিটার্ন জমা করেননি কোনওদিন। কারণ, তাঁরা আয়কর প্রদান কাঠামোর নীচে রয়েছেন। তদন্ত শুরু হয়েছে। তারপরই শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ ৯ নভেম্বর ২৫.৫ কোটি জনধন অ্যাকাউন্টে মোট অঙ্কের পরিমাণ ছিল ৪৫ হাজার ৬৩৬.৬১ কোটি টাকা। কিন্তু শুক্রবার পর্যন্ত এই অ্যাকাউন্টে জমা টাকার পরিমাণ ৬৬ হাজার ৬৩৬ কোটি টাকা। ফলত, এই বিপুল পরিমাণ টাকার উৎস খুঁজতে মরিয়া আয়কর দপ্তর। এদিকে, পরিচিত ব্যক্তিকে পুরানো নোট বদলের বিশেষ সুবিধা দিয়ে বরখাস্ত হলেন এইচডিএফসি ব্যাংকের চার কর্মী। শনিবার ব্যাংকের তরফে বিবৃতি দিয়ে জানানো হয়েছে, ‘চণ্ডীগড়ের সেক্টর ১৫ শাখায় এই চারজন কর্মরত ছিলেন। তাঁদের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই বরখাস্ত করা হয়েছে। তবে এটাকে বিচ্ছিন্ন ঘটনা হিসাবে নেওয়াই ভালো।’ শুক্রবার পাঞ্জাবের ভাতিন্দাতেও একই অভিযোগে একটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের ম্যানেজার এবং ক্যাশিয়ারকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

নগদ নয়, ভিক্ষুকও কার্ডে
লেনদেন করছেন, দাবি মোদির

নগদ নয়, দেশবাসীকে ফের ‘ভার্চুয়াল মানি’র উপর জোর দেওয়ার আহ্বান জানালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। শনিবার মোরাদাবাদের সভায় হোয়াটসঅ্যাপের একটি ভিডিও-র উদাহরণ দিয়ে দাবি করেন, ভিক্ষুকও এখন ‘পয়েন্ট অব সেল’ মেশিনে কার্ড ব্যবহার করে টাকা লেনদেন করছেন। অবশ্য, তাঁর সরাসরি স্বীকারোক্তি, ভিক্ষুকের কার্ড ব্যবহারের বিষয়টি সত্য কি না তিনি নিশ্চিত নন। কারণ, হোয়াটসঅ্যাপের ওই ভিডিও-র কথা তিনি একজনের কাছ থেকে শুনেছেন। তবে, দুর্নীতি ঠেকাতে যে দেশবাসীকে ডিজিটাল লেনদেনের উপরই জোর দিতে হবে, সেই বিষয়টি জোর দিয়ে বলেন মোদি। (বিস্তারিত জাতীয় পাতায়)

মমতার রাজ্যে এসে নোট বাতিলের ইস্যুতে মোদিকে
দু’হাত তুলে সমর্থন জানালেন যোগগুরু রামদেব

এবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রাজ্যে এসে নোট বাতিলের ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির উদ্যোগকে দু’হাত তুলে সমর্থন জানিয়ে গেলেন দেশের জনপ্রিয়তম যোগগুরু রামদেব। খোদ কলকাতায় এসে রাজভবনের সামনে দাঁড়িয়ে তিনি সাংবাদিক বৈঠক করে তাঁর এই সমর্থনের কথা ঘটা করে ঘোষণা করেন। তিনি বলেন, কিছু রাজনীতিবিদ এই নোট বাতিল প্রক্রিয়ার বিরোধিতা করলেও দেশের সিংহভাগ মানুষ কিন্তু এই অভিযানকে সমর্থন জানাচ্ছে। দেশ থেকে কালো টাকা তথা দুর্নীতির শিকড় সমূলে উৎপাটন করার জন্য এই ধরনের সাহসী পদক্ষেপ অত্যন্ত জরুরি ছিল। প্রধানমন্ত্রী সেই সাহস দেখিয়েছেন। এজন্য তাঁর সমালোচনা নয়, ধন্যবাদই প্রাপ্য। (বিস্তারিত রাজ্য পাতায়)






 

 ভারতীয় নৌদিবস
 ১১৩১—পারস্যের কবি ও দার্শনিক ওমর খৈয়ামের মৃত্যু
 ১৮২৯—সতীদাহ প্রথা রদ করলেন লর্ড বেন্টিঙ্ক
 ১৮৮৮—ঐতিহাসিক রমেশচন্দ্র মজুমদারের জন্ম
 ১৯১০—ভারতের ষষ্ঠ রাষ্ট্রপতি আর বেঙ্কটরামনের জন্ম
 ১৯২৪—মুম্বইয়ে গেটওয়ে অব ইন্ডিয়ার উদ্বোধন হল
 ১৯৭৭—ক্রিকেটার অজিত আগরকারের জন্ম

 
ক্রয়মূল্য

বিক্রয়মূল্য

ডলার

৬৭.৫৫

৬৯.২৪

পাউন্ড

৮৪.৭৮

৮৭.৫৯

ইউরো

৭১.৭৭

৭৪.২৬

পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ২৮,৯৪৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ গ্রাম) ২৭,৪৬০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ২৭,৮৭০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪০,৯০০ টাকা
ওই খুচরো (প্রতি কেজি) ৪১,০০০ টাকা
 

 





বিশেষ নিবন্ধ


শিশুচুরির পাপ ব্যাবসা: জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক সাজা চাই
শুভা দত্ত


নোট-বন্দি বাজারের জন গণ মন
সৌম্য বন্দ্যোপাধ্যায়


অদূর ভবিষ্যতে মূল্যবৃদ্ধির হার বাড়তে পারে
অভিরূপ সরকার


বুক করে দুরু দুরু
রঞ্জন সেন

 
বিশ্ববিদ্যালয়-শিক্ষাবন্ধু আর ঘনতম নরক
অচিন্ত্য বিশ্বাস


মোদির সরকার রাজ্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলির
উৎকর্ষ খর্ব করছে
গৌতম পাল


মিশন ২০১৯
মেরুনীল দাশগুপ্ত


চ্যালেঞ্জ না নিলে এত
গলদ চাপা পড়েই থাকত

হারাধন চৌধুরী


?Copyright Bartaman Pvt Ltd. All rights reserved
6, J.B.S. Haldane Avenue, Kolkata 700 105
 
Editor: Subha Dutta