কলকাতা, সোমবার ২৩ জানুয়ারি ২০১৭, ৯ মাঘ ১৪২৩

 

রবিবার | রেসিপি | আমরা মেয়েরা | দিনপঞ্জিকা | শেয়ার | রঙ্গভূমি | সিনেমা | নানারকম | টিভি | পাত্র-পাত্রী | জমি-বাড়ি | ম্যাগাজিন

ব্যর্থ রাহুল, উত্তরপ্রদেশে অখিলেশের সঙ্গে
জোট সুনিশ্চিত করলেন সোনিয়া-প্রিয়াঙ্কাই

সন্দীপ স্বর্ণকার, নয়াদিল্লি, ২২ জানুয়ারি: ব্যর্থ রাহুল গান্ধী। তিরে এসে তরী ডোবা রুখলেন সোনিয়া ও প্রিয়াঙ্কা। আসন নিয়ে জেদাজেদির জোরে উত্তরপ্রদেশে সমাজবাদী পার্টির সঙ্গে কংগ্রেসের জোট প্রায় ভেস্তেই গিয়েছিল। কিন্তু সেই জোট সম্ভব করলেন সোনিয়া ও কন্যা প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। রবিবার ভোররাত পর্যন্ত আসন নিয়ে টানাটানি আর লাগাতার ফোনাফোনিতে মিলল সমাধান।

উত্তরপ্রদেশে বিজেপিকে রুখতে জোট একান্তই জরুরি। নচেৎ বিরোধী ভোট ভাগ হয়ে যাবে। তাই জোটের স্বার্থে নমনীয় হল দু’পক্ষই। কংগ্রেস ১২০-র জেদ ছেড়ে নেমে এল। অখিলেশ যাদবও ৯৯ থেকে সামান্য উঠলেন। ঠিক হল, উত্তরপ্রদেশে ৪০৩ বিধানসভা আসনের মধ্যে কংগ্রেস ১০৫ আসনে লড়বে। সমর্থন দেবে সমাজবাদী পার্টি। তবে যৌথ কোনও ইস্তাহার হচ্ছে না। বলাবাহুল্য, আজই ইস্তাহার প্রকাশ করেন অখিলেশ যাদব। তবে জোট যে হচ্ছেই, তা তিনিও জানিয়েছেন। কিন্তু কংগ্রেসকে দেওয়া ১০৫ আসনের বাইরে আরএলডি, জেডিইউ বা আপনাদলের জন্য যে কোনও আসন তিনি ছাড়তে চান না, তাও কংগ্রেসকে জানিয়েছেন অখিলেশ যাদব। দলের সহসভাপতি কিরণময় নন্দ বলেছেন, আমাদের সঙ্গে জোট হয়েছে কংগ্রেসের। তাদের জন্য আসন ছাড়া হচ্ছে। বাকি দলগুলিকে কংগ্রেসই সঙ্গে রাখতে চাইছে। তাতে সমাজবাদী পার্টির আপত্তি নেই।

শোনা যাচ্ছে, রাহুল গান্ধী বিদেশের ছুটি কাটিয়ে দেশে ফিরে উত্তরপ্রদেশ নিয়ে আলোচনায় দলের দায়িত্বপ্রাপ্তদের বলেছিলেন, যতটা সম্ভব বেশি আসন বাগিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করতে হবে। উত্তরপ্রদেশে এখনও কংগ্রেসের সমর্থক, ভোট সম্পূর্ণ শূন্য হয়ে যায়নি বলেই রাহুলের বিশ্বাস। কিছুদিন আগে উত্তরপ্রদেশ সফর করেও তিনি সেই ‘ফিডব্যাক’ পেয়েছেন বলেও নির্বাচনের স্ট্র্যাটেজি মেকারদের বলেন রাহুল। কিন্তু নির্বাচন কমিশনের কোর্টে জয়ী হওয়ার পর পরিস্থিতি পালটে গিয়েছে মুহূর্তে। উত্তরপ্রদেশে এখন অখিলেশের পালেই হাওয়া। ফলে রাহুল যদি আসন বাড়াতে হবে বলে জেদ ধরে থাকেন, তাহলে অখিলেশের কোনও লোকসান নেই। যাবতীয় ক্ষতির মুখে পড়বে কংগ্রেসই। অখিলেশ যে কংগ্রেসকে বেশি পাত্তা দেবেন না, তা প্রথম দু’দফার জন্য ২০৯ টি আসনে প্রার্থীর তালিকা ঘোষণা করেই রাহুলকে বার্তা দিয়ে দিয়েছেন। আমেথি এবং রায়বেরিলি এলাকার ১০টি বিধানসভার আসনের মধ্যে সবকটিতেই সমাজবাদী পার্টির প্রার্থী দাঁড় করাবেন বলে ঘোষণা করে দিয়েছিলেন। ওই এলাকায় ২০১২ সালের বিধানসভা ভোটে সপা ৭ টি এবং কংগ্রেস দু’টি আসনে জিতেছিল। উত্তরপ্রদেশে এখন কংগ্রেসের মোট ২৮ জন বিধায়ক রয়েছেন।

অখিলেশের ওই প্রার্থী তালিকা ঘোষণার পরেই নড়েচড়ে বসেন কংগ্রেস সুপ্রিমো সোনিয়া গান্ধী। আহমেদ প্যাটেলকে দিয়ে তিনি ফোন করান অখিলেশকে। মাঠে নামান প্রিয়াঙ্কাকেও। বলেন, এই সুযোগ হাতছাড়া করা যাবে না। সেই মতো তড়িঘড়ি ধীরাজ শ্রীবাস্তব নামে এক বিশ্বস্ত প্রাক্তন আইএএস’কে লখনউতে পাঠান প্রিয়াঙ্কা। কংগ্রেসের ভোট কৌশলি প্রশান্তকিশোরও পৌঁছে যান লখনউয়ে অখিলেশের বাড়িতে। মরিয়া হয়ে প্রিয়াঙ্কাও শনিবার রাত দেড়টা নাগাদ অখিলেশের স্ত্রী ডিম্পলকে ফোনে ধরেন। অনুরোধ করেন, কংগ্রেসের হয়ে যারা কথা বলতে গিয়েছেন, তাদের সঙ্গে যেন আলোচনা করেন অখিলেশ। উত্তরপ্রদেশের দায়িত্বপ্রাপ্ত কংগ্রেস নেতা গুলাম নবি আজাদও অখিলেশ শিবিরের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলেন। ভোর সাড়ে চারটে পর্যন্ত টানাপোড়েনের পর রফা হয়। চূড়ান্ত হয় জোট। সোনিয়াকে সুখবর জানিয়ে দেন আহমেদ প্যাটেল।

 






?Copyright Bartaman Pvt Ltd. All rights reserved
6, J.B.S. Haldane Avenue, Kolkata 700 105
 
Editor: Subha Dutta