Bartaman Patrika
রাজ্য
 
 

তোমার দেখা নাই রে...। সকাল থেকে আকাশে কালো মেঘ। কিন্তু বৃষ্টির দেখা নেই। শনিবার নদীয়ার তাহেরপুরে তোলা অভি ঘোষের ছবি।

 মৃত্যুহীন জীবন...

একজন জন্মসন্ন্যাসী, ঠাকুর যাঁকে এই বলে বিশ্বাস করতেন, যে এই মহাপ্রাণটি জগতের হিতের জন্যে অবতীর্ণ হয়েছেন অনন্তের পরিমণ্ডল থেকে। ঠাকুর এও জানতেন তাঁর এই ধ্রুব শিষ্যটির শরীর বেশি দিন থাকবে না। স্বামীজিও সেকথা জানতেন কিন্তু তিনি সাধারণ পরিবেশে, সাধারণের মতো সাধারণ। তখন তাঁর কোনও অহঙ্কারই থাকত না। সাধারণের সঙ্গে সাধারণের মতোই নিজের বৃহৎ সত্তাকে গুটিয়ে আনতেন।

অপূর্ব চট্টোপাধ্যায়: সদ্য স্বামীহারা মিসেস সেভিয়ারকে সান্ত্বনা দিয়ে স্বামীজি ফিরে এলেন বেলুড় মঠে। সেইসময় তাঁর শরীর একদম ভালো ছিল না। তিনি তখন মুক্তির আকাশে মুক্ত বিহঙ্গের মতো ওড়ার জন্য ছটফট করছেন। একদিন তিনি তাঁর গুরুভ্রাতাদের বললেন, দেখ আমি তো মায়ের জন্য কখনও কিছু করলুম না; আমার শরীরের যেরকম অবস্থা তাতে দু-এক বছরের বেশি বাঁচব বলে মনে হয় না। তাই আমার ইচ্ছা মাকে কিছু তীর্থ করাই। তাহলে তবু তাঁর কিছু করা হবে। তা তোমরা যদি আমায় এ বিষয়ে সাহায্য কর তো ভালো হয়; আমার নিজের শরীরের তো এই অবস্থা।
এরপরই মা-দিদিমা ও দু-একজন গুরুভ্রাতাকে সঙ্গে নিয়ে স্বামীজি তীর্থভ্রমণে বেরলেন। তাঁরা যাবেন পূর্ববঙ্গ ও আসামের দিকে। শিলং-এ পৌঁছে স্বামীজি আবার অসুস্থ হয়ে পড়লেন। শুরু হল প্রবল শ্বাসকষ্ট। এক ফোঁটা বাতাসের জন্য তিনি তখন ছটফট করছেন। গুরুভ্রাতারা স্বামীজির অবস্থা দেখে অত্যন্ত বিচলিত হয়ে পড়লেন। ভয়ানক শ্বাসকষ্ট উপেক্ষা করেই স্বামীজি তাঁদের বলেছিলেন, ‘যাক, মৃত্যুই যদি হয়, তাতেই বা কি আসে যায়? যা দিয়ে গেলুম, দেড়হাজার বছরের খোরাক।’
এই তীর্থভ্রমণে বেরিয়ে বেশ কয়েকটি মজার ঘটনা ঘটেছিল। একদিন ভুবনেশ্বরী দেবী তাঁর জগৎবিখ্যাত পুত্র স্বামী বিবেকানন্দকে বলেছিলেন, ‘দেখ এসব তো অনেক হলো, বেশ ভাল, এইবার একটা বিয়ে কর।’ উত্তরে স্বামীজি বলেছিলেন, ‘দেখো মা, বিয়ে করবার কি দরকার? এই দেখনা আমার সব কত বড় বড় ছেলে (শিষ্যদের দেখিয়ে) রয়েছে।’ কিন্তু এই বিয়ের প্রসঙ্গ দিদিমা তুললেই, স্বামীজি মজা করে হাসতে হাসতে বলতেন, ‘দেখ দিদিমা, এখনও আমার হাতে কিছু টাকা আছে; তুমি এই বেলা মর, আমি তোমার বেশ ঘটা করে শ্রাদ্ধ করি।’
একজন জন্মসন্ন্যাসী, ঠাকুর যাঁকে এই বলে বিশ্বাস করতেন, যে এই মহাপ্রাণটি জগতের হিতের জন্যে অবতীর্ণ হয়েছেন অনন্তের পরিমণ্ডল থেকে। ঠাকুর এও জানতেন তাঁর এই ধ্রুব শিষ্যটির শরীর বেশি দিন থাকবে না। স্বামীজিও সেকথা জানতেন কিন্তু তিনি সাধারণ পরিবেশে, সাধারণের মতো সাধারণ। তখন তাঁর কোনও অহঙ্কারই থাকত না। সাধারণের সঙ্গে সাধারণের মতোই নিজের বৃহৎ সত্তাকে গুটিয়ে আনতেন। রঙ্গ রসিকতা ,মেয়েলি কথাবার্তাতেও তাঁর আপত্তি ছিল না। এখানে তিনি পবিত্র এক অস্তিত্বকে বহন করে নিয়ে চলেছেন— তাঁর গর্ভধারিণীকে। এই পরিক্রমা বৃত্তাকারে ফিরে আসবে উৎসে। আর সেইখান থেকেই ঘটবে তাঁর আবার ফিরে যাওয়া অনন্তে।
তিনি যে চলে যাবেন এই তথ্যটি তিনি নিজের মধ্যে সঙ্গোপনে রেখে দিয়েছিলেন। কেউ যেন বুঝতে না পারে অগ্নিনির্বাপিত হতে চলেছে। ঘটনাটি এত আকস্মিক যে তাঁর ঘনিষ্ঠ গুরুভ্রাতারাও বুঝতে পারেননি। সেইদিন তিনি দেখিয়ে গেলেন তাঁর লীলা। সম্পূর্ণ সুস্থ সেদিন। একমাইলেরও অধিক পথ হেঁটে এলেন। তারপর নিঃশব্দে নিজের শক্তি দিয়ে যেন জ্বালালেন আর একটি বৃহৎ হোমকুণ্ড, আহুতি দিলেন নিজেকে।
ঠাকুর বলতেন, যাবার আগে হাটে হাঁড়ি ভেঙে দিয়ে যাব। অর্থাৎ আমি কে, সাধারণ ও অসাধারণ মানুষ উভয়েই বুঝতে পারবে। তাঁরই প্রধান শিষ্য স্বামী বিবেকানন্দ সিমুলিয়ার ‘বিলেটি’কে তা অগ্নিআখরে আকাশের গায়ে লিখে রেখে যাবেন। সেই কারণেই প্রথম দিনেই শেষ দিনের কথা বলার চেষ্টা। রবীন্দ্রনাথ বড় সুন্দর একটা লাইন রেখে গেছেন— ‘যা পেয়েছি প্রথম দিনে তাই যেন পাই শেষে।’ স্বামীজির শেষ কোথায়! তিনি তো অনন্ত, তিনি তো ব্রহ্মস্বরূপ। তিনি বলতেন অহং ব্রহ্মাষ্মি। হাজার বার বললেও, ব্রহ্মস্বরূপ হওয়া যায় না।
স্বামীজি আবার বলতেন ব্রহ্মের আবার অসুখ কী? শ্বাসকষ্ট, মধুমেহ— এসবই তো শরীরের। ঠাকুর যাকে বলতেন খাঁচা। ঠাকুরও তো বলতেন, রোগ জানুক আর দেহ জানুক। আমেরিকা ভ্রমণের শেষের দিকে স্বামীজি অত্যন্ত অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন কিন্তু পাত্তা দেননি। পূর্ববঙ্গ ভ্রমণের সময় শরীর সহযোগিতা করেনি। তিনি সেসব গ্রাহ্যের মধ্যেই আনেননি। পরিব্রাজক অবস্থায় হৃষীকেশে গুরুভাইরা মনে করেছিলেন তিনি দেহ ছেড়ে দিয়েছেন। বরাহনগর মঠে একবার ভীষণ অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। স্বামীজির অসুখ করে না, কারণ তিনি মুহূর্তে নিজেকে দেহাতীত অবস্থায় নিয়ে যেতে পারেন। তাঁর শেষের দিনটি স্পষ্ট করে দিয়ে গেছে — দেহ নয় তিনি ছিলেন একটি অগ্নিশিখা। পাশ্চাত্যের পাদরিরাও বারে বারে সে প্রমাণ পেয়েছিলেন।
ফিরে আসি শেষ দিনটির কথায়। সেদিন তিনি ভীষণ সুস্থ। ঠাকুরও চলে যাবার কয়েক ঘণ্টা আগে তাঁর সেবকদের বড় আনন্দ দিয়েছিলেন। সুস্থ মানুষের মতো গলা অন্ন সহজে গ্রহণ করে (স্বামীজিই খাইয়ে দিয়েছিলেন) বড় আরামে বালিশে মাথা রেখে শুয়েছিলেন। আনন্দের হিল্লোল বয়ে গিয়েছিল।
শেষদিনে স্বামীজি কী করলেন! যেটিকে বলা যেতে পারে একটু অন্যরকম। রুদ্ধদ্বার ঠাকুরঘরে দীর্ঘক্ষণ ধ্যানে বসে রইলেন। তারপর বারান্দায় পায়চারি করতে করতে একটি গান বারে বারে গাইলেন। বিকেলে ভ্রমণ শেষে তিনি তাঁর নিজের ঘরে মেঝেতে শুয়ে পড়লেন, সেবককে বললেন বাইরে থাক। সেবক বাইরে থেকে একসময় একটি আর্ত কন্ঠস্বর শুনলেন। এসে দেখলেন স্বামীজি চিরনিদ্রায় নিদ্রিত। এখানেই শেষ নয়, তিনি তাঁর দেহের বাইরে বিচরণ করছিলেন। তা নাহলে তিনি নিবেদিতার প্রার্থনা কেমন করে শুনতে পেলেন। সিস্টার একটি স্মারক নিজের কাছে রাখতে চাইছিলেন। অগ্নি সমন্বিত একটি বস্ত্রখণ্ড পূতচিতাগ্নি থেকে উড়ে এসে তাঁর শরীর স্পর্শ করল। বিদেশিনী স্তম্ভিত। কে কী বুঝলেন জানা নেই, তাঁর এই মানস কন্যা হয়তো রবীন্দ্রনাথের এই লাইনটির অর্থ আর একবার বুঝলেন— এনেছিলে সাথে করে মৃত্যুহীন প্রাণ...।
12th  January, 2019
জুনিয়র ডাক্তাররা মৃতদেহ আটকে
রাখাতেই তুঙ্গে উঠেছিল গোলমাল
এনআরএস কাণ্ডে জানতে পেরেছে পুলিস

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: এনআরএস কাণ্ডে পুলিসি তদন্তে বিবিবাগানের বহিরাগতদের পাশাপাশি এনআরএসের জুনিয়র ডাক্তাররাও কাঠগড়ায়। কলকাতা পুলিসের প্রাথমিক তদন্তে তা জানা গিয়েছে।
বিশদ

  বামেদের সঙ্গে যৌথ আন্দোলন নিয়ে আলোচনা কংগ্রেসে

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ২০১৬ সালে বাম ও কংগ্রেসের নির্বাচনী সমঝোতা হওয়াতেই ঠেকানো গিয়েছিল বিজেপির বাড়বাড়ন্ত। এবার তেমন কিছু শেষপর্যন্ত না হওয়ায় মানুষের কাছে তৃণমূল-বিরোধী শক্তি হিসেবে বিজেপি সমর্থন বাড়াতে পারল।
বিশদ

বেহাল হাসপাতাল পরিষেবা: মমতাকে পরপর চিঠি
রাজ্যপালের, শেষে মুখ্যমন্ত্রীর ফোন কেশরীনাথকে

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: জুনিয়র ডাক্তারদের লাগাতার আন্দোলনের জেরে কার্যত রাজ্যজুড়ে ভেঙে পড়া স্বাস্থ্য পরিষেবার হাল দেখে বেজায় চিন্তিত রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠি। প্রকৃতপক্ষে রাজ্যের তামাম সরকারি হাসপাতালে ডাক্তারদের কর্মবিরতির ফলে সাধারণ মানুষের চরম ভোগান্তি এবং একের পর এক রোগীর বিনা চিকিৎসায় মৃত্যুর ঘটনা জেনে গত তিন দিন ধরে ছটফট করেছেন তিনি রাজভবনে বসে।
বিশদ

ফের মমতার আবেদন, অনড় ডাক্তাররা
পঞ্চম দিনেও ভোগান্তি চরমে, বিনা চিকিৎসায় বাড়ছে মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা এবং বিএনএ: আসুন, কাজে যোগ দিন। শনিবার সন্ধ্যায় নবান্ন থেকে বাংলার আন্দোলনরত ডাক্তারদের প্রতি ফের এই আবেদন জানালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবং আবার প্রত্যাখ্যাত হল তাঁর সেই আহ্বান। উল্টে জুনিয়র ডাক্তাররা জানালেন, উনি জনগণকে বিভ্রান্ত করছেন। মূল দাবি থেকে সরে এসে আন্দোলনের মুখ ঘোরাতে চাইছেন। আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাব। মুখ্যমন্ত্রীকে এনআরএসে এসে জনসমক্ষে আমাদের সঙ্গে কথা বলতে হবে। ফলে পাঁচদিনে পড়লেও ডাক্তারদের ধর্মঘট মেটার নামগন্ধ নেই। দূর-দূরান্ত থেকে আসা দিন আনি দিন খাই মানুষদের সরকারি হাসপাতালকে কেন্দ্র করে ভোগান্তি এখন চরমে উঠেছে। রোগী মৃত্যুর সংখ্যাও বাড়ছে। প্রতি ক্ষেত্রেই চিকিৎসায় গাফিলতির অভিযোগ উঠেছে। 
বিশদ

সক্রিয় মুখ্যমন্ত্রী, আরও দুই কড়া
ধারা জোড়া হল ধৃতদের বিরুদ্ধে

  নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: এনআরএস‑কাণ্ডে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আরও কড়া ধারা সংযোজন করল সরকারপক্ষ। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশেই এই সংযোজন বলে সূত্রের খবর। শনিবার শিয়ালদহ আদালতে বিচারক শুভদীপ রায়ের এজলাসে এন্টালি থানার পুলিস ওই কড়া ধারা প্রয়োগের জন্য আবেদন জানায়।
বিশদ

হরিণঘাটার ৭ কাউন্সিলার, কাঁচরাপাড়ার
চেয়ারম্যান বিজেপি যোগ দিলেন

 বিএনএ, বারাকপুর: রাজ্যে তৃণমূল সরকার ছ’মাসের বেশি টিকবে না। শনিবার বিকেলে কাঁচরাপাড়ার আদর্শ সংঘের মাঠে দলীয় সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে এই মন্তব্য করেন বিজেপির সংসদ সদস্য অর্জুন সিং। এদিনের সভায় হরিণঘাটার সাতজন কাউন্সিলার এবং কাঁচরাপাড়া পুরসভার চেয়ারম্যান সুদামা রায় বিজেপিতে যোগদান করেন।
বিশদ

পুলিস নিগ্রহের মামলায় রাকেশের জেল হেফাজত

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: পুলিস নিগ্রহের অভিযোগে বিজেপি নেতা রাকেশ সিংকে ফের জেল হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিল আলিপুর আদালত। শুক্রবার বিচারক ওই নির্দেশ দেন। মামলাটি আদালতে উঠলে মুখ্য সরকারি আইনজীবী সৌরিণ ঘোষাল ধৃতের জামিনের আপত্তি জানান।
বিশদ

নিম্নচাপ অক্ষরেখার জেরে মেঘলা
পরিবেশ তাপমাত্রা কমাল শহরে
উত্তরবঙ্গের দোরগোড়ায় বর্ষা

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: মেঘলা আকাশের জেরে শনিবার এক ঝটকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা অনেকটা নেমে গেল শহরে। এতে গরম থেকে কিছুটা স্বস্তি মিলেছে। এদিন কলকাতায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ৩২.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা শুক্রবারের তুলনায় প্রায় সাত ডিগ্রি কম।
বিশদ

ধৃতের মা, মামার আগাম জামিনের আবেদন
তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগে
সঙ্গীতশিল্পীর ফের জেল হেফাজত

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: এক তরুণীকে মাদক মিশ্রিত ঠান্ডা পানীয় খাইয়ে বেহুশ করে ধর্ষণের অভিযোগে ধৃত সঙ্গীতশিল্পী সৌম্য চক্রবর্তীর জামিনের আবেদন আবারও বাতিল করে দিল আদালত। শনিবার শিয়ালদহ আদালতের বিচারক শুভদীপ রায় অভিযুক্তকে ফের ২৯ জুন পর্যন্ত জেল হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন।
বিশদ

কড়া অবস্থান মোদি সরকারের
ডাক্তারদের উপর হামলাকারীদের বিরুদ্ধে
কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হোক, বললেন হর্ষ বর্ধন

নিজস্ব প্রতিনিধি, নয়াদিল্লি, ১৫ জুন: ডাক্তারদের উপর হামলাকারীদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হোক। প্রয়োজনে আনা হোক আইন। এনআরএস কাণ্ডের জেরে চলতে থাকা প্রায় গোটা দেশজুড়ে সরকারি হাসপাতালে কর্মবিরতির পরিপ্রেক্ষিতে আজ এই মর্মে মোদি সরকারের কড়া অবস্থানের কথা জানিয়ে দিলেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন।
বিশদ

হাসপাতালে অচলাবস্থা
গ্রেপ্তার বা উদ্ধার হওয়া শিশুদের মেডিক্যাল
টেস্ট করাতে কালঘাম ছুটছে রেল পুলিসের

 প্রসেনজিৎ কোলে, কলকাতা: সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসকদের টানা কর্মবিরতির জেরে দুর্ভোগের অন্ত নেই রোগী ও তাঁদের পরিবার-পরিজনদের। নিত্যদিন চিকিৎসার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন বহু রোগী। তার মধ্যেই এই ঘটনায় বেজায় সমস্যা ও দুর্ভাবনায় পড়েছেন রেল পুলিসের বিভিন্ন থানার অফিসাররা।
বিশদ

রেশনে বেশি দামে চিনি সরবরাহ,
টেন্ডার বাতিল করল খাদ্য দপ্তর

 কৌশিক ঘোষ, কলকাতা: রেশনে সরবরাহ করার জন্য চিনি কেনায় বড় অনিয়ম ধরা পড়ল খাদ্য দপ্তরের তৎপরতায়। টেন্ডারে বরাত পাওয়া একটি সংস্থা বাজারদরের থেকে অনেক বেশি দামে চিনি সরবরাহ তো করেছেই, পাশাপাশি তারা টেন্ডারের অন্য শর্তও লঙ্ঘন করেছে।
বিশদ

  সংঘর্ষ ও ডাক্তারি আন্দোলন নিয়ে রিপোর্ট তলব স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের, পাঠানো হল অ্যাডভাইজরি

 সন্দীপ স্বর্ণকার, নয়াদিল্লি, ১৫ জুন: একইদিনে রাজ্যকে দুটি অ্যাডভাইসারি পাঠাল কেন্দ্র। চাওয়া হল রিপোর্টও। দিন দিন বাড়তে থাকা রাজনৈতিক সংঘর্ষে রাজ্যবাসী নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভালো নয়। আজ এই মর্মে ফের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের সমালোচনা করল কেন্দ্র।
বিশদ

 বিচারের দাবি জানিয়ে গলায় স্টেথো ঝুলিয়ে মিছিল জুনিয়র ডাক্তারদের, পাশে বিশিষ্টরা

  নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: এমন মিছিল সাম্প্রতিক অতীতে দেখেনি কলকাতা। গলায় স্টেথো ঝুলিয়ে জনাকীর্ণ সরকারি হাসপাতালের করিডরে ব্যস্তভাবে হাঁটতে দেখা যায় যাঁদের, তাঁরাই আজ ‘বিচার’-এর দাবিতে নেমে এসেছিলেন রাজপথে। স্লোগান উঠল, ‘ভয় পেয়ো না এনআরএস/ পাশে আছে গোটা দেশ’।
বিশদ

15th  June, 2019

Pages: 12345

একনজরে
সংবাদদাতা, বহরমপুর: মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে জুনিয়র ডাক্তারদের কর্মবিরতি ঘিরে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের গন্ধ পাচ্ছে তৃণমূল। শুক্রবার দুপুরে তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি আবু তাহের খান সাংবাদিক সম্মেলন করে বলেন, আমাদের অনুরোধে বৃহস্পতিবার রাতে জুনিয়র ডাক্তাররা অবস্থান বিক্ষোভ আন্দোলন থেকে সরে দাঁড়ান ...

সংবাদদাতা, আলিপুরদুয়ার: ভুটান পাহাড় ও সমতলে শুক্রবার রাতভর বৃষ্টির জেরে বাংড়ি নদীর জলোচ্ছ্বাসে হান্টাপাড়ায় ভেসে গেল মাদারিহাট-টোটোপাড়া রাজ্য সড়কের ১০০ মিটার অংশ। এর ফলে শুক্রবার ...

 ম্যাঞ্চেস্টার, ১৫ জুন: ওল্ড ট্রাফোর্ডে শনিবার ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলির সাংবাদিক সম্মেলনে ভিড় উপচে পড়েছিল। উদ্যোক্তারা সবার বসার ব্যবস্থা করে উঠতে পারেননি। এমন দৃশ্যই তো ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: কেষ্টপুরে ট্যাক্সি চালককে চড় মেরে খুন করায় অভিযুক্ত যাত্রী সৌমেন রায়কে শনিবার আদালতে তোলা হলে তাঁকে জেল হেফাজতে পাঠানো হয়েছে বলে পুলিস সূত্রে জানা গিয়েছে। শুক্রবার বিকেলে কেষ্টপুরের রবীন্দ্রপল্লির ওই ঘটনায় বাগুইআটি থানার পুলিস গ্রেপ্তার করে সৌমেনকে। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

পরীক্ষায় সাফল্য পেতে হলে পরিশ্রমী হতে হবে। কর্মপ্রার্থীদের বেসরকারি ক্ষেত্রে সাফল্যের যোগ আছে। ব্যবসায় যুক্ত ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৯৬: জাপানে সুনামিতে ২২ হাজার মানুষের মৃত্যু
১৯৫০: শিল্পপতি লক্ষ্মী মিত্তালের জন্ম
১৯৫৩: চীনের প্রেসিডেন্ট জি জিনপিংয়ের জন্ম
১৯৬৯: জার্মানির গোলকিপার অলিভার কানের জন্ম 

15th  June, 2019
ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৮.৭৩ টাকা ৭০.৪২ টাকা
পাউন্ড ৮৬.৫৭ টাকা ৮৯.৭৯ টাকা
ইউরো ৭৬.৯৪ টাকা ৭৯.৯৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
15th  June, 2019
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৩, ২০৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩১, ৭৯০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩২, ২৬৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৭, ১৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৭, ২৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১ আষা‌ঢ় ১৪২৬, ১৬ জুন ২০১৯, রবিবার, চতুর্দশী ২২/৪৬ দিবা ২/২। অনুরাধা ১২/৫৮ দিবা ১০/৭। সূ উ ৪/৫৫/৪২, অ ৬/১৮/২০, অমৃতযোগ দিবা ৬/৪৩ গতে ৯/২৩ মধ্যে পুনঃ ১২/৩ গতে ২/৪৪ মধ্যে। রাত্রি ৭/৪৩ মধ্যে পুনঃ ১০/৩৩ গতে ১২/৪১ মধ্যে, বারবেলা ৯/৫৬ গতে ১/১৭ মধ্যে, কালরাত্রি ১২/৫৭ গতে ২/১৭ মধ্যে।
৩২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ১৬ জুন ২০১৯, রবিবার, চতুর্দশী ২২/২২/৭ দিবা ১/৫২/২২। অনুরাধানক্ষত্র ১৪/৮/৫৬ দিবা ১০/৩৫/৫, সূ উ ৪/৫৫/৩১, অ ৬/২০/৩৫, অমৃতযোগ দিবা ৬/৪৬ গতে ৯/২৬ মধ্যে ও ১২/৭ গতে ২/৪৮ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৪৭ মধ্যে ও ১০/৩৭ গতে ১২/৪৪ মধ্যে, বারবেলা ৯/৫৭/২৫ গতে ১১/৩৮/৩ মধ্যে, কালবেলা ১১/৩৮/৩ গতে ১/১৮/৪১ মধ্যে, কালরাত্রি ১২/৫৭/২৫ গতে ২/১৬/৪৭ মধ্যে।
 ১২ শওয়াল

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
বিশ্বকাপ: পাকিস্তান ১৬৬/৬ (৩৫ ওভার), বৃষ্টির জন্য আপাতত: বন্ধ খেলা

10:50:00 PM

বিশ্বকাপ: পাকিস্তান ৯৫/১ (২১ ওভার) 

09:43:08 PM

বিশ্বকাপ: পাকিস্তান ৩৮/১ (১০ ওভার) 

08:56:50 PM

জুনিয়র ডাক্তারদের সঙ্গে আগামীকাল ৩টের সময় নবান্নে বৈঠক মুখ্যমন্ত্রীর 
দীর্ঘ টালবাহানার পর অবশেষে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে আলোচনার টেবিলে ...বিশদ

08:23:17 PM

ফিরহাদ হাকিমের নামে ভুয়ো প্রোফাইল, ধৃত যুবক 
মন্ত্রী তথা কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিমের নামে সোশ্যাল মিডিয়াতে ভুয়ো ...বিশদ

07:38:00 PM

বিশ্বকাপ: পাকিস্তানকে ৩৩৭ রানের টার্গেট দিল ভারত 

07:32:44 PM