Bartaman Patrika
সম্পাদকীয়
 

উপভোক্তার সচেতনতা

বাংলার আবাস যোজনা, যা গ্রামবাংলার রূপটাই বদলে দিতে পারে। কাঁচামাটির বাড়িতে বসবাসের ঝুঁকি কাটাতে তৈরি করা হচ্ছে পাকাবাড়ি। বাড়ি তৈরির এই প্রকল্পে কেন্দ্র দেয় ৬০ শতাংশ টাকা আর রাজ্যের টাকা বাকি ৪০ শতাংশ। গত অর্থবর্ষেও বাংলা আবাস যোজনা প্রকল্পে রাজ্যে ৫ লক্ষ ৮৬ হাজার বাড়ি তৈরি হয়েছে। নিজের মনের মতো হোক বা না-হোক মাথা গোঁজার একটা পাকাপোক্ত ঠাঁই পেলে উপভোক্তাদের খুশি হওয়ারই কথা। কিন্তু সেখানেও কাটমানির কাঁটা। এই প্রকল্পের টাকা পেতে হলে গ্রামের কেষ্টবিষ্টু বা অধিকাংশ গ্রাম পঞ্চায়েত কর্তার চাহিদা মতো কাটমানির টাকা না-দিলেই বিপত্তি। হয় হয়রানি, নয়তো-বা নানা অজুহাতে প্রকল্পের টাকা দেওয়ার ক্ষেত্রে টালবাহানা, কখনও-বা টাকা আটকে রাখার অভিযোগ ওঠে। আছে বঞ্চনা অনিয়ম দুর্নীতির গুচ্ছ অভিযোগও। স্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় সুষ্ঠুভাবে যেখানে গ্রামের গরিব মানুষ এই প্রকল্পের সুবিধা পেতে পারেন সেখানেই কাটমানি নিয়ে সবচেয়ে বেশি অভিযোগ। শেষ পর্যন্ত অবশ্য পঞ্চায়েত দপ্তরকে কড়া হয়ে পরিস্থিতি মোকাবিলায় নামতে হল। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্পষ্ট বলেছেন, কাটমানি নেওয়া যাবে না, তা কোনও মতেই বরদাস্ত করা হবে না। অবশেষে বাংলা আবাস যোজনায় উপভোক্তার থেকে টাকা চাওয়া আটকাতে নড়েচড়ে বসল পঞ্চায়েত দপ্তর। এবার তাই পঞ্চায়েত দপ্তর থেকে প্রতিটি জেলায় পাঠানো নির্দেশিকায় স্পষ্ট করে বলে দেওয়া হয়েছে (৬ নং পয়েন্ট) সবরকম অনিয়ম এড়িয়ে চলতে হবে। কোনও স্তরেই উপভোক্তার কাছে টাকা চাওয়া যাবে না। যদি কোনও অভিযোগ ওঠে তাহলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তবে এটা যেন কথার কথা না হয়। যদিও নির্দেশিকা পাঠিয়ে এমন ফরমান জারি অতীতে কখনও দেখা যায়নি। প্রশ্নটা হল, এ ব্যাপারে আরও আগে উদ্যোগী হলে ভালো হতো না? রাজনৈতিক দলগুলিকে মনে রাখতেই সংখ্যার বিচারে শহরের তুলনায় গ্রামাঞ্চলেই ভোটার সংখ্যা বেশি। তাই ২০২১ সালের নির্বাচনকে পাখির চোখ করে এগতে হলে এই ভোটব্যাঙ্কটিকে অক্ষত রাখাই তাদের টার্গেট। শাসক বা বিরোধী উভয়েরই লক্ষ্য এই ভোটব্যাঙ্কটি। কারণ এই ভোটাররাই হতে পারেন ওই নির্বাচনে জয় পরাজয়ের ডিসাইডিং ফ্যাক্টর। আর পঞ্চায়েত হল এমন ব্যবস্থা যার সঙ্গে এই ভোটারদের সরাসরি যোগাযোগ ঘটে।
রাজ্যের জনমুখী প্রকল্পগুলির সুফল যাতে মানুষ পায় সেজন্য মমতার সরকার সক্রিয়। তবু পচা শামুকে যাতে পা না কাটে সেজন্য এবার সতর্ক পদক্ষেপ করতে উদ্যোগ নিল তাঁর সরকারের বিভিন্ন দপ্তরও। পঞ্চায়েত দপ্তরও ব্যতিক্রম নয়। এই দপ্তরের নানা কাজের মাধ্যমে গ্রামের সিংহভাগ সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছনো সম্ভব। সেই পথেই হাঁটছে তৃণমূল সরকার। সকলেই জানে, এই পঞ্চায়েতের মাধ্যমে গ্রামীণ এলাকায় একটি বাড়ি করার জন্য ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা এবং জঙ্গলমহলে ১ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা দেওয়া হয়। যদিও অভিযোগ ওঠে বাড়ি পেতে ২০ হাজার টাকা দিতে হচ্ছে গ্রাম পঞ্চায়েতের কোনও কোনও কর্তাকে। এটা ঠেকাতেই সরকারি উদ্যোগ। তাই বাড়ির জন্য অনুমোদনের পর উপভোক্তাকে ডেকে এই প্রকল্প সম্পর্কে সচেতন করার নির্দেশ দেওয়া হল। বিডিওরা উপভোক্তাদের জন্য সচেতনতা শিবির করবেন। সেখানে তাঁদের বোঝানো হবে—কী ধরনের বাড়ি হবে, ঘর কত বড় হবে, রান্নাঘর কেমন ইত্যাদি। নিঃসন্দেহে এমন ব্যবস্থায় উপভোক্তারা এই প্রকল্পে তাঁদের প্রাপ্য বিষয়ে ওয়াকিবহাল হতে পারবেন। উদ্যোগটি নিশ্চয়ই ভালো। তবে এর বাস্তবায়ন কতটা সম্ভব হল তা পরে জানা যাবে। দেখতে হবে বাড়ি তৈরির আগে গ্রাম পঞ্চায়েত ভবন বা ব্লক অফিসে ডেকে উপভোক্তাকে বিস্তারিত বোঝানোর ক্ষেত্রে যেন কোনও ত্রুটি না-থাকে বা দুর্নীতি বাসা বাঁধতে না-পারে। উপভোক্তাদের বোঝানোর নির্দেশটি এবারই প্রথম, যা তাঁদের সচেতনতা বৃদ্ধির সহায়ক।
উদ্দেশ্য মহৎ হলে দুর্নীতিও আটকানো যাবে। যেহেতু এই প্রকল্পে কেন্দ্রও টাকা দিচ্ছে, তাই তারাও থেমে নেই। লক্ষণীয় যে উপভোক্তাসহ নির্মীয়মাণ বাড়ির ছবি চারবার তুলে জিআই ট্যাগ করে দিল্লিতে পাঠাতে বলা হয়েছে। আগেও ছবি পাঠানো হতো। তবে এবার চারবার ছবি পাঠানো বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এই বাধ্যতামূলক ব্যবস্থার মাধ্যমে কাজটি ঠিকমতো হচ্ছে কি না সে বিষয়ে নজরদারি করতে পারবে কেন্দ্রীয় গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রক। আশার কথা যে সোশিও ইকনমিক কাস্ট সেন্সাস অনুযায়ী রাজ্যের ৩৮ লক্ষ বাড়ি তৈরির লক্ষ্যমাত্রা ধার্য করেছে কেন্দ্র। কাজটি সম্পূর্ণ ও সফল হলে গ্রামবাংলার রূপটাই হয়তো বদলে যাবে। উপকৃত হবে গ্রামের লক্ষ লক্ষ পরিবার। তবে কাজটি ঠিকমতো করতে হলে কেন্দ্র এবং রাজ্য উভয়কে সচেষ্ট হতে হবে। সেক্ষেত্রে রাজনৈতিক সদিচ্ছাটাই বড় কথা।
একশো দিনের কাজ ও নয়া সঙ্কট 

একসময় যে ১০০ দিনের কাজকে ঘিরে গ্রাম বাংলার অর্থনীতিতে লক্ষণীয় পরিবর্তন এসেছিল, সেই প্রকল্পই এখন রাজনীতির আঙিনায় চর্চার মূল বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। লোকসভা ভোটে রাজ্যে বিজেপির অভাবনীয় উত্থানের পর থেকেই বিবদমান দুই রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ তলে তলে অস্ত্রে শান দিচ্ছে একে অন্যকে ঘায়েল করার জন্য।
বিশদ

10th  September, 2019
অর্থনীতি বড় চ্যালেঞ্জের মুখে

গাড়ি শিল্পে ‘রক্তক্ষরণ’ অব্যাহত। নাগাড়ে গাড়ি বিক্রি কমছে। কোপ পড়ছে কাজে। গাড়ি শিল্পে ইতিমধ্যে ৩.৫ লক্ষ কাজ খুইয়েছে। এই অবস্থায় শিল্প মহলের হুঁশিয়ারি, অবস্থার উন্নতি না-হলে আরও কর্মী চাকরি হারাবেন। দেশে গাড়ি শিল্পের বৃদ্ধির ছবিটা প্রায় মুছে যাওয়ার মুখে। বাধ্য হয়ে উত্তর ভারতে মানেসর ও গুরুগ্রামের কারখানা দুটি দু’দিন বন্ধ রাখার কথা জানিয়েছে মারুতি-সুজুকি।
বিশদ

09th  September, 2019
প্লাস্টিকের বিষ

 মার্চ মাসের ঘটনা। ফিলিপিন্সে একটি তিমির দেহ পাওয়া গিয়েছিল। যার পেটে পাওয়া গিয়েছিল ৮৮ পাউন্ড প্লাস্টিক বর্জ্য। প্রশান্ত মহাসাগরের নীচে মারিয়ানা ট্রেঞ্চ। যার তল পর্যন্ত পৌঁছনোর অনেক আগেই আলোর গতিপথ শেষ হয়ে যায়। যেখানে আস্ত মাউন্ট এভারেস্ট ঢুকে যাওয়ার পরও জায়গা থেকে যাবে।
বিশদ

08th  September, 2019
বাজি: সতর্ক হওয়ার সময়

আমাদের দেশে শারদোৎসবের ঢাকে কাঠি পড়ার আগেই বেআইনি বাজি কারখানা নিয়ে উদ্বেগ আশঙ্কা দেখা দিচ্ছে। ফের একবার পাঞ্জাবের বাটালায় বাজি তৈরির কারখানায় বিস্ফোরণে প্রায় ২৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। জখমও হয়েছেন বহু মানুষ। যাঁদের অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক। হয়তো মৃত্যু না হলেও কাউকে হয়তো বাকি জীবনটা পঙ্গু হয়ে থাকতে হতে পারে।
বিশদ

07th  September, 2019
কঠোরতর ইউএপিএ এবং

মোদি সরকার মনে করে, ২৬/১১ মুম্বই হামলার জন্য দায়ী কংগ্রেসের ভোটব্যাঙ্কের সঙ্কীর্ণ রাজনীতি। আনলফুল অ্যাক্টিভিটিজ প্রিভেনশন অ্যাক্ট (ইউএপিএ) সংশোধনী সংসদে পাশ হয়েছে মাসাধিককাল আগে। সংশোধনী বিলটি পেশ করামাত্র কংগ্রেস এবং তার সহযোগী একাধিক দল বিলটির বিরোধিতা করেছিল।
বিশদ

06th  September, 2019
নিরাপদ মেট্রো রেলই ভবিষ্যৎ

কলকাতা পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী। ব্রিটিশ ভারতেরও রাজধানী ছিল কিছুকাল। শতবর্ষ আগেই ঘুচে গিয়েছে সেই কৌলীন্য। তবু আজ পূর্ব ভারতের প্রধান নগরী। শিল্প-বাণিজ্য শিক্ষা-সংস্কৃতির অন্যতম সেরা পীঠস্থান। এসবের টানে সারা দেশের রুচিশীল মানুষের উল্লেখযোগ্য সমাবেশ ঘটেছে কলকাতায়—যা দিল্লি, মুম্বইয়ের সঙ্গেই তুলনীয়। 
বিশদ

05th  September, 2019
  অপুষ্টি নির্মূল করতেই হবে

 অপুষ্টি আর অশিক্ষা দুটোই গুরুতর সমস্যা। দেশের গরিবগুর্বো পরিবারই মূলত এই সমস্যায় ভোগে। কখনও-বা অপুষ্টিজনিত কারণে শিশুমৃত্যুর মতো দুঃখজনক ঘটনাও ঘটে যায়। তা নিয়ে সাময়িক হইচই। তারপর আবার সবই ধামাচাপা পড়ে যায়। তবে, যে-কোনও জনকল্যাণকামী রাষ্ট্রের দায়িত্বই হল—এই দুটি সমস্যা দূর করা।
বিশদ

04th  September, 2019
অর্থনীতিতে দরকার নতুন উদ্যম 

বাংলায় একটা প্রবাদ আছে। সেটা হল, ‘যত গর্জায় তত বর্ষায় না’। অর্থনীতি নিয়ে মোদি সরকারের আপাত একটা নাস্তানাবুদ ভাব নজরে পড়ছে বটে, কিন্তু সরকার সেটা স্বীকার করছে না। উল্টে এমন একটা গপ্পো মাঝে মাঝেই শোনাচ্ছে যে মনে হচ্ছে দেশ অর্থনীতিতে বিরাট এক জায়গায় পৌঁছে যাবে।  
বিশদ

03rd  September, 2019
সরকারের যুক্তিপূর্ণ আচরণ কাম্য 

অসমের জন্য প্রথম এনআরসি লিস্ট প্রকাশ করা হয় ১৯৫২ সালে। সেই তালিকার হালফিল চেহারাটা কী, তা জানার জন্য ২০১৩ সালে সুপ্রিম কোর্টের তত্ত্বাবধানে নতুন করে প্রক্রিয়া শুরু হয়। বিপুল সংখ্যক কর্মী নামিয়ে এবং বিপুল অর্থে এই দুরূহ কাজটি শেষ করার লক্ষ্য স্থির করা হয়।  বিশদ

02nd  September, 2019
বাজার চাঙ্গা না হলেই বিপদ 

অর্থনীতিতে সঙ্কটের নয়া অধ্যায়। কেন্দ্রীয় পরিসংখ্যান দপ্তর জানিয়ে দিয়েছে, চলতি আর্থিক বর্ষের প্রথম ত্রৈমাসিকে আর্থিক বৃদ্ধির হার নেমে গিয়েছে ৫ শতাংশে। তার আগের ত্রৈমাসিকে যা ছিল ৫.৮ শতাংশ। অথচ, ২০১৮ সালের ৩০ জুন শেষ হওয়া ত্রৈমাসিকে আর্থিক বৃদ্ধির হার ছিল ৮ শতাংশ।  
বিশদ

01st  September, 2019
মোবাইল যন্ত্রণা

মুঠোর মধ্যে দুনিয়া। তার নাম মোবাইল ফোন। টেলিগ্রামের যুগকে প্রাগৈতিহাসিক যুগে ফেলে এসে এখন যে কোনও বয়সি, যে কোনও আর্থিক বৃত্তে থাকা মানুষের হাতে জ্বলজ্বল করছে মোবাইল। সংযোগ-দুনিয়ায় আমূল এই বিপ্লবের পরেও কথা বলতে গিয়ে পদে পদে হোঁচট খেতে হচ্ছে।
বিশদ

31st  August, 2019
সবার মত নিয়ে চলুক সরকার

মনমোহন সিংয়ের অর্থনীতি দেশকে ডুবিয়ে দিচ্ছে আওয়াজ তুলে ২০১৪-র ভোটে দেশবাসীর সমর্থন পক্ষে এনেছিলেন নরেন্দ্র মোদি। প্রধানমন্ত্রী হয়ে মোদিজি বলেছিলেন, ইউপিএ জমানার সমস্ত ভুল শুধরে দেশকে অর্থনৈতিক প্রগতির সত্যিকার দিশা দেখাবেন। তাঁর সরকারের বক্তব্য ছিল, দেশের আর্থিক দুর্গতির মূল কারণ বিপুল পরিমাণ কালো টাকা।
বিশদ

30th  August, 2019
ট্রাফিক: সচেতনতা বৃদ্ধিই জরুরি

 ট্রাফিক পুলিসের একাংশের জুলুমবাজি এবং তোলাবাজির অভিযোগ নতুন নয়। সম্প্রতি দীঘার প্রশাসনিক বৈঠকে খোদ মুখ্যমন্ত্রী বিষয়টি নিয়ে নিজে সোচ্চার হওয়ায় স্বাভাবিক কারণেই তা নিয়ে নতুন করে হইচই শুরু হয়েছে। বিশদ

29th  August, 2019
ভাবমূর্তি স্বচ্ছ করতেই হবে

 ভাবমূর্তি স্বচ্ছ করতে হবে। জয় করতে হবে মানুষের মন। বাড়াতে হবে জনসংযোগ। ২০২১-এর নির্বাচনকে পাখির চোখ করে শক্ত জমি তৈরির প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল এবং বিরোধী বিজেপিও। যে যার মতো করে শুরু করেছে ‘দিদিকে বলো’ বা ‘দাদাকে জানানোর জন্য চা চক্র কর্মসূচিও।
বিশদ

28th  August, 2019
পৃথিবীর ফুসফুস জ্বলছে

প্রাণের জন্য হৃদযন্ত্র এবং ফুসফুসের মধ্যে কে বড়? এই প্রশ্নের কোনও মীমাংসা হয় না। এই দুটির একটি বিকল হলে অন্যটিকে সচল রাখা অসম্ভব হয়ে পড়ে। অর্থাৎ দুটিকেই একসঙ্গে ক্রিয়াশীল রাখা জীবনের শর্ত। এখন প্রসঙ্গ ফুসফুস। ফুসফুস বিগড়ে গেলেই আমাদের ত্রাহি মধুসূদন অবস্থা হয়। আমরা হাঁপাতে থাকি। সব কাজ করার সামর্থ্য রহিত হয়ে আসে।
বিশদ

27th  August, 2019
বন্ধুত্বপূর্ণ লড়াই চলুক সারা দেশে 

প্রথম বার কেন্দ্রীয় বাজেট পেশ করে অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন ঘোষণা করেন যে ২০২৪-২৫ অর্থবর্ষের ভিতর ভারতকে ৫ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার অর্থনীতির (জিডিপি) দেশে উন্নীত করার লক্ষ্যমাত্রা স্থির করেছে সরকার। তার ফলে ভারত পৃথিবীর তৃতীয় বৃহত্তম অর্থনীতি হিসেবে গুরুত্বলাভ করবে।   বিশদ

26th  August, 2019
একনজরে
বিএনএ, সিউড়ি ও সংবাদদাতা, শান্তিনিকেতন: নানুরে নিহত বিজেপি কর্মী স্বরূপ গড়াইয়ের মৃতদেহ নেওয়া নিয়ে মঙ্গলবার দিনভর টানাপোড়েন চলল। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বোলপুর মহকুমা হাসপাতালের মর্গ থেকে ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: দুর্গাপুজো ও কালীপুজোর সময়ে যাত্রীদের বাড়তি ভিড় সামাল দিতে সাপ্তাহিক ১৩ জোড়া বিশেষ ট্রেন চালানোর সিদ্ধান্ত নিল দক্ষিণ-পূর্ব রেল। তারা জানিয়েছে, সাঁতরাগাছি-চেন্নাই-সাঁতরাগাছি রুটে ট্রেনগুলি চালানো হবে। ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ডিসি (পোর্ট) সৈয়দ ওয়াকার রেজা। শুক্রবার থেকে স্কুল অব ট্রপিক্যাল মেডিসিন (এসটিএম)-এ টানা চিকিৎসা চলেছে তাঁর। ট্রপিক্যাল মেডিসিন বিভাগের প্রধান ডাঃ বিভূতি সাহার অধীনে ভর্তি হন রেজা সাহেব। ...

ইসলামাবাদ, ১০ সেপ্টেম্বর (পিটিআই): আল-আজিজিয়া দুর্নীতি মামলায় প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের আবেদনের শুনানির জন্য দুই সদস্যের বেঞ্চ গঠন করল ইসলামাবাদ হাইকোর্ট। পাক সংবাদপত্র ‘ডন’-এর দাবি, বিচারপতি আমির ফারুক এবং বিচারপতি মহসিন আখতার কিয়ানির ওই বেঞ্চে ১৮ সেপ্টেম্বর থেকে শুনানি শুরু ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

ঝগড়া এড়িয়ে চলার প্রয়োজন। শরীর স্বাস্থ্য বিষয়ে অহেতুক চিন্তা করা নিষ্প্রয়োজন। আজ আশাহত হবেন না ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৬২- মার্কিন ছোট গল্পকার ও হেনরির জন্ম
১৮৯৩- শিকাগোর ধর্ম সম্মেলনে স্বামী বিবেকানন্দ ঐতিহাসিক বক্তৃতা করেন
১৯০৮- বিপ্লবী বিনয় বসুর জন্ম
১৯১১- ক্রিকেটার লালা অমরনাথের জন্ম
২০০১- নিউ ইয়র্কের ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে এবং পেন্টাগনে বিমান হানায় অন্তত ৩ হাজার মানুষের মৃত্যু

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৮৪ টাকা ৭২.৫৪ টাকা
পাউন্ড ৮৬.৪২ টাকা ৮৯.৫৯ টাকা
ইউরো ৭৭.৫৭ টাকা ৮০.৫২ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
10th  September, 2019
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,৭০০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৭১৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৭,২৬৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৭,০০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৭,১০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৫ ভাদ্র ১৪২৬, ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বুধবার, ত্রয়োদশী ৫৯/১৩ শেষ রাত্রি ৫/৭। শ্রবণা ২১/২৫ দিবা ১/৫৯। সূ উ ৫/২৫/৩১, অ ৫/৪১/৩৮, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪ মধ্যে পুনঃ ৯/৩০ গতে ১১/৮ মধ্যে পুনঃ ৩/১৩ গতে ৪/৫১ মধ্যে। রাত্রি ৬/২৮ মধ্যে পুনঃ ৮/৪৯ মধ্যে পুনঃ ১/৩১ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ৮/২৯ গতে ১০/১ মধ্যে পুনঃ ১১/৩৩ গতে ১/৫ মধ্যে, কালরাত্রি ২/৩০ গতে ৩/৫৮ মধ্যে।
২৪ ভাদ্র ১৪২৬, ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বুধবার, ত্রয়োদশী ৫৮/৩৭/১১শেষরাত্রি ৪/৫১/৫৭। শ্রবণা নক্ষত্র ২৪/৫৬/২৬ দিবা ৩/২৩/৩৯, সূ উ ৫/২৫/৫, অ ৫/৪৩/৪৫, অমৃতযোগ দিবা ৭/২ মধ্যে ও ৯/৩১ গতে ১১/১০ মধ্যে ও ৩/১৮ গতে ৪/৫৭ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/৩৩ গতে ৮/৫৩ মধ্যে ও ১/৩১ গতে ৫/২৫ মধ্যে, বারবেলা ১১/৩৪/২৫ গতে ১/৬/৪৫ মধ্যে, কালবেলা ৮/২৯/৪৫ গতে ১০/২/৫ মধ্যে, কালরাত্রি ২/২৯/৪৫ গতে ৩/৫৭/২৫ মধ্যে। 
 ১১ মহরম

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
রাজ্যে এখনই চালু হচ্ছে না নয়া মোটর ভেইকেলস আইন 
রাজ্যে এখনই চালু হচ্ছে না নয়া মোটর ভেইকেলস আইন। আজ ...বিশদ

06:41:55 PM

এবার রেল স্টেশনেও নিষিদ্ধ হচ্ছে প্লাস্টিক
এবার একবার ব্যবহারযোগ্য প্লাস্টিক নিয়ে আর প্রবেশ করা যাবে না ...বিশদ

04:56:20 PM

কৈখালিতে গাড়ির ধাক্কায় মৃত যুবক 

04:17:00 PM

কলেজে ভর্তিতে দুর্নীতি রুখতে জেলায় সাহায্য কেন্দ্র খুলবে সরকার 
ভর্তি প্রক্রিয়া বেশ কিছু বছর ধরে অনলাইনেই চলছে। তবুও দুর্নীতি ...বিশদ

03:56:24 PM

দিদিকে বলো কর্মসূচিতে গিয়ে বিক্ষোভের মুখে ইংলিশবাজার পুরসভার ভাইস চেয়ারম্যান 

03:32:00 PM

তমলুকে মহিলা আইনজীবীর অস্বাভাবিক মৃত্যু, আটক স্বামী
তমলুকে মহিলা আইনজীবীর অস্বাভাবিক মৃত্যু। মৃতার নাম প্রিয়াঙ্কা কাণ্ডার সরকার(২৪)। ...বিশদ

03:05:44 PM