Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

মমতার ব্রিগেডে মিলতে পারে
অনেক রাজনৈতিক প্রশ্নের উত্তর
বিশ্বনাথ চক্রবর্তী

১৯ জানুয়ারি তৃণমূলের ব্রিগেড সমাবেশের মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে এ-রাজ্যে লোকসভা নির্বাচনের প্রচার শুরু হয়ে যাবে। এরপর ৩ ফেব্রুয়ারিতে বামেদের সমাবেশ রয়েছে ব্রিগেডে। বিজেপি ৭ ফেব্রুয়ারি ব্রিগেড সমাবেশের কথা ঘোষণা করলেও, ‘গণতন্ত্র বাঁচাও যাত্রা’ আটকে পড়ায়, ২৯ জানুয়ারি নরেন্দ্র মোদিকে সামনে রেখে ব্রিগেডে সমাবেশ করার কথা নতুন করে ভাবছে। রাজ্য কংগ্রেসও চাইছে রাহুল গান্ধীকে সামনে রেখে ব্রিগেডে সমাবেশ করতে। যে-কোনও নির্বাচনে প্রচার শুরুতে রাজ্যের প্রধান দলগুলি ব্রিগেড সমাবেশ করে থাকে। এটাই এই রাজ্যের রাজনৈতিক রেওয়াজ। ব্রিগেডে বড় মাপের জনসমাগম করে রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ কর্মীদের সক্রিয় করতে চান যেমন, তেমনি ভোটারদের সামনে দলের শক্তি প্রদর্শন করে নির্বাচনে দলের মূল ভাবনা উপস্থাপন করতে চান। ব্রিগেডে সমাবেশ করার মাধ্যমে রাজনৈতিক দলগুলি প্রচারের কেন্দ্রে থাকার সুযোগ পায়।
রাজ্য-রাজনীতির চার পক্ষ—তৃণমূল, বিজেপি, বাম এবং কংগ্রেসের মধ্যে নানা কারণেই তৃণমূলের ব্রিগেড সমাবেশ নিয়ে রাজ্য তো বটেই, সারা দেশেই যথেষ্ট আগ্রহ রয়েছে। বলা যায় ১৯ জানুয়ারি সারা দেশের রাজনৈতিক মহলের চোখ থাকবে ব্রিগেডের সমাবেশের দিকে। এই আগ্রহের পেছনে মূল কারণগুলি হল—
ক) বিমুদ্রাকরণের সময় থেকে তৃণমূল নেত্রী সারা দেশেই মোদি-বিরোধী অন্যতম মুখ হিসাবে উঠে এসেছেন। সুতরাং, মোদির বিরোধিতায় লোকসভা নির্বাচনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কী রাজনৈতিক বক্তব্য এই সমাবেশ থেকে উঠে আসে তা নিয়ে রাজনৈতিক মহল তো বটেই, সাধারণ মানুষেরও যথেষ্ট আগ্রহ থাকবে।
খ) ১৯ জানুয়ারি ব্রিগেড সমাবেশকে তৃণমূল নেত্রী সর্বভারতীয় বিজেপি-বিরোধী মঞ্চ হিসাবে তুলে ধরতে চাইছেন। আমন্ত্রণ জানিয়েছেন বিজেপি-বিরোধী সমস্ত দলকে। ১৯ তারিখের ব্রিগেডে কোন কোন বিরোধী দলনেতা মমতার ডাকে সাড়া দেন সেই দিকে শাসক-বিরোধী সমস্ত নেতৃত্বের নজর থাকবে।
গ) বিজেপি শিবিরে একাধিক নেতা নরেন্দ্র মোদি ও অমিত শাহের নেতৃত্বের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন। এঁদের মধ্যে অন্যতম হলেন যশোবন্ত সিন্‌হা, শত্রুঘ্ন সিন্‌হা, অরুণ শৌরি এবং রাম জেঠমালানি। মমতা শেষ পর্যন্ত বিজেপির চার বিক্ষুব্ধ নেতাকে ব্রিগেড সমাবেশে হাজির করতে পারেন কি না সেই বিষয়েও রাজনৈতিক মহলের আগ্রহ রয়েছে।
ঘ) মমতার ব্রিগেড সমাবেশে বিজেপি-বিরোধী জোটের প্রকৃতি নিয়েও যথেষ্ট আগ্রহ থাকবে। রাহুল গান্ধী হিন্দি বলয়ের তিন রাজ্যে বিজেপিকে পরাজিত করবার পর ডিএমকে সমেত বেশ কয়েকটি আঞ্চলিক দল কংগ্রেসের নেতৃত্বে বিজেপি-বিরোধী জোট গঠনের পক্ষে। অন্যদিকে তেলেঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী চন্দ্রশেখর রাও এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়রা ফেডারেল ফ্রন্টের পক্ষে। মায়াবতী, নবীন পট্টনায়করা আবার এখনই কোনও শিবিরে যেতে চাইছেন না। ব্রিগেড থেকে মোদি-বিরোধী জোটের কোনও চেহারা বের হয় কি না সেই বিষয়েও নজর থাকবে।
ঙ) কেন্দ্রীয় সরকার পরিচালনার প্রশ্নে ব্রিগেড সমাবেশ থেকে মমতা নতুন কিছু কর্মসূচি বা ভাবনার কথা জনতার কাছে পেশ করেন কি না সেই বিষয়েও সাধারণ মানুষের আগ্রহ থাকবে। মোদির সরকার পরিচালনা নিয়েও যথেষ্ট সোচ্চার মমতা। অতএব মমতার ঝুলিতে সরকার পরিচালনায় নতুন কোনও ভাবনা রয়েছে কি না সেই বিষয়েও জল্পনা থাকবে।
মমতার ডাকা ব্রিগেড সমাবেশের তুলনায় বিজেপির ডাকে ব্রিগেড সমাবেশ হবে এককভাবে রাজ্য বিজেপির উদ্যোগে। মমতার ডাকা ব্রিগেডের মতো সেই সমাবেশের সর্বভারতীয় চরিত্র থাকার সম্ভাবনা নেই। কেবলমাত্র মোদি-কেন্দ্রিক সমাবেশ। অন্যদিকে, ব্রিগেডে সমাবেশ করে বামেদের লক্ষ্য থাকবে রাজ্য-রাজনীতিতে নিজেদের প্রাসঙ্গিক করে রাখা। ওই সমাবেশ তৃণমূলের মতো না-হলেও বাম নেতৃত্ব চাইছেন মোদি-মমতা বিরোধী সমাবেশ হিসাবে সর্বভারতীয় চেহারা দেবার। কংগ্রেসও চাইবে রাহুল গান্ধীকে সামনে রেখে পূর্ব ভারতে মোদি-বিরোধী সর্বভারতীয় সমাবেশ ব্রিগেডে আয়োজন করতে। ততদিনে নির্বাচনে বামেদের সঙ্গে এই রাজ্যে যদি আসন সমঝোতা হয়ে যায়, তবে কংগ্রেসের ডাকা ব্রিগেডও বিরোধীদের গুরুত্বপূর্ণ মঞ্চ হয়ে উঠতে পারে।
নির্বাচনের আগে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের আয়োজিত ব্রিগেডের পর মূল প্রশ্ন ঘুরে ফিরে আসবে, কোন দলের ব্রিগেড সমাবেশে কত মানুষের ভিড় হয়েছিল? সাধারণত শাসক দলই এই ক্ষেত্রে অ্যাডভান্টেজ অবস্থায় থাকে। তৃণমূলের আজ সারা রাজ্যে যে ধরনের সাংগঠনিক শক্তি রয়েছে তাতে কেবলমাত্র উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা থেকেই লোক এনে মাঠ ভরিয়ে দেবার ক্ষমতা রাখে, যেমনভাবে একসময় সিপিএম নেতা সুভাষ চক্রবর্তী কেবলমাত্র উত্তর ২৪ পরগনা থেকেই লোক এনে ব্রিগেড ভরে দেবার দাবি করতেন। প্রশাসন হাতে থাকলে বাস, লরি পেতে যেমন সুবিধে, তেমনি সরকারের উপভোক্তাদের সহজেই দলীয় সমাবেশে হাজির করা যায়। সেই তুলনায় বিরোধীদের ক্ষেত্রে ব্রিগেড ততটা সহজ নয়। তবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিরোধী নেত্রী থাকাকালীন একাধিকবার ব্রিগেডে ঐতিহাসিক জনসমাবেশে করেছিলেন। এর মধ্যে ১৯৯২ সালে মমতার ডাকে ব্রিগেড ছিল আক্ষরিক অর্থেই ঐতিহাসিক। ওই সমাবেশে তিনি বামফ্রন্টের মৃত্যুঘণ্টা বাজিয়ে বাম-বিরোধিতাকে এক অন্যমাত্রায় নিয়ে গিয়েছিলেন। তবে ব্রিগেড ভরলেই যে ভোটের বাক্স ভরবে তেমন নিশ্চয়তা নেই। বাংলায় বুথ যার ভোট তার। বুথস্তরে এই মুহূর্তে তৃণমূল কংগ্রেস ছাড়া এই রাজ্যে বিজেপি-সিপিএম বা কংগ্রেস কোনও দলেরই মজবুত সংগঠন নেই। ফলের ব্রিগেড ভরালেও ভোটের বাক্স ভরবে কি না তার নিশ্চয়তা নেই। যদিও লোকসভা নির্বাচনের আগে শক্তি প্রদর্শন করে কর্মী-সমর্থক ও ভোটারদের কাছে বার্তা দেওয়ার সুযোগ কোনও দলই হাতছাড়া করতে চায় না।
১৯ জানুয়ারি তৃণমূলের ব্রিগেড সভার তুলনা টানা চলবে দুইদিক থেকে: (এক) ২০১৪-র লোকসভা নির্বাচনের আগে ৩০ জানুয়ারি, ২০১৪-য় যে ব্রিগেড জনসভা হয়েছিল এবং (দুই) বিভিন্ন সময়ে দিল্লির রামলীলা ময়দানে কিংবা বিহারের পাটনায় বিরোধী নেতাদের নিয়ে যে জনসমাবেশের আয়োজন করা হয়।
২০১৪-র ৩০ জানুয়ারি ব্রিগেডে বিপুল জনসমাবেশ দেখে সাহিত্যিক মহাশ্বেতা দেবী ১৯৭২ সালের জানুয়ারিতে অনুষ্ঠিত ইন্দিরা-মুজিবর রহমানের জনসভার তুলনা করেছিলেন। তৃণমূল নেতৃত্বের কাছে চ্যালেঞ্জ—২০১৪ ভিড়ের রেকর্ডকে অতিক্রম করা। অতীতের রামলীলা ময়দানের বা পাটনায় বিরোধী নেতাদের ডাকা সমাবেশগুলির সঙ্গে মমতার ডাকা এই ব্রিগেড সমাবেশেরও কিন্তু একটা তুলনা আসবে। এখানেই আঞ্চলিক নেতা হিসাবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাফল্য।
এই সমস্ত বিষয় ছেড়ে ১৯ জানুয়ারি মমতার ব্রিগেডের মূল চর্চার বিষয় কিন্তু মোদি-বিরোধী জোটের অভিমুখ এই সভা থেকে পাওয়া যাবে কি না। সেই বিষয়ে উত্তরে কাশ্মীরে ফারুক আবদুল্লা থেকে দক্ষিণে চন্দ্রবাবু নাইডু, পূর্বে লালুপ্রসাদের পুত্র তেজস্বী যাদব থেকে পশ্চিমে দলিত নেতা জিগনেশ-অল্পেশ-হার্দিকরা, বা উত্তর-ভারত থেকে অখিলেশ-অরবিন্দ কেজরিওয়ালরা থাকবেন। কিন্তু মমতার ব্রিগেডে কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী আসবেন কি? রাহুল এলে ফেডারেল ফ্রন্টের সঙ্গে কংগ্রেসকে কীভাবে মেলাবেন? না কি মমতা কংগ্রেস বা ইউপিএ-র সমান্তরালভাবে ফেডারেল ফ্রন্টকে মোদির বিরুদ্ধে পরিচালনা করবেন?
মমতার ব্রিগেড থেকে এইসব প্রশ্নের উত্তর পাওয়ার সম্ভাবনা থাকছে। তবে, মোদির বিরুদ্ধে একাধিক ফ্রন্ট তৈরি করলে কিন্তু রাজনৈতিকভাবে বিজেপির লাভের সম্ভাবনা থাকছে। বহু মানুষ বিজেপিকে চায় না যেমন সত্য, তেমনি ১৯৮৯ বা ১৯৯৬-এর মতো কেন্দ্রে অস্থির সরকার গঠিত হোক সেটারও বিরুদ্ধে মানুষ। বিজেপি-বিরোধী দলগুলি যদি একাধিক ফ্রন্টে বিভক্ত থাকে তবে ১৯৮৯ বা ১৯৯৬-এর অভিজ্ঞতা ভোটারদের শুনিয়ে মোদি আবারও দিল্লির মসনদে বসবেন না তার নিশ্চয়তা কোথায়?
লেখক রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক
10th  January, 2019
দক্ষ ম‌্যানেজারদের চাই, নিছক চৌকিদারদের নয় 
পি চিদম্বরম

পি চিদম্বরম: চৌকিদার হওয়াটা সম্মানের কাজ যেটা অনেক শতাব্দী ধরে চলে আসছে। চৌকিদার বা ওয়াচম‌্যানদের পাওয়া গিয়েছে সমস্ত গোষ্ঠী-সম্প্রদায় এবং পরিবেশ-পটভূমি থেকে। তাঁরা ছিলেন কিছু ব‌্যক্তি এবং তাঁদের কাজটি ছিল নিয়মমাফিক। আবাসন থেকে বাণিজ‌্য কেন্দ্র প্রভৃতি নানা স্থানে বেসরকারি উদ‌্যোগে নিরাপত্তারক্ষী নিয়োগের একটি সংগঠিত ব‌্যবসার জন্ম দিয়েছে উদারীকরণ নীতি।  বিশদ

 লোকসভা ২০১৯: প্রার্থী বাছতেই
হিমশিম, মমতাকে রুখবেন কীভাবে!
শুভা দত্ত

 দোল শেষ। তবে, রাজ্যজুড়ে রঙের উৎসবের আমেজ এখনও যথেষ্টই রয়েছে। পথেঘাটে মানুষের শরীরে মনে তার ছাপ এখনও স্পষ্ট। এবার দোলে গরম তেমন অসহনীয় ছিল না। বৃষ্টিও হয়নি। বরং, শুক্রবার হোলির বিকেলে কালবৈশাখী এসে যেটুকু ভ্যাপসা গরম জমে ছিল তাও ধুয়েমুছে নিয়ে গেছে।
বিশদ

24th  March, 2019
কংগ্রেস-সিপিএম জোট যেন
সান্ধ্য মেগা সিরিয়াল!
মৃণালকান্তি দাস

শত্রু চিহ্নিত হয়েছিল বছরখানেক আগেই। কেন্দ্রে বিজেপি, রাজ্যে তৃণমূল। সেই শত্রুকে বধ করতে কংগ্রেসের সঙ্গে হাতে হাত ধরে লড়াইয়ের ময়দানে থাকতে হবে, সেই বার্তাও দেওয়া হচ্ছিল বহুদিন ধরে। সূর্যকান্ত মিশ্র থেকে সুজন চক্রবর্তী, অধীর চৌধুরি থেকে আব্দুল মান্নান—যাঁদের জোট চর্চার সঙ্গে শত্রু-বিরোধী গরম গরম ভাষণও শোনা গিয়েছিল অনেক। কিন্তু লোকসভা ভোটের আগেই অশ্বডিম্ব প্রসব করে চূড়ান্ত হাস্যস্পদে পরিণত হয়েছে দুই দল।
বিশদ

24th  March, 2019
ধর্মের বেশে ভোটব্যাঙ্ক!
শান্তনু দত্তগুপ্ত

 

দুপুর গড়িয়ে বিকেলের পথে। তারিখটা ২৭ মে, ১৯৬৪। দিল্লির রাজপথে কালো মাথার ভিড়ে তিল ধারণের জায়গা নেই। আর ভিড়ের বেশিরভাগেরই গতিমুখ তিনমূর্তি ভবনের দিকে। সেখানে শায়িত জওহরলাল নেহরু। শেষযাত্রায় প্রধানমন্ত্রীকে শ্রদ্ধা জানাতে হাজির গ্র্যানভিল অস্টিনও। মার্কিন ছাত্র। থিসিস লিখছেন ভারতের সংবিধানের উপর। তাই আগ্রহটা বাকিদের থেকে একটু বেশিই।  
বিশদ

23rd  March, 2019
পরিবেশ নিরুদ্দেশ 
রঞ্জন সেন

খবরের কাগজে দেখলাম, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি জানিয়েছেন, সন্ত্রাস ও জলবায়ু পরিবর্তন মানব সভ্যতার সামনে বড় বিপদ। বাতাসে কার্বন নিঃসরণ বাড়ে এমন কোনও কাজ তিনি করেন না। কার্বন নিঃসরণের বিপদ সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রীর এমন সতর্কতা খুব ভালো লাগল।  
বিশদ

23rd  March, 2019
এবারের লোকসভা নির্বাচনে বাংলার
বামফ্রন্ট এবং তার প্রার্থীতালিকা
শুভময় মৈত্র

এ দেশে বামপন্থার ইতিহাস আজকের নয়। প্রায় একশো বছর আগে ১৯২৫ সালের বড়দিনের ঠিক পরের তারিখেই কানপুরে কমিউনিস্ট পার্টি অফ ইন্ডিয়ার (সিপিআই) প্রতিষ্ঠা হয়েছিল বলে শোনা যায়। সিপিএমের আবার অন্য তত্ত্বও আছে। তাদের একাংশের মতে ১৯২০ সালের ১৭ অক্টোবর তাসখন্দে ভারতের কমিউনিস্ট পার্টির পথ চলা শুরু।
বিশদ

21st  March, 2019
গত বিধানসভার ফল রাজ্যে এবারের লোকসভার ভোটে কী ইঙ্গিত রাখছে?
বিশ্বনাথ চক্রবর্তী
 

২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে বেশ কয়েক মাস ধরে চলছে জনমত সমীক্ষার কাজ। ভারতের মতো বৃহৎ গণতান্ত্রিক দেশে যেখানে ৯০ কোটি ভোটার রয়েছেন সেখানে এই বিপুল সংখ্যক মানুষের মনের খোঁজ পাওয়া সমীক্ষকদের পক্ষে কতটুকু সম্ভব তা নিয়ে বিস্তর বিতর্ক রয়েছে—বিশেষ করে ৯০ কোটি ভোটার যেখানে জাত, ধর্ম, অঞ্চলে বিভক্ত।  
বিশদ

19th  March, 2019
মোদিজির বালাকোট স্বপ্ন 

পি চিদম্বরম: গত ১০ মার্চ, রবিবার নির্বাচন কমিশন রণতূর্য বাজিয়ে দিল। সরকারকে শেষবারের মতো ‘ফেভার’ও করল তারা। নির্বাচন ঘোষণাটিকে সাধারণ মানুষ মুক্তির শ্বাসের মতো গ্রহণ করল: আর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের ঘটা নেই, আর অর্ডিন‌্যান্স নেই এবং নেই কিছু নড়বড়ে সরকারি স্কিমের বেপরোয়া সূচনা।  বিশদ

18th  March, 2019
আধাসেনা নামিয়ে কি ভোটযুদ্ধে
মমতাকে ঘায়েল করা যাবে?

শুভা দত্ত 

রাজ্যে ভোটের হাওয়া গরম হচ্ছে। জেলায় জেলায় শাসক এবং বিরোধী—দুই শিবিরের প্রচারও একটু একটু করে গতি পাচ্ছে। মন্দিরে পুজো দিয়ে প্রার্থীদের অনেকেই নেমে পড়েছেন জনসংযোগে। দেওয়াল লেখাও চলছে জোরকদমে। ভোটপ্রার্থীদের সমর্থনে পোস্টার ব্যানার দলীয় পতাকাও দেখা দিতে শুরু করেছে চারপাশে।  
বিশদ

17th  March, 2019
তীব্র জলসঙ্কট হয় মানুষের কারণে
খেসারত দিতে হবে মানুষকেই 
মৃন্ময় চন্দ

নদী বিক্রি? আজব কথা, তাও কি হয় সত্যি? ছত্তিশগড় তখনও নয় স্বয়ংসম্পূর্ণ রাজ্য, কুলকুল করে বয়ে চলেছে ‘শেওনাথ’ নদী। ১৯৯৮ সালে মধ্যপ্রদেশ সরকার ২৩ কিমি দীর্ঘ ‘শেওনাথ’ নদীটিকে ৩০ বছরের লিজে হস্তান্তর করল স্থানীয় এক ব্যবসায়ীর কাছে।  বিশদ

16th  March, 2019
সংরক্ষণের রাজনীতি, রাজনীতির সংরক্ষণ 
রঞ্জন সেন

আগে ব্যাপারটা বেশ সহজ ছিল, সিপিএম, সিপিআই মানেই শ্রমিক-কৃষক- মধ্যবিত্তদের দল, কংগ্রেস উচ্চবিত্তদের দল, বিজেপি অবাঙালি ব্যবসায়ী শ্রেণীর দল। এই সরল শ্রেণীবিভাগ এখন অচল। বাম আমলে আমরা দেখেছি, টাটাদের মতো শিল্পপতিরাও বামেদের বেশ বন্ধু হয়ে গেছেন।   বিশদ

16th  March, 2019
সন্ত্রাসবাদীদের চক্রব্যূহে ফেঁসে
রয়েছেন ইমরান খান
মৃণালকান্তি দাস

২০১৩ সালে মার্কিন বাহিনীর ড্রোন হামলায় নিহত হয়েছিলেন পাকিস্তানি তালিবান কম্যান্ডার ওয়ালি-উর-রেহমান। প্রতিবাদে ফেটে পড়েছিলেন ইমরান খান। সেদিন ট্যুইট করে বলেছিলেন, ‘ড্রোন হামলায় শান্তিকামী নেতা ওয়ালি-উর-রেহমানকে হত্যার মাধ্যমে প্রতিশোধ, যুদ্ধ ও মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেওয়া হল যোদ্ধাদের। একদমই মানতে পারছি না।’
বিশদ

15th  March, 2019
একনজরে
 জয়পুর, ২৪ মার্চ: সোমবার ঘরের মাঠে রাজস্থান রয়্যালস এবারের আইপিএলে অভিযান শুরু করছে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের বিরুদ্ধে। এই ম্যাচটির দিকে তাকিয়ে আছে আইসিসি টেস্ট খেলিয়ে ...

সংবাদদাতা, মাথাভাঙা: এবারের লোকসভা নির্বাচনে হলদিবাড়িতে অন্যতম ইস্যু হয়ে উঠেছে টম্যাটো প্রক্রিয়াকরণ শিল্প স্থাপন ও বহুমূখী হিমঘর তৈরির দাবি। কেননা হলদিবাড়ি ব্লকের ছয়টি গ্রাম পঞ্চায়েতে অন্তত ১২০০ হেক্টর জমিতে টম্যাটো চাষ হয়।   ...

 লখনউ ও ভোপাল, ২৪ মার্চ (পিটিআই): শনিবার রাতে কংগ্রেস আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের জন্য অষ্টম দফায় ৩৮ জন প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেছে। কর্ণাটকের গুলবর্গা আসন থেকে লড়বেন লোকসভার বিরোধী দলনেতা মল্লিকার্জুন খাড়গে। মহারাষ্ট্রের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী অশোক চৌহান প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন নানদেদ থেকে। ...

প্রসেনজিৎ কোলে, কলকাতা: রেলের খাবার নিয়ে যাত্রীদের অভিযোগের শেষ নেই। কখনও খাবারের বেশি দাম, কখনও নিম্নমান নিয়ে হামেশাই যাত্রীদের ক্ষোভ আছড়ে পড়ে ট্রেনে বা স্টেশনে। এবার কিছু নামী-দামি ট্রেনের খাবারের মেনু নিয়েই চূড়ান্ত বিভ্রান্তি ছড়িয়েছে যাত্রী মহলে। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যার্থীদের অধিক পরিশ্রম করতে হবে। অন্যথায় পরীক্ষার ফল ভালো হবে না। প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় ভালো ফল ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯২৭: হকি খেলোয়াড় লেসলি ক্লডিয়াসের জন্ম
১৯৪৮: অভিনেতা ফারুক শেখের জন্ম
১৯৮৪: ক্রিকেটার অশোক দিন্দার জন্ম
১৯৯২: ক্রিকেট বিশ্বকাপ জিতল পাকিস্তান 

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৮.১৫ টাকা ৬৯.৮৪ টাকা
পাউন্ড ৮৮.৭৭ টাকা ৯২.১৯ টাকা
ইউরো ৭৬.৬৭ টাকা ৭৯.৬২ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
23rd  March, 2019
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩২, ৭১৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩১, ০৪০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩১, ৫০৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮, ৩০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮, ৪০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
24th  March, 2019

দিন পঞ্জিকা

১০ চৈত্র ১৪২৫, ২৫ মার্চ ২০১৯, সোমবার, পঞ্চমী ৩৫/৫০ রাত্রি ৮/০। বিশাখা ৩/২৬ দিবা ৭/৩। সূ উ ৫/৪০/২৩, অ ৫/৪৫/২৯, অমৃতযোগ দিবা ৭/১৬ মধ্যে পুনঃ ১০/৩০ গতে ১২/৫৫ মধ্যে। রাত্রি ৬/৩৩ গতে ৮/৫৬ মধ্যে পুনঃ ১১/১৯ গতে ২/২৯ মধ্যে, বারবেলা ৭/১২ গতে ৮/৪২ মধ্যে পুনঃ ২/৪৪ গতে ৪/১৪ মধ্যে, কালরাত্রি ১০/১৪ গতে ১১/৪২ মধ্যে। 
১০ চৈত্র ১৪২৫, ২৫ মার্চ ২০১৯, সোমবার, পঞ্চমী রাত্রি ১২/১৯/৫। বিশাখানক্ষত্র ১১/৯/১১, সূ উ ৫/৪০/৪১, অ ৫/৪৪/৪১, অমৃতযোগ দিবা ৭/১৭/১৩ মধ্যে ও ১০/৩০/১৭ থেকে ১২/৫৫/৫ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/৩২/২৫ থেকে ৮/৫৫/৩৭ মধ্যে ও ১১/৫৮/৪৯ থেকে ২/২৯/৪৫ মধ্যে, বারবেলা ২/৪৩/৪১ থেকে ৪/১৪/১১ মধ্যে, কালবেলা ৭/১১/১১ থেকে ৮/৪১/৪১ মধ্যে, কালরাত্রি ১০/১৩/১১ থেকে ১১/৪২/৪১ মধ্যে। 
১৭ রজব 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
দিল্লি ক্যাপিটালস: ৮২/২ (১০ ওভার) 

24-03-2019 - 09:00:12 PM

সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিরুদ্ধে ৬ উইকেটে জয়ী কেকেআর 

24-03-2019 - 07:55:29 PM

টসে জিতে দিল্লি ক্যাপিটালসকে ব্যাট করতে পাঠাল মুম্বই ইন্ডিয়ান্স 

24-03-2019 - 07:37:38 PM

ইডেন গার্ডেন্সে ফ্লাড লাইট বিভ্রাট, বন্ধ খেলা 

24-03-2019 - 07:22:47 PM

কেকেআর: ১১৪/৩ (১৫ ওভার) 

24-03-2019 - 07:20:08 PM

কেকেআর: ৪০/১ (৫ ওভার) 

24-03-2019 - 06:25:39 PM