Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

মহাকাশ-চর্চায় ভারতকে স্যালুট জানাচ্ছে গোটা দুনিয়া
মৃণালকান্তি দাস

দেশভাগের পর আরও একবার ধর্মীয় সংঘর্ষ দেখেছিল এই দেশ। শিখদাঙ্গায় জ্বলে উঠেছিল রাজধানী দিল্লি, পাঞ্জাব। শিখ বিচ্ছিন্নতাবাদীদের শেষ করে দিতে ইন্দিরা গান্ধীর অভিযান। স্বর্ণমন্দির ছারখার করে দিয়েছিল ভারতীয় সেনাবাহিনী। আর তার প্রতিশোধ নিতে খুন হন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী। সবটাই ওই বছরে। বছর শেষ হওয়ার আগে বিশ্বের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর দুর্ঘটনার সাক্ষী থাকতে হয় এ দেশকে। ভোপাল গ্যাস দুর্ঘটনায় প্রাণ হারান কয়েক হাজার মানুষ। আর একই বছরে এই ক্ষতবিক্ষত দেশে আশার আলো দেখিয়েছিলেন বায়ুসেনার এক পাইলট।
মহাকাশ জয় নিয়ে আমেরিকা ও তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের স্নায়ুযুদ্ধের মধ্যেই ইন্দিরা গান্ধী চেয়েছিলেন অন্তত একজন ভারতীয় মহাকাশে যাক। আর তার জন্য বন্ধু দেশ রাশিয়ার সাহায্য চেয়েছিলেন তিনি। ইতিহাস তৈরি হয়েছিল ১৯৮৪ সালের ২ এপ্রিল। সোভিয়েত রিপাবলিক অব কাজাখিস্তানের একটি স্পেসপোর্ট থেকে সয়ুজ টি-১১ রকেটে চেপে মহাশূন্যের পথে উড়ে গিয়েছিলেন ভারতের উইং কম্যান্ডার রাকেশ শর্মা। সঙ্গে দু’জন রুশ নভশ্চর। ইউরি মেলিশেভ এবং গেনাডি স্টেকালভ। রাকেশ শর্মা ও তাঁর সঙ্গে থাকা মহাকাশচারীরা মহাকাশে প্রায় ৮ ঘণ্টা সময় কাটান। রাকেশ যখন মহাকাশে, প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী তাঁকে প্রশ্ন করেছিলেন, উপর থেকে কেমন লাগছে ভারতকে? কসমোনট শর্মার জবাব ছিল, ‘সারে জাহাঁ সে আচ্ছা’। কোনও ভারতীয়ের মহাকাশ থেকে ভারত ভূখণ্ডকে দেখা সেই প্রথম। পরে রাকেশ শর্মা বলেছিলেন, ‘ভারতকে মহাকাশ থেকে অনেক সুন্দর দেখায়। এখানে রয়েছে বিশাল সমুদ্রতটরেখা। তিনদিকে বেষ্টিত অনন্যসুন্দর নীল মহাসাগর। আছে শুষ্ক মালভূমি, বন, নদীর সমতলভূমি, মরুভূমির সোনালি বালু। রাজকীয় হিমালয়কে গোলাপি দেখায়। কারণ, সূর্যালোক এর উপত্যকায় পৌঁছতে পারে না। রয়েছে তুষারশিখর পর্বতমালা। আমাদের তো সবকিছুই আছে।’
সেদিন গোটা দেশকে স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন রাকেশ শর্মা। এর মাঝে ৩৪ বছরে ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরো বহু মাইল পার করেছে। মঙ্গলে যান পাঠিয়েছে। গোটা দুনিয়াকে তাক লাগিয়ে মহাকাশে পাঠিয়েছে একের পর এক উপগ্রহ। নজরে সৌরজগতের আরও এক গ্রহ শুক্র। সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে ২০২৩ সালেই শুক্রে মহাকাশযান পাঠাবে ভারত। কিন্তু এখনও অধরা নিজস্ব যানে মহাকাশে মানুষ পাঠানোর কৃতিত্ব। সেই অনন্ত অভিযানের স্বপ্নকে ফের চাগিয়ে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। গত বছর ১৫ অগাস্ট লালকেল্লায় দাঁড়িয়ে তিনি বলেছিলেন, ভারতের স্বাধীনতার ৭৫তম বছর পূর্ণ হবে ২০২২ সালে। সেই বছরই ভারতের কোনও সন্তান ভারতের পতাকা নিয়ে যাবে মহাকাশে। এই ঘোষণায় সিলমোহর দিয়েছে ইসরো।
একটা সময় ছিল, যখন মহাকাশে মানুষ পাঠানো নিয়ে আমেরিকা-সোভিয়েতের সমানে সমানে লড়াই চলত। আমেরিকার নভোচরদের বলা হত অ্যাস্ট্রোনট, রাশিয়া নাম দিয়েছিল কসমোনট। এবার ইসরোর পাঠানো মহাকাশচারীকে বলা হবে ‘গগনট’। আর ভিনদেশের নয়, দেশের এবং দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি যানে মহাকাশে যাবে ভারত। জানিয়েছেন ইসরো চেয়ারম্যান কে শিভান। ‘গগনযান’ নামে সেই মিশনের জন্য কেন্দ্রীয় সরকার বরাদ্দ করেছে ১০ হাজার কোটি টাকা। জানা গিয়েছে, সাতদিনের ওই অভিযানে তিনজনকে পাঠানো হবে। শ্রীহরিকোটা মহাকাশ বন্দর থেকে রওনা হওয়ার ১৬ মিনিটের মধ্যে মহাকাশে পৌঁছে যাবেন তিন নভোশ্চর। ৩০০ থেকে ৪০০ কিলোমিটারের একটি কক্ষপথে অবস্থান করবে সেই স্পেসক্রাফট। অভিযাত্রীরা থাকবেন একটি ক্রু মডিউলে, যা একটি সার্ভিস মডিউলের সঙ্গে যুক্ত থাকবে। এই দুই মডিউল নিয়ে তৈরি অরবিটাল মডিউলটিকে মহাকাশে বয়ে নিয়ে যাবে ‘জিএসএলভি এমকে-থ্রি’ রকেটের অত্যাধুনিক সংস্করণ।
তবে মহাকাশে মানুষ পাঠানোর আগে ২০২০ ও ২০২১ সালে দুটি মানবহীন যানও পাঠাবে ইসরো। গোটা পথটা পরীক্ষা করে দেখতে। ২০২২-এর মধ্যে পুরো প্রোগ্রাম সম্পূর্ণ হবে বলে আশা করা হচ্ছে। গোটা বিশ্বে রাশিয়া, আমেরিকা ও চীনের পর ভারতই হবে চতুর্থ দেশ, যারা মহাকাশে মানুষ পাঠাবে। তবে, চাঁদে বা মঙ্গলে মহাকাশযান পাঠানোর তুলনাতেও এই প্রকল্প অনেক বেশি কঠিন। মহাকাশে মানুষ পাঠানোর ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হল মহাকাশচারীদের পৃথিবীতে ফিরিয়ে আনা। পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে প্রবেশ করলেই মহাকাশযানগুলি বায়ুর সঙ্গে ঘর্ষণে প্রবল উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। এই তাপকে সহ্য করার মতো প্রযুক্তি তৈরিই মহাকাশে মানুষ পাঠানোর ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। আর তা চ্যালেঞ্জ হিসেবেই নিয়েছে ইসরো।
শ্রীহরিকোটা মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্রে জোর কদমে চলছে লক্ষ্যে পৌঁছনোর প্রস্তুতি। হাতে সময় ৪০ মাস। ইসরোর তরফে জানানো হয়েছে, ৪০ মাসের মধ্যে হবে প্রথম অভিযান। মহাকাশ-যাত্রার যাবতীয় প্রশিক্ষণও দেওয়া হবে এই সময়ের মধ্যেই। ইসরোর দাবি, ২০০৮-এর পরিকল্পনা মোতাবেক উৎক্ষেপণ যান ‘জিএসএলভি এমকে-থ্রি’ অনেকটাই তৈরি হয়ে গিয়েছে। ১৭৩ কোটি টাকা খরচ করেও আর্থিক কারণে মাঝে খানিকটা থমকে যায়। কেউ কেউ বলেছেন, টাকার অভাব। কিন্তু ইসরোর অবসরপ্রাপ্ত বিজ্ঞানীদের অনেকেই বলছেন, টাকা নয়, আসল অভাবটা প্রযুক্তির। এ দেশের মহাকাশ বিজ্ঞানীরা গোঁ ধরে বসেছিলেন, তাঁরাই প্রযুক্তির উদ্ভাবন করবেন। সেই প্রযুক্তিই বিশ্ব-সেরা হবে বলে তাঁদের ধারণা। তাই তাঁরা আউটসোর্সিংয়ের ভাবনাটাকে বরাবরই দূরে সরিয়ে রাখতে চেয়েছেন।
২০১৮ সালের জুলাই মাসেই প্রায় ১৩ টনের ক্রু মডিউল প্যাড অ্যাবোর্ট পরীক্ষা করা হয়। যাতে উৎক্ষেপণের সময় দুর্ঘটনার কবলে পড়লে বাঁচানো সম্ভব হয় তিন মহাকাশচারীকে। এ ব্যাপারে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল, এমন একটা মহাকাশযান তৈরি, যা মহাশূন্যে অনেকটা ওজন বহনে সক্ষম। মানববহনকারী মহাকাশযানকে অতিরিক্ত ৫ থেকে ৬ টন ওজন বহন করতে হবে। ইসরোর প্রধান উৎক্ষেপণযান পিএসএলভি, যা চন্দ্রযান ও মঙ্গলযান মিশনে ব্যবহৃত হয়েছিল, তা খুব বেশি হলে ২ টন ওজন বহনে সক্ষম, এবং তাও পৃথিবীর ৬০০ কিলোমিটারের মধ্যে। সেই কারণেই প্রস্তুতি চলছে ‘জিএসএলভি এমকে-থ্রি’- এর। যে উৎক্ষেপণযান মহাকাশের বেশি গভীরে, বেশি ওজনের মহাকাশযান উৎক্ষেপণ করতে পারবে। ইসরোর দাবি, এই অভিযান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে দেশকে নতুন দিশা দেবে। কৃষি থেকে শুরু করে ওষুধ তৈরি কিংবা দূষণ নিয়ন্ত্রণেও এই অভিযান থেকে বিপুল তথ্য পাওয়া যাবে বলে মনে করা হচ্ছে।
সামরিক ও মহাকাশ প্রযুক্তিতে আজকের দুনিয়ায় নিজেদের অবস্থান জানান দেওয়া গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম হয়ে উঠেছে। আগে আমেরিকা ও রাশিয়া এক্ষেত্রে নিজেদের অগ্রগতি দেখালেও এখন চীনও অনেক এগিয়েছে। ভারতও হাত গুটিয়ে বসে নেই। শুধু ২০১৮-র কথাই ধরুন। ৩০টি সহযাত্রী উপগ্রহ-সহ গত বছর ১২ জানুয়ারি ইসরোর ৭১০ কেজির কার্টোস্যাট-২ রিমোট সেন্সিং উপগ্রহ সফলভাবে উৎক্ষেপণ করা হয়। ২০১৮-র ২৯ মার্চ জিস্যাট-৬এ উপগ্রহ জিওসিনক্রোনাস ট্রান্সফার কক্ষে উৎক্ষেপণ করা হয়। জিস্যাট-৬এ একটি সংযোগমূলক উপগ্রহ, যেটি মোবাইল সংযোগ পরিষেবায় সাহায্য করে থাকে। ১২ এপ্রিল ১,৪২৫ কেজির আইআরএনএসএস-২ উপগ্রহ সফলভাবে উৎক্ষেপণ করা হয়। ১৬ সেপ্টেম্বর উৎক্ষেপণ করা হয় দুটি উপগ্রহ নোভাসার এবং এস১-৪। ২৯ নভেম্বর ভূ-পর্যবেক্ষণের জন্য দেশের একটি শক্তিশালী উপগ্রহ ‘হাইসিস’-সহ ৩০টি বিদেশি উপগ্রহকে মহাকাশে উৎক্ষেপণ করা হয়। ৫ ডিসেম্বর ইসরোর সবথেকে ভারী এবং প্রযুক্তিগতভাবে সবচেয়ে উন্নত সংযোগমূলক উপগ্রহ জিস্যাট-১১টি উৎক্ষেপণ করা হয়। ১৯ ডিসেম্বর সংযোগমূলক উপগ্রহ জিস্যাট-৭এ সফলভাবে উৎক্ষেপণ করে ইসরো। যাকে বলা হচ্ছে ইসরোর ‘অ্যাংরি বার্ড’। ভারতীয় বায়ু সেনার হাতে থাকা অত্যাধুনিক ক্ষেপণাস্ত্র, ড্রোন ও যুদ্ধ বিমানের নিয়ন্ত্রণে বিশেষভাবে সাহায্য করবে এই উপগ্রহ। একে সাফল্য বলবেন না? শুধু তাই-ই নয়! চলতি বছরে আরও ৩২টি মহাকাশ অভিযান চালাবে বলে জানিয়েছে ইসরো। ‘২০১৯ সাল ইসরোর কাছে একটা চ্যালেঞ্জিং বছর।’ সহকর্মীদের নতুন বছরের বার্তায় বলেছেন ইসরো প্রধান কে শিভান। কারণ, এ বছরই রয়েছে ‘চন্দ্রযান-২’-এর মতো গুরুত্বপূর্ণ অভিযান।
মহাকাশ-চর্চায় ভারতের সাফল্যে স্যালুট জানাচ্ছে গোটা দুনিয়া। ইউরোপ, আমেরিকা থেকে প্রতিবেশী চীন—বিশ্বের প্রধান শক্তিধর রাষ্ট্রগুলোর সংবাদমাধ্যমে এখন ইসরোর সাফল্যের চর্চা। ২০১৭-র ফেব্রুয়ারিতে রেকর্ড সৃষ্টি করে একসঙ্গে ১০৪টি স্যাটেলাইট মহাকাশে পাঠায় ভারতের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরো। যেভাবে ভারত মহাকাশভিত্তিক নজরদারি ও যোগাযোগ স্থাপনের বাণিজ্যিক ক্ষেত্র দখল করছে, তা প্রশংসার দাবিদার বলে জানিয়েছে বিশ্বের সবক’টি প্রধান সংবাদমাধ্যম। মহাকাশ চর্চায় বাণিজ্যিক ক্ষেত্রের দখল এখন ভারতের হাতে। তুলনামূলক অনেক কম খরচে অন্য দেশের স্যাটেলাইট মহাকাশে পাঠানোর ভূমিকায় ভারত উল্লেখযোগ্য স্থান দখল করেছে বলে লিখেছে ওয়াশিংটন পোস্ট। নিউ ইয়র্ক টাইমসের কথায়, একবারেই আগের রেকর্ডের তিনগুণ বেশি সংখ্যক স্যাটেলাইট মহাকাশে পাঠিয়ে ভারত যে রেকর্ড গড়েছে, তাতে তার ভূমিকাকে অস্বীকার করা যায় না। সিএনএন-এর মতে, ‘আমেরিকা বনাম রাশিয়ার মহাকাশ যুদ্ধ এখন অতীত। মহাকাশের আসল লড়াই চলছে এশিয়াতেই।’ ভারত এখন মহাকাশ গবেষণার এলিট গ্রুপে ঢুকে পড়েছে বলে জানিয়েছে লন্ডনের টাইমস পত্রিকা। একই কথা বলতে বাধ্য হচ্ছে চীনের সংবাদমাধ্যমও।
আর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলছেন, ‘ঘুমন্ত হাতি’ ভারত এখন দৌড়াচ্ছে, গোটা বিশ্ব সেই দৌড় দেখছে।
11th  January, 2019
দক্ষ ম‌্যানেজারদের চাই, নিছক চৌকিদারদের নয় 
পি চিদম্বরম

পি চিদম্বরম: চৌকিদার হওয়াটা সম্মানের কাজ যেটা অনেক শতাব্দী ধরে চলে আসছে। চৌকিদার বা ওয়াচম‌্যানদের পাওয়া গিয়েছে সমস্ত গোষ্ঠী-সম্প্রদায় এবং পরিবেশ-পটভূমি থেকে। তাঁরা ছিলেন কিছু ব‌্যক্তি এবং তাঁদের কাজটি ছিল নিয়মমাফিক। আবাসন থেকে বাণিজ‌্য কেন্দ্র প্রভৃতি নানা স্থানে বেসরকারি উদ‌্যোগে নিরাপত্তারক্ষী নিয়োগের একটি সংগঠিত ব‌্যবসার জন্ম দিয়েছে উদারীকরণ নীতি।  বিশদ

 লোকসভা ২০১৯: প্রার্থী বাছতেই
হিমশিম, মমতাকে রুখবেন কীভাবে!
শুভা দত্ত

 দোল শেষ। তবে, রাজ্যজুড়ে রঙের উৎসবের আমেজ এখনও যথেষ্টই রয়েছে। পথেঘাটে মানুষের শরীরে মনে তার ছাপ এখনও স্পষ্ট। এবার দোলে গরম তেমন অসহনীয় ছিল না। বৃষ্টিও হয়নি। বরং, শুক্রবার হোলির বিকেলে কালবৈশাখী এসে যেটুকু ভ্যাপসা গরম জমে ছিল তাও ধুয়েমুছে নিয়ে গেছে।
বিশদ

24th  March, 2019
কংগ্রেস-সিপিএম জোট যেন
সান্ধ্য মেগা সিরিয়াল!
মৃণালকান্তি দাস

শত্রু চিহ্নিত হয়েছিল বছরখানেক আগেই। কেন্দ্রে বিজেপি, রাজ্যে তৃণমূল। সেই শত্রুকে বধ করতে কংগ্রেসের সঙ্গে হাতে হাত ধরে লড়াইয়ের ময়দানে থাকতে হবে, সেই বার্তাও দেওয়া হচ্ছিল বহুদিন ধরে। সূর্যকান্ত মিশ্র থেকে সুজন চক্রবর্তী, অধীর চৌধুরি থেকে আব্দুল মান্নান—যাঁদের জোট চর্চার সঙ্গে শত্রু-বিরোধী গরম গরম ভাষণও শোনা গিয়েছিল অনেক। কিন্তু লোকসভা ভোটের আগেই অশ্বডিম্ব প্রসব করে চূড়ান্ত হাস্যস্পদে পরিণত হয়েছে দুই দল।
বিশদ

24th  March, 2019
ধর্মের বেশে ভোটব্যাঙ্ক!
শান্তনু দত্তগুপ্ত

 

দুপুর গড়িয়ে বিকেলের পথে। তারিখটা ২৭ মে, ১৯৬৪। দিল্লির রাজপথে কালো মাথার ভিড়ে তিল ধারণের জায়গা নেই। আর ভিড়ের বেশিরভাগেরই গতিমুখ তিনমূর্তি ভবনের দিকে। সেখানে শায়িত জওহরলাল নেহরু। শেষযাত্রায় প্রধানমন্ত্রীকে শ্রদ্ধা জানাতে হাজির গ্র্যানভিল অস্টিনও। মার্কিন ছাত্র। থিসিস লিখছেন ভারতের সংবিধানের উপর। তাই আগ্রহটা বাকিদের থেকে একটু বেশিই।  
বিশদ

23rd  March, 2019
পরিবেশ নিরুদ্দেশ 
রঞ্জন সেন

খবরের কাগজে দেখলাম, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি জানিয়েছেন, সন্ত্রাস ও জলবায়ু পরিবর্তন মানব সভ্যতার সামনে বড় বিপদ। বাতাসে কার্বন নিঃসরণ বাড়ে এমন কোনও কাজ তিনি করেন না। কার্বন নিঃসরণের বিপদ সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রীর এমন সতর্কতা খুব ভালো লাগল।  
বিশদ

23rd  March, 2019
এবারের লোকসভা নির্বাচনে বাংলার
বামফ্রন্ট এবং তার প্রার্থীতালিকা
শুভময় মৈত্র

এ দেশে বামপন্থার ইতিহাস আজকের নয়। প্রায় একশো বছর আগে ১৯২৫ সালের বড়দিনের ঠিক পরের তারিখেই কানপুরে কমিউনিস্ট পার্টি অফ ইন্ডিয়ার (সিপিআই) প্রতিষ্ঠা হয়েছিল বলে শোনা যায়। সিপিএমের আবার অন্য তত্ত্বও আছে। তাদের একাংশের মতে ১৯২০ সালের ১৭ অক্টোবর তাসখন্দে ভারতের কমিউনিস্ট পার্টির পথ চলা শুরু।
বিশদ

21st  March, 2019
গত বিধানসভার ফল রাজ্যে এবারের লোকসভার ভোটে কী ইঙ্গিত রাখছে?
বিশ্বনাথ চক্রবর্তী
 

২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে বেশ কয়েক মাস ধরে চলছে জনমত সমীক্ষার কাজ। ভারতের মতো বৃহৎ গণতান্ত্রিক দেশে যেখানে ৯০ কোটি ভোটার রয়েছেন সেখানে এই বিপুল সংখ্যক মানুষের মনের খোঁজ পাওয়া সমীক্ষকদের পক্ষে কতটুকু সম্ভব তা নিয়ে বিস্তর বিতর্ক রয়েছে—বিশেষ করে ৯০ কোটি ভোটার যেখানে জাত, ধর্ম, অঞ্চলে বিভক্ত।  
বিশদ

19th  March, 2019
মোদিজির বালাকোট স্বপ্ন 

পি চিদম্বরম: গত ১০ মার্চ, রবিবার নির্বাচন কমিশন রণতূর্য বাজিয়ে দিল। সরকারকে শেষবারের মতো ‘ফেভার’ও করল তারা। নির্বাচন ঘোষণাটিকে সাধারণ মানুষ মুক্তির শ্বাসের মতো গ্রহণ করল: আর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের ঘটা নেই, আর অর্ডিন‌্যান্স নেই এবং নেই কিছু নড়বড়ে সরকারি স্কিমের বেপরোয়া সূচনা।  বিশদ

18th  March, 2019
আধাসেনা নামিয়ে কি ভোটযুদ্ধে
মমতাকে ঘায়েল করা যাবে?

শুভা দত্ত 

রাজ্যে ভোটের হাওয়া গরম হচ্ছে। জেলায় জেলায় শাসক এবং বিরোধী—দুই শিবিরের প্রচারও একটু একটু করে গতি পাচ্ছে। মন্দিরে পুজো দিয়ে প্রার্থীদের অনেকেই নেমে পড়েছেন জনসংযোগে। দেওয়াল লেখাও চলছে জোরকদমে। ভোটপ্রার্থীদের সমর্থনে পোস্টার ব্যানার দলীয় পতাকাও দেখা দিতে শুরু করেছে চারপাশে।  
বিশদ

17th  March, 2019
তীব্র জলসঙ্কট হয় মানুষের কারণে
খেসারত দিতে হবে মানুষকেই 
মৃন্ময় চন্দ

নদী বিক্রি? আজব কথা, তাও কি হয় সত্যি? ছত্তিশগড় তখনও নয় স্বয়ংসম্পূর্ণ রাজ্য, কুলকুল করে বয়ে চলেছে ‘শেওনাথ’ নদী। ১৯৯৮ সালে মধ্যপ্রদেশ সরকার ২৩ কিমি দীর্ঘ ‘শেওনাথ’ নদীটিকে ৩০ বছরের লিজে হস্তান্তর করল স্থানীয় এক ব্যবসায়ীর কাছে।  বিশদ

16th  March, 2019
সংরক্ষণের রাজনীতি, রাজনীতির সংরক্ষণ 
রঞ্জন সেন

আগে ব্যাপারটা বেশ সহজ ছিল, সিপিএম, সিপিআই মানেই শ্রমিক-কৃষক- মধ্যবিত্তদের দল, কংগ্রেস উচ্চবিত্তদের দল, বিজেপি অবাঙালি ব্যবসায়ী শ্রেণীর দল। এই সরল শ্রেণীবিভাগ এখন অচল। বাম আমলে আমরা দেখেছি, টাটাদের মতো শিল্পপতিরাও বামেদের বেশ বন্ধু হয়ে গেছেন।   বিশদ

16th  March, 2019
সন্ত্রাসবাদীদের চক্রব্যূহে ফেঁসে
রয়েছেন ইমরান খান
মৃণালকান্তি দাস

২০১৩ সালে মার্কিন বাহিনীর ড্রোন হামলায় নিহত হয়েছিলেন পাকিস্তানি তালিবান কম্যান্ডার ওয়ালি-উর-রেহমান। প্রতিবাদে ফেটে পড়েছিলেন ইমরান খান। সেদিন ট্যুইট করে বলেছিলেন, ‘ড্রোন হামলায় শান্তিকামী নেতা ওয়ালি-উর-রেহমানকে হত্যার মাধ্যমে প্রতিশোধ, যুদ্ধ ও মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেওয়া হল যোদ্ধাদের। একদমই মানতে পারছি না।’
বিশদ

15th  March, 2019
একনজরে
 লন্ডন, ২৪ মে (এপি): ব্রেক্সিট ইস্যুতে ঘরেবাইরে ক্রমশঃ চাপ বাড়ছে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরিজা মের উপর। নিজের দল কনজারভেটিভ পার্টি থেকেই দাবি উঠেছে হয় অবিলম্বে পদত্যাগ করতে, নয়তো পদত্যাগ দিনক্ষণ চূড়ান্ত করতে। রবিবার এই নিয়েই সরগরম ব্রিটিশ মিডিয়া।  ...

 সংবাদদাতা, তারকেশ্বর: তারকেশ্বরের তালপুর গ্রামে প্রায় ছয় কোটি টাকা ব্যয়ে তৈরি হওয়া দু’টি জলপ্রকল্পে উপকৃত হতে চলেছেন তিনটি গ্রামের প্রায় ৫০ হাজার মানুষ। তারকেশ্বর তালপুর পঞ্চায়েতের রামনারায়ণপুর ও নগদীপাড়া গ্রামে দু’টি জলপ্রকল্পের মাধ্যমে বাড়ি বাড়ি জল পৌঁছে দেওয়ার উদ্যোগে খুশি ...

সংবাদদাতা, মাথাভাঙা: এবারের লোকসভা নির্বাচনে হলদিবাড়িতে অন্যতম ইস্যু হয়ে উঠেছে টম্যাটো প্রক্রিয়াকরণ শিল্প স্থাপন ও বহুমূখী হিমঘর তৈরির দাবি। কেননা হলদিবাড়ি ব্লকের ছয়টি গ্রাম পঞ্চায়েতে অন্তত ১২০০ হেক্টর জমিতে টম্যাটো চাষ হয়।   ...

প্রসেনজিৎ কোলে, কলকাতা: রেলের খাবার নিয়ে যাত্রীদের অভিযোগের শেষ নেই। কখনও খাবারের বেশি দাম, কখনও নিম্নমান নিয়ে হামেশাই যাত্রীদের ক্ষোভ আছড়ে পড়ে ট্রেনে বা স্টেশনে। এবার কিছু নামী-দামি ট্রেনের খাবারের মেনু নিয়েই চূড়ান্ত বিভ্রান্তি ছড়িয়েছে যাত্রী মহলে। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যার্থীদের অধিক পরিশ্রম করতে হবে। অন্যথায় পরীক্ষার ফল ভালো হবে না। প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় ভালো ফল ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯২৭: হকি খেলোয়াড় লেসলি ক্লডিয়াসের জন্ম
১৯৪৮: অভিনেতা ফারুক শেখের জন্ম
১৯৮৪: ক্রিকেটার অশোক দিন্দার জন্ম
১৯৯২: ক্রিকেট বিশ্বকাপ জিতল পাকিস্তান 

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৮.১৫ টাকা ৬৯.৮৪ টাকা
পাউন্ড ৮৮.৭৭ টাকা ৯২.১৯ টাকা
ইউরো ৭৬.৬৭ টাকা ৭৯.৬২ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
23rd  March, 2019
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩২, ৭১৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩১, ০৪০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩১, ৫০৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮, ৩০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮, ৪০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
24th  March, 2019

দিন পঞ্জিকা

১০ চৈত্র ১৪২৫, ২৫ মার্চ ২০১৯, সোমবার, পঞ্চমী ৩৫/৫০ রাত্রি ৮/০। বিশাখা ৩/২৬ দিবা ৭/৩। সূ উ ৫/৪০/২৩, অ ৫/৪৫/২৯, অমৃতযোগ দিবা ৭/১৬ মধ্যে পুনঃ ১০/৩০ গতে ১২/৫৫ মধ্যে। রাত্রি ৬/৩৩ গতে ৮/৫৬ মধ্যে পুনঃ ১১/১৯ গতে ২/২৯ মধ্যে, বারবেলা ৭/১২ গতে ৮/৪২ মধ্যে পুনঃ ২/৪৪ গতে ৪/১৪ মধ্যে, কালরাত্রি ১০/১৪ গতে ১১/৪২ মধ্যে। 
১০ চৈত্র ১৪২৫, ২৫ মার্চ ২০১৯, সোমবার, পঞ্চমী রাত্রি ১২/১৯/৫। বিশাখানক্ষত্র ১১/৯/১১, সূ উ ৫/৪০/৪১, অ ৫/৪৪/৪১, অমৃতযোগ দিবা ৭/১৭/১৩ মধ্যে ও ১০/৩০/১৭ থেকে ১২/৫৫/৫ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/৩২/২৫ থেকে ৮/৫৫/৩৭ মধ্যে ও ১১/৫৮/৪৯ থেকে ২/২৯/৪৫ মধ্যে, বারবেলা ২/৪৩/৪১ থেকে ৪/১৪/১১ মধ্যে, কালবেলা ৭/১১/১১ থেকে ৮/৪১/৪১ মধ্যে, কালরাত্রি ১০/১৩/১১ থেকে ১১/৪২/৪১ মধ্যে। 
১৭ রজব 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
দিল্লি ক্যাপিটালস: ৮২/২ (১০ ওভার) 

24-03-2019 - 09:00:12 PM

সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিরুদ্ধে ৬ উইকেটে জয়ী কেকেআর 

24-03-2019 - 07:55:29 PM

টসে জিতে দিল্লি ক্যাপিটালসকে ব্যাট করতে পাঠাল মুম্বই ইন্ডিয়ান্স 

24-03-2019 - 07:37:38 PM

ইডেন গার্ডেন্সে ফ্লাড লাইট বিভ্রাট, বন্ধ খেলা 

24-03-2019 - 07:22:47 PM

কেকেআর: ১১৪/৩ (১৫ ওভার) 

24-03-2019 - 07:20:08 PM

কেকেআর: ৪০/১ (৫ ওভার) 

24-03-2019 - 06:25:39 PM