Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

সোশ্যাল মিডিয়ার যুগে ভোট
শুভা দত্ত

সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে দু’টি দফার ভোটগ্রহণ ইতিমধ্যে সমাপ্ত। এই নির্বাচনে সাত দফায় ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন ৯০ কোটি মানুষ। এক্ষেত্রে একটি প্রাসঙ্গিক তথ্য হল, এখন দেশে ৫৬ কোটি মানুষ ইন্টারনেটের সঙ্গে যুক্ত। তাদের সিংহভাগ তরুণ-তরুণী। তারা নিয়মিত ফেসবুক, ট্যুইটার আর হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে খবর দেওয়া নেওয়া করে।
গত কয়েক মাস ধরে প্রতিটি রাজনৈতিক দল ওই মাধ্যমগুলিতে ব্যাপক প্রচার চালিয়েছে। ফেসবুক, ট্যুইটার আর হোয়াটসঅ্যাপে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে শত শত প্রচারমূলক অডিও এবং ভিডিও ক্লিপ।
রাজনীতিকদের হিসেব সহজ। যে বিপুল সংখ্যক মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করে, তাদের পাঁচ থেকে ১০ শতাংশকেও যদি প্রভাবিত করা যায়, তাহলেই কেল্লা ফতে। এই ভেবে সবকটি দল সোশ্যাল মিডিয়ার প্রচারে কোটি কোটি টাকা বিনিয়োগ করে বসে আছে। এক্ষেত্রে সবচেয়ে অগ্রণী বিজেপি। তারপরেই আছে কংগ্রেস। বাকিরাও চেষ্টা করছে যে যার সাধ্যমতো। এই প্রথমবার ফেসবুক, ট্যুইটার কিংবা হোয়াটসঅ্যাপ এত গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে ভারতীয় রাজনীতিতে।
এখনও পর্যন্ত ট্যুইটারে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ফলোয়ারের সংখ্যা ৪ কোটি ৬০ লক্ষ। আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ব্যতীত সোশ্যাল মিডিয়ায় এত বেশি অনুগামী আর কোনও রাষ্ট্রপ্রধানের নেই। কংগ্রেসের সভাপতি রাহুল গান্ধী ট্যুইটারে অ্যাকাউন্ট খুলেছেন ২০১৫ সালে। তাঁর ফলোয়ার ৯০ লক্ষ।
অনেকে সোশ্যাল মিডিয়ার এই বাড়বাড়ন্তের মধ্যে সিঁদুরে মেঘ লক্ষ করেছেন। কেননা একে ব্যবহার করে মুহূর্তে লক্ষ লক্ষ মানুষের কাছে পৌঁছে যাওয়া যায়। অসাধু কোনও রাজনীতিক খুব সহজে গুজব, কুৎসা ও মিথ্যা খবর ছড়িয়ে দিতে পারেন জনগণের মাঝে। তাতে সাধারণ মানুষের সিদ্ধান্ত প্রভাবিত হতে পারে।
ভোটের মরশুমে সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ে এমন বিতর্ক নতুন নয়। ২০১৬ সালে আমেরিকায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময়ও অভিযোগ উঠেছিল, রাশিয়ানরা সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রাম্পের হয়ে প্রচার চালাচ্ছে।
প্রশ্ন হল, সোশ্যাল মিডিয়া সত্যিই কি ভোটে বিঘ্ন ঘটাতে এসেছে? এর জবাব পেতে গেলে আগে বুঝতে হবে দুটি বিষয়। প্রথমত, অন্য সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে সোশ্যাল মিডিয়ার তফাৎ কোথায়? দ্বিতীয়ত, গত কয়েক দশকে কীভাবে বদলে গিয়েছে আমাদের সংবাদ মাধ্যম?
আগেকার দিনে দেশ-বিদেশের খবর পাওয়ার একমাত্র মাধ্যম ছিল সংবাদপত্র। ভোরবেলায় হকাররা বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দিত ধূসর নিউজপ্রিন্টে ছাপা খবরের কাগজ। তাতে নানা ঘটনা, দুর্ঘটনা ও দেশ নেতাদের বাণী যেমন ছাপা হতো, তেমনি থাকত বরেণ্য সাংবাদিকদের কলাম। তাঁরা তুলে ধরতেন সাধারণ মানুষের সুখ-দুঃখ, আশা-আকাঙ্ক্ষার কথা। কখনও বা তীক্ষ্ণ সমালোচনায় বিদ্ধ করতেন শাসককে।
সাতের দশকের মাঝামাঝি ঘরে এল টিভি। দূরদর্শনেও রোজ কয়েকবার খবর পড়া হতো। কিন্তু সে তো সরকার নিয়ন্ত্রিত চ্যানেল। যে কোনও বিষয়ে সরকারি বক্তব্যের বাইরে যাওয়ার ক্ষমতা নেই তার। ফলে খবরে তেমন তেজও নেই। মানুষের মধ্যে তেমন জনপ্রিয় হয়নি দূরদর্শনের খবর।
সর্বভারতীয় স্তরে বেসরকারি অডিও ভিস্যুয়াল মিডিয়ার জয়যাত্রা শুরু আটের দশকে। কলকাতার দূরদর্শনে স্লট ভাড়া করে বেসরকারি অডিও ভিস্যুয়াল খবর এসে পড়ল নয়ের দশকের শেষাশেষি। সে একেবারে হইহই ব্যাপার। লোকে এতদিন কাগজে খবর পড়ত, এবার খবর দেখছে।
একুশ শতকের প্রথম ১০ বছরে ফুলেফেঁপে উঠল অডিও ভিস্যুয়াল। ২৪ ঘণ্টা ধরে খবর দেখাতে লাগল কয়েকটি চ্যানেল। এরই মধ্যে নিঃশব্দে হাজির হল সোশ্যাল মিডিয়া। প্রথম প্রথম মানুষ খুব ব্যক্তিগত খবর লেনদেন করত তার মাধ্যমে। তাতে অনেক পুরনো বন্ধুর সঙ্গে ফের যোগাযোগ হতে লাগল। তখনকার দিনে ডেস্কটপ কম্পিউটারে অথবা ল্যাপটপে খোলা যেত ফেসবুক, ট্যুইটার।
তারপর স্মার্টফোন সস্তা হয়ে গেল। মোবাইলে ইন্টারনেটও পাওয়া যেতে লাগল নামমাত্র খরচে। এর সঙ্গে তাল মিলিয়ে বদলে গেল সোশ্যাল মিডিয়ার ভূমিকা। সোশ্যাল মিডিয়া এখন মোবাইলের পর্দায়। অফিসে কাজের ফাঁকে কিংবা বাসে ও ট্রেনে একটু সুযোগ পেলেই বাটন টিপে দেখে নেওয়া যায় কে কী পোস্ট করেছে।
ক্রমে ফেসবুক, ট্যুইটার ও হোয়াটসঅ্যাপ হয়ে উঠল বৃহত্তর জগতের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যম। নানা সামাজিক ও রাজনৈতিক খবরাখবর চালাচালি হতে লাগল তার মাধ্যমে। জনমত গঠন করা, প্রতিবাদ সংগঠিত করার অন্যতম হাতিয়ার হয়ে উঠল সোশ্যাল মিডিয়া।
কিন্তু তার একটা বিপদের দিক তো আছেই।
সংবাদপত্রে বা টিভি চ্যানেলে একটা ছাঁকনি থাকে। সেখানে যে কোনও খবর আসা মাত্রই প্রকাশিত বা সম্প্রচারিত হতে পারে না। সম্পাদকরা আগে খতিয়ে দেখেন, খবরের বিশ্বাসযোগ্যতা কতদূর। তারপর ভেবে দেখেন, খবরটি মানুষের মধ্যে গেলে অশান্তি বা দাঙ্গাহাঙ্গামা সৃষ্টি হবে না তো! এর যে ব্যতিক্রম হয় না তা নয়। কিন্তু একটা দূর পর্যন্ত দায়িত্ববোধ আশা করাই যায় খবরের কাগজ কিংবা টিভি চ্যানেলের কাছে।
সোশ্যাল মিডিয়ায় এই ছাঁকনিটাই নেই। তার মাধ্যমে যে কোনও গুজবকে খবর নাম দিয়ে হাজার হাজার মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া যায় খুব সহজে। ভোটের আগে এমন ‘ফেক নিউজ’ ছড়ানোর উদাহরণ আছে বিস্তর।
ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামায় আত্মঘাতী বিস্ফোরণে চল্লিশ জনের বেশি সিআরপিএফ জওয়ান নিহত হন। তার দু’সপ্তাহ বাদে ফেসবুকে একটি অডিও ক্লিপ ছড়াতে থাকে। যাতে নাকি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং ও এক মহিলার কণ্ঠস্বর শোনা গিয়েছে। তাঁরা আলোচনা করছেন, ভোটের আগে পুলওয়ামাকাণ্ডকে ছুতো করে একটা যুদ্ধ বাধাতেই হবে। একদিনের মাথায় ফেসবুক জাল অডিও ক্লিপটি চিহ্নিত করে। তাকে ফেসবুকের পাতা থেকে মুছেও ফেলা হয়। কিন্তু তার মধ্যে ২৫ লক্ষ মানুষ ওই অডিও শুনে ফেলেছেন। শেয়ারও করেছেন দেড় লক্ষ মানুষ।
পুলওয়ামার ঘটনার জের চলেছে বেশ কয়েকদিন ধরে। জঙ্গিহানার কিছুদিন পরে পাকিস্তানের বালাকোটে জয়েশ-ই-মহম্মদের প্রশিক্ষণ শিবিরে বোমা ফেলে আসে ভারতের বায়ু সেনা। পাকিস্তানের বিমান ভারতের আকাশসীমা লঙ্ঘন করে ঢুকতে চেষ্টা করে। সেই বিমানগুলি তাড়াতে গিয়ে পাকিস্তানে ঢুকে পড়েন ভারতের মিগ-২১ বিমানের চালক অভিনন্দন ভর্তমান। তাঁর প্লেন পাকিস্তানের গোলায় ধ্বংস হয়। তিনি বন্দি হন। আবার চাপের মুখে তাঁকে ছেড়েও দিতে বাধ্য হয় পাকিস্তান।
সীমান্তে এইরকম উত্তেজনার সময় যেভাবে সোশ্যাল মিডিয়ায় বিদ্বেষমূলক প্রচার চালানো হয়েছে, তার তুলনা নেই। প্রায় প্রত্যেকের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে রোজ অন্তত কয়েকশো করে ভুলভাল খবর ও ভিডিও ক্লিপ ঢুকেছে।
ফেসবুকের মাধ্যমে ছড়ানো খবর কি সত্যিই বিশ্বাস করে সাধারণ মানুষ?
এই প্রশ্নের জবাব পেতে কিছুদিন আগে সমীক্ষা করেছিল দুটি সংস্থা। একটির নাম সোশ্যাল মিডিয়া ম্যাটারস, অপরটি দিল্লি ইনস্টিটিউট অব গভর্ন্যান্স পলিসিস অ্যান্ড পলিটিক্স। সমীক্ষার নাম, ডু নট বি এ ফুল।
সমীক্ষকরা যাঁদের প্রশ্ন করেছিলেন, তাঁদের ৯৬ শতাংশ উত্তর দিয়েছেন, তাঁরা হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে মিথ্যা খবর পেয়ে থাকেন। ৫৩ শতাংশ জানিয়েছেন, তাঁদের কাছে এবারের লোকসভা নির্বাচন নিয়ে ভুয়ো খবর এসেছে।
৬২ শতাংশ মানুষ বিশ্বাস করেন, ভুয়ো খবর ভোটারদের প্রভাবিত করতে পারে। ৪১ শতাংশ জানিয়েছেন, হোয়াটসঅ্যাপের খবরে তাঁদের বিশ্বাস নেই।
হোয়াটসঅ্যাপের খবরে বিশ্বাস আছে, এমন মানুষের সংখ্যাও নেহাত কম নয়। তাদের দিয়েই কোনও অশুভ শক্তি ঘটিয়ে দিতে পারে নানা অনর্থ। গত কয়েক বছরে দেশের নানা প্রান্তে গণপিটুনির শিকার হয়েছেন বহু নিরীহ মানুষ। অনেক ক্ষেত্রে দেখা গিয়েছে, গণপিটুনির আগে গুজব ছড়ানোর জন্য সোশ্যাল মিডিয়াকে ব্যবহার করা হয়েছিল।
নির্বাচন কমিশন ভোটের আগে বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া কোম্পানির প্রতিনিধিদের ডেকে ভালো করে সমঝে দিয়েছে, আদর্শ আচরণবিধি মেনে চলতে হবে তাদেরও। ফেসবুক ও ট্যুইটার জানিয়ে দিয়েছে, জাল খবরের বাড়বাড়ন্ত ঠেকাতে কয়েকটি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। হোয়াটসঅ্যাপ জানিয়েছে, ভুয়ো খবর চিহ্নিত করতে তারা কাজে লাগাবে আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স।
এইসব পদ্ধতিতে সোশ্যাল মিডিয়ায় গুজবের রমরমা ঠেকানো যাবে কি না সন্দেহ। কেননা, এক্ষেত্রে কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে অনেকের কাছে, খবর ছড়িয়ে দেওয়া যায়। কেউ ভুয়ো খবর, উস্কানিমূলক অডিও, ভিডিও ক্লিপ ছড়াচ্ছে বলে টের পাওয়ার আগেই তা হাজার হাজার মানুষের মোবাইলে পৌঁছে যেতে পারে।
এক্ষেত্রে উপায়?
মানুষের সচেতনতা বৃদ্ধি না পেলে আর কোনও উপায় নেই। সোশ্যাল মিডিয়া এমনই এক মাধ্যম, যাকে আইন করে পুরোপুরি ঠেকানো যায় না। মানুষ যদি ফেক নিউজ প্রত্যাখ্যান করে, তবেই তা ছড়ানো বন্ধ হবে।
গণমাধ্যমের সামনে নানা বিপদ আগেও এসেছে। স্বৈরাচারী শাসক কঠোর সেন্সর ব্যবস্থা চালু করে সরকারের সমালোচনা ছাপা বন্ধ করতে চেয়েছে। অপছন্দের সংবাদপত্রের দপ্তরে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ করে দিয়েছে। সাংবাদিকরা বহু নির্যাতনের শিকার হয়েছেন।
সোশ্যাল মিডিয়া থেকে আর একরকমের বিপদ ঘনিয়ে আসছে। মানুষে মানুষে বিদ্বেষ প্রচার করা যাঁদের কাজ, তাঁরা ওই প্ল্যাটফর্মগুলি কাজে লাগাচ্ছে ব্যাপকভাবে। সামাজিক স্থিতিশীলতা, সহিষ্ণুতার বাতাবরণ নষ্ট করার জন্য চেষ্টা চলছে ক্রমাগত।
অতীতে নানা বিপদের মোকাবিলা করে জয়ী হয়েছে মানুষের শুভবুদ্ধি। গণতন্ত্র, সহনশীলতা ও সংবাদমাধ্যমের স্বাধীন চরিত্র রক্ষা পেয়েছে।
ভারতীয় নাগরিকদের গণতান্ত্রিক চেতনা এই বিদ্বেষ প্রচারকেও পরাস্ত করতে পারবে কি?
এই প্রশ্নের জবাব মিলবে ২৩ মে। যাঁরা মানুষে মানুষে ঘৃণা প্রচারে সবচেয়ে সক্রিয় ছিল, তাঁরা ভোটে সুবিধা করতে পারল কি না দেখতে হবে। যদি না পারে, তাহলে আমরা ধরে নেব, সোশ্যাল মিডিয়াকে খারাপ কাজে লাগানোর চেষ্টা অনেকাংশে ব্যর্থ।
23rd  April, 2019
 দেশ চেয়েছে একজন শক্তিশালী নেতা
আর রাজ্যের দাবি গণতান্ত্রিক পরিসর
বিশ্বনাথ চক্রবর্তী

 দেশের মানুষ শক্তিশালী নেতার পক্ষে স্পষ্ট রায় জানিয়েছেন। শত বিভাজিত বিরোধী শিবির অপেক্ষা একক নেতার প্রতি সাধারণ মানুষ যে ভরসা করেন আরও একবার বিজেপির পক্ষে স্পষ্ট সংখ্যাগরিষ্ঠতা থেকে তা প্রমাণিত হল।
বিশদ

মোদির প্রত্যাবর্তন
 শান্তনু দত্তগুপ্ত

ঘড়ি ধরে ঘুম ভেঙেছিল ঠিক সকাল ৫টায়। প্রথমে নিয়মমাফিক যোগব্যায়াম, তারপর খবরে চোখ রাখা। নাঃ, সব শান্তিতেই আছে... নিশ্চিন্ত মনে ব্রেকফাস্ট নিয়ে বসলেন মুখ্যমন্ত্রী। সাড়ে ৮টা নাগাদ খবর আসা শুরু হল... কিছু একটা হয়েছে গোধরায়... কয়েকজন মারা গিয়েছে। সংখ্যাটা বাড়তেও পারে... ট্রেনে কিছু... এখনও শিওর হওয়া যাচ্ছে না। সেদিন আবার বিধানসভায় বাজেট পেশ।  
বিশদ

24th  May, 2019
সাবধান! গ্রাফিতি নিয়ে ব্যাঙ্কসি এবার ভারতেও
মৃণালকান্তি দাস

কোনও রাজা নয়। রাজার মূর্তিও নয়। দুই নেতার টানাটানিতে দ্বিখণ্ডিত ভারত! এটাই ছিল মুম্বইয়ের রাজপথের পাশে কোনও এক দেওয়ালে আঁকা গ্রাফিতি। দড়ি টানাটানি করছেন যাঁরা, তাঁদের একজন ‘নাগরিক’ পোশাকে সজ্জিত কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। অন্যজনের পরনে সামরিক উর্দি। তিনি, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। কে এঁকেছেন, জানা নেই।
বিশদ

23rd  May, 2019
ভোটফল ২০১৯: ভালো মন্দ যা-ই ঘটুক উৎসবের মেজাজটি যেন বজায় থাকে
মেরুনীল দাশগুপ্ত

আজ সেই বহু প্রতীক্ষিত বৃহস্পতিবার, ২৩ মে। জল্পনা-কল্পনা, আন্দাজ-অনুমানের যাবতীয় কুহেলিকা সরিয়ে আজ প্রকাশ পাবে ২০১৯ লোকসভার চূড়ান্ত চিত্র। দেশজনতা আগামী পাঁচ বছরের জন্য কার হাতে পৃথিবীর বৃহত্তম গণতন্ত্র এই ভারতের শাসনভার তুলে দিলেন— জানা যাবে আজ।
বিশদ

23rd  May, 2019
অর্ধেক বুথে ভিভিপ্যাট গণনার দাবি এক মস্ত
চ্যালেঞ্জ, ব্যালটের যুগেই ফেরার তোড়জোড়
বিশ্বনাথ চক্রবর্তী

পৃথিবীর বৃহত্তম গণতন্ত্রের নির্বাচনী রাজসূয় যজ্ঞের চূড়ান্ত পর্বে ভোট গণনা ও ফলাফলের দিকে তাকিয়ে রয়েছে সমগ্র ভারত তো বটেই, সারা পৃথিবী। গত কয়েক মাস ধরে চলা রাজনীতির ঘাত-প্রতিঘাত, চাপান-উতোর, দাবি, পাল্টা দাবির সত্যতা উঠে আসবে গণনার মধ্য দিয়ে।
বিশদ

22nd  May, 2019
পশ্চিমবঙ্গের ভোট বিশ্লেষণ
শুভময় মৈত্র

 এ লেখা যখন আপনারা পড়ছেন, ততক্ষণে বুথফেরত সমীক্ষা আপনাদের হাতে। কিন্তু সমীক্ষা মানেই যে সেটা মিলবে এমনটা নয়। তার কারণ দুটো। এক হল সমস্ত সমীক্ষারই সফল হওয়ার একটা সম্ভাবনা থাকে। ঘুরিয়ে বললে সম্ভাবনা থাকে ব্যর্থ হওয়ারও।
বিশদ

21st  May, 2019
ভোট ও বুথ-ফেরত সমীক্ষার হাল-হকিকত
অতনু বিশ্বাস

ছ’সপ্তাহ-ব্যাপী লোকসভা নির্বাচন। সাত দফায়। তারও প্রায় পাঁচ সপ্তাহ আগে থেকে প্রচার, ইত্যাদি। আর এখন এক ক্লান্তিকর সময়কালের পরিসমাপ্তিতে অপেক্ষ্যমান জনগণ। কলেজ ক্যাম্পাসের মধ্যে ঢুকে বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙার মত অনভিপ্রেত ঘটনার অভিঘাতে বিমূঢ়, রাজনৈতিক চাপান-উতোর আর হানাহানিতে দীর্ণ, এবং সুদীর্ঘ ভোটপর্বের শেষে গোটা ভারতবর্ষ এখন তাকিয়ে আছে বৃহস্পতিবারের দিকে।
বিশদ

21st  May, 2019
অবশেষে সমাপ্ত, তিক্ততাসহ
পি চিদম্বরম

বিজেপি প্রচারের গোড়ায় ‘গিয়ার’ বদলে নিয়েছিল। ‘আচ্ছে দিন’-এর কথা ভুলক্রমেও উচ্চারিত হয়নি। ২০১৪ সালের প্রতিশ্রুতিগুলি বিজেপির জন্য এক বিড়ম্বনায় পরিণত হয়েছিল। নরেন্দ্র মোদি ‘সার্জিকাল স্ট্রাইক’, পুলওয়ামা-বালাকোট এবং জাতীয়তাবাদের ছত্রছায়ায় আশ্রয় নিয়েছিলেন। ‘সার্জিকাল স্ট্রাইক’ হল স্রেফ একটা ক্রস-বর্ডার অ্যাকশন বা সীমান্ত টপকে হানা—যা দিয়ে পাকিস্তানকে কোনোরকমে নিরস্ত করা যায়নি।
বিশদ

20th  May, 2019
নতুন বন্ধুর খোঁজে কংগ্রেস ও বিজেপি
শুভা দত্ত

বিজেপি যদি ২২০ থেকে ২৩০-এর বেশি আসন না পায়, তখন কী হবে? এনডিএ-র শরিকরা একবাক্যে বলবে, মোদির ভুলভাল সিদ্ধান্তের জন্যই ভোটার বিমুখ হয়েছে, সুতরাং তাঁকে আর প্রধানমন্ত্রী করার দরকার নেই। আরএসএস অবশ্য তাঁকে সরাতে চাইবে না। এই অবস্থায় অমিত শাহরা ঝাঁপিয়ে পড়বেন যাতে আরও কয়েকটি দলকে তাঁদের সমর্থনে পাওয়া যায়। বিজেপি যদি ১৪০ থেকে ১৬০-এর মধ্যে আসন পায়? তাহলে নিশ্চিতভাবেই মোদির প্রধানমন্ত্রী হওয়ার সম্ভাবনা জলাঞ্জলি যাবে। যতই নতুন বন্ধু আসুক, দিল্লিতে সরকার গড়া কিছুতেই সম্ভব হবে না। বিজেপিকে বসতে হবে বিরোধী আসনে।
বিশদ

20th  May, 2019
শেষ দফার ভোটে শান্তি বজায় রাখাই
আজ কমিশনের সামনে বড় চ্যালেঞ্জ

শুভা দত্ত

দেখতে দেখতে সাত দফার লম্বা ভোটযুদ্ধ শেষ হয়ে এল। আজ সপ্তম, তথা শেষ দফা। তারপরই শুরু হয়ে যাবে লোকসভা মহাযুদ্ধের চূড়ান্ত ফলাফলের জন্য কাউন্টডাউন। রাজ্যের ৪২টি লোকসভা আসনের মধ্যে ৩৩টির ভোটগ্রহণ ইতিমধ্যেই সম্পন্ন হয়েছে। কলকাতা উত্তর, কলকাতা দক্ষিণ, যাদবপুর সমেত বাকি ন’টি আসনের ভাগ্য নির্ধারিত হবে আজ। 
বিশদ

19th  May, 2019
ভোট কেন দেশের
নামে হল না?
শান্তনু দত্তগুপ্ত

ভোটগ্রহণ কেন্দ্রের সামনে একটি প্লাইউডের কাটআউট। মাঝখানটা জানালার মতো কেটে জায়গা করা। সেলফি জোন বা সেলফি পয়েন্ট। অবশ্য সেটা নামেই। নিজে ছবি তুললে ইমপ্যাক্ট পড়বে না। বরং বিষয়টা এমন, ভোট দিয়ে বেরিয়ে ভোটার সেখানে দাঁড়াবেন... উল্টোদিক থেকে কেউ ছবি তুলবে।
বিশদ

18th  May, 2019
এবার ভোটে যে-কথা কেউ বলেনি
শুভা দত্ত

 ভোটপর্ব শেষ হয়ে এল। সামনের রবিবারেই ভোটগ্রহণ শেষ। প্রচারও শেষ হল। বৈশাখের দহন জ্বালা যত বাড়ছে, তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে রাজনীতির উত্তাপ। মারদাঙ্গা, ভাঙচুর, ব্যক্তিগত আক্রমণ, সবই চলছে। এবার একটা বড় ইস্যু দেশের সুরক্ষা। তার সঙ্গে দুর্নীতি, বেকারত্ব, চাষিদের দুর্দশা এসবও আছে। কিন্তু একটা ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে কেউ কথা বলেনি। বিষয়টি হল বায়ুদূষণ। বিশদ

17th  May, 2019
একনজরে
ভুবনেশ্বর, ২৪ মে (পিটিআই): পাঁচে পাঁচ। রেকর্ড গড়ে পরপর পাঁচবারের জন্য ওড়িশার ক্ষমতা নিজেদের দখলে রাখল বিজু জনতা দল (বিজেডি)। ১৪৭টি বিধানসভা আসনের মধ্যে ১১২টিতে ...

 বেজিং, ২৪ মে (পিটিআই): চীনের দক্ষিণপশ্চিম গুইঝৌউ প্রদেশে নৌকাডুবিতে ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া ওই ঘটনায় আরও আটজন নিখোঁজ। শুক্রবার সেদেশের সরকারি সংবাদসংস্থা জানিয়েছে, ২৯ জন যাত্রীকে নিয়ে বৃহস্পতিবার একটি নৌকা বেইপান নদীতে ডুবে যায়। ...

 দীপ্তিমান মুখোপাধ্যায়, হাওড়া: ব্যবধান মাত্র তিন বছরের। তার মধ্যেই হাওড়া সদর লোকসভার সাতটি বিধানসভা কেন্দ্রেই তৃণমূলের জয়ের মার্জিন অনেকখানি কমল। যদিও শতাংশের হারে তৃণমূলের ভোট না কমলেও সিপিএমের ভোট প্রায় সবটাই বিজেপির বাক্সে গিয়েছে। ...

 নয়াদিল্লি ও মুম্বই, ২৪ মে (পিটিআই): মোদি-ঝড়ে দ্বিতীয় দিনেও চাঙ্গা শেয়ার বাজার। শুক্রবার ৬২৩ পয়েন্ট বেড়ে ৩৯ হাজার ৪৩৪.৭২ পয়েন্টে পৌঁছল বম্বে শেয়ার বাজার সূচক সেনসেক্স। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

শারীরিক কারণে কর্মে বাধা দেখা দেবে। সন্তানরা আপনার কথা মেনে না চলায় মন ভারাক্রান্ত হবে। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

 বিশ্ব থাইরয়েড দিবস
১৮৮৬: বিপ্লবী রাসবিহারী বসুর জন্ম
১৮৯৯: বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের জন্ম
১৯০৬ - বিখ্যাত ভাস্কর রামকিঙ্কর বেইজের জন্ম
১৯২৪ - শিক্ষাবিদ, কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি ও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় এর ভাইস-চ্যান্সেলর আশুতোষ মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যু
১৯৭২: পরিচালক করণ জোহরের জন্ম
২০০৫: অভিনেতা সুনীল দত্তের মৃত্যু
২০০৯: পশ্চিমবঙ্গের কয়েকটি জেলায় আইলা আঘাত করল
২০১৮ - শান্তি নিকেতনে বাংলাদেশ ভবনের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদী

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৮.৬৫ টাকা ৭০.৩৪ টাকা
পাউন্ড ৮৬.২৯ টাকা ৮৯.৫১ টাকা
ইউরো ৭৬.০৩ টাকা ৭৮.৯৬ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩২,১৪৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩০,৫০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩০,৯৬০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৬,৪৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৬,৫৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ২৫ মে ২০১৯, শনিবার, ষষ্ঠী ৩/৪১ দিবা ৬/২৬। শ্রবণা ১৩/১৪ দিবা ১০/১৫। সূ উ ৪/৫৭/০, অ ৬/৯/৪৮, অমৃতযোগ দিবা ৩/৩১ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ৬/৫২ গতে ৭/৩৫ মধ্যে পুনঃ ১১/১২ গতে ১/২১ মধ্যে পুনঃ ২/৪৭ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ৬/৩৬ মধ্যে পুনঃ ১/১২ গতে ২/৫১ মধ্যে পুনঃ ৪/৩১ গতে অস্তাবধি, কালরাত্রি ৭/৩০ মধ্যে পুনঃ ৩/৩৬ গতে উদয়াবধি।
১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ২৫ মে ২০১৯, শনিবার, ষষ্ঠী ২/১০/২৫ দিবা ৫/৪৮/৪৮। শ্রবণানক্ষত্র ১২/৪০/১৪ দিবা ১০/০/৪৪, সূ উ ১/২৯/৫, অ ৬/১১/৫৫, অমৃতযোগ দিবা ৩/৩৬ গতে ৬/১২ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/০ গতে ৭/৪২ মধ্যে ও ১১/১৬ গতে ১/২২ মধ্যে ও ২/৪৮ গতে ৪/৫৬ মধ্যে, বারবেলা ১/১৩/৪১ গতে ২/৫৩/৬ মধ্যে, কালবেলা ৬/৩৬/৩ মধ্যে ও ৪/৩২/৩১ গতে ৬/১১/৫৫ মধ্যে, কালরাত্রি ৭/৩২/৩০ মধ্যে ও ৩/৩৬/২ গতে ৪/৫৬/৩১ মধ্যে।
১৯ রমজান

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
সরকার গঠনের দাবি জানাতে রাষ্ট্রপতি ভবনে নরেন্দ্র মোদি এবং অমিত শাহ 

09:00:47 PM

ব্যাপক ঝড়-বৃষ্টির জেরে শিয়ালদহ, হাওড়া শাখায় ব্যাহত ট্রেন চলাচল 

08:36:42 PM

মালদহে তৃণমূল জেলা সভাপতি মৌসম বেনজির নুর 

05:55:00 PM

ভোটে ম্যান অব দ্য ম্যাচ নির্বাচন কমিশন: মমতা 

05:51:40 PM

নিজের নাক কেটে পরের যাত্রা ভঙ্গ করেছে সিপিএম: মমতা 

05:47:13 PM

আগামী ৩১ তারিখ ফের বৈঠকে বসব: মমতা 

05:42:00 PM