Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

ভোট কেন দেশের
নামে হল না?
শান্তনু দত্তগুপ্ত

ভোটগ্রহণ কেন্দ্রের সামনে একটি প্লাইউডের কাটআউট। মাঝখানটা জানালার মতো কেটে জায়গা করা। সেলফি জোন বা সেলফি পয়েন্ট। অবশ্য সেটা নামেই। নিজে ছবি তুললে ইমপ্যাক্ট পড়বে না। বরং বিষয়টা এমন, ভোট দিয়ে বেরিয়ে ভোটার সেখানে দাঁড়াবেন... উল্টোদিক থেকে কেউ ছবি তুলবে। আর সামনে কাটআউটের উপর লেখা থাকবে ‘ভোট ফর নেশন’, ‘ভোট দিয়ে আমি গর্বিত’... এমন আরও অনেক কিছু। উদ্যোগটা নির্বাচন কমিশনের। ভারত ইদানীং ভীষণভাবে সেলফি পাগল হয়েছে। সেলফি বা ছবি তুলে সোশ্যাল মিডিয়ায় তা আপলোড করার মধ্যে এক অপার্থিব সুখের হদিশ পেয়েছে আপামর ভারতবাসী। শুধু আট থেকে আঠারো নয়, তিন কুড়ি বয়স পেরিয়েও এই প্যাশনে মেতেছেন বহু মানুষ। নির্বাচন কমিশনের ভাবনাতেই ছিল, যদি এমন কিছু করা যায়, তাহলে নিশ্চয়ই ভোটদানের অনুপাত বাড়বে! অন্তত স্টেটাস আপডেট করার জন্য মানুষ, বিশেষ করে নতুন ভোটাররা বুথমুখো হবেন। সাধুবাদ দেওয়ার মতো উদ্যোগ। ছ’দফার ভোট শেষে ভালোরকম সাড়া কিন্তু ফেলে দিয়েছে এই ভোটার সেলফি পয়েন্ট। একটা কিন্তু এরপরও তুলতে হচ্ছে... ওই বড় বড় হরফে ‘ভোট ফর নেশন’ কথাটা নিয়েই। সত্যিই কি ভারতের নামে, দেশের নামে ভোট হচ্ছে?
উত্তরে ‘না’য়ের পাল্লাই বেশি ভারী। কেন? ছ’-আটমাস আগে যখন ভোটের উনুনে আঁচ দেওয়া শুরু হচ্ছিল, তখন বিষয়টা ওই ‘আচ্ছে দিন’ বা ‘রাফাল’ বিতর্কেই সীমাবদ্ধ ছিল। নরেন্দ্র মোদি-রাহুল গান্ধীর তীব্র বাদানুবাদ, সংসদে আলিঙ্গনপর্ব এবং চৌকিদার। অদ্ভুত ব্যাপার, সময় যত গড়িয়েছে, ভোট চাওয়া-পাওয়ার লড়াইয়ের বিশ্রীভাবে মেরুকরণ ঘটেছে। ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে যেভাবে বিভাজনের রাজনীতি প্রবেশ করেছে, তা আগে কখনও এদেশে হয়েছে বলে মনে হয় না। অর্থনৈতিক বিভাজন এদেশের জন্মলগ্ন থেকেই রয়েছে। তাতে নতুন কিছু নেই। বরং ধনী-দরিদ্র নির্বিশেষে ওই একটা দিনই ভারতবাসী ইভিএমে সাম্যবাদ খুঁজে পায়। মুকেশ আম্বানির একটি ভোটের যা দাম, বেলপাহাড়ীর এক সাধারণ দিনমজুরের ভোটও একই মূল্যের। অর্থনীতি দিয়ে নতুন করে এদেশে বিভাজনের ঘুঁটি খেলা যাবে না। কাজেই সবচেয়ে কার্যকর এবং জবরদস্ত অস্ত্র প্রয়োগ... ধর্ম। প্রশ্ন উঠতেই পারে বাবরি সৌধ ধ্বংস এবং লালকৃষ্ণ আদবানির রথযাত্রা কি ভোটে ধর্মীয় মেরুকরণের পথ দেখায়নি? নিশ্চয়ই দেখিয়েছে, কিন্তু তার জন্য গোটা দেশ ভোটযন্ত্রের সামনে এসে ধর্মের নামে ভাগ হয়ে যাওয়ার প্রবণতা দেখায়নি। সেটা হয়েছিল ভারতের একটা অংশে। কিন্তু এই নির্বাচন দেখিয়ে দিচ্ছে, ভোটারের পদবি জানলে সেই ভোট কোথায় পড়বে, তা আন্দাজ করাটা শক্ত নয়। এ অবশ্যই ভয়ানক ব্যাপার। আমার ধর্ম দেখে যদি বিচার হয়ে যায় আমি কোন দলের সমর্থক, গণতন্ত্রে তার থেকে বেশি লজ্জার কিছু হয় না।
এরপর আসা যাক সামাজিক মেরুকরণে। উত্তর ভারতে যার প্রকোপ প্রত্যেক ভোটেই থাকে, যদিও এবার একটু বেশির দিকে। বিশেষত উত্তরপ্রদেশে। কোনও উচ্চবর্ণের ভোটারকে যদি জিজ্ঞেস করা হয়, কাকে ভোট দেবেন, অধিকাংশ ক্ষেত্রেই উত্তর আসছে ‘কেন! বিজেপিকে!’ আবার কোনও পিছড়ে বর্গ বা সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষকে একই প্রশ্ন করলে নির্দ্বিধায় সমর্থন করছেন অখিলেশ-মায়াবতীর জোটকে। পাশাপাশি সংখ্যালঘু ভোটারদের একটা বড় অংশ কংগ্রেসের নামও করছেন। এবার আসা যাক ‘কেন ভোট দেবেন’ প্রশ্নে। বিজেপির সমর্থক একাংশ বলছে, ‘বিজেপি সরকার আমাদের বিদ্যুৎ দিয়েছে, রাস্তা করেছে, ঘরে ঘরে শৌচাগার বানিয়েছে... এই সরকারকেই তো ভোট দেব!’ আবার উত্তরপ্রদেশেরই অন্য অংশে শুধু জাতপাতের ভিন্নতায় এই পরিষেবার অনেক কিছুই পৌঁছয়নি। সেখানকার ভোটাররা তখন অবশ্যই প্রশ্ন তুলবেন, ‘এই সরকারকে ভোট দিয়ে আমাদের কী লাভ হবে?’
তাহলে গ্রাউন্ড রিয়েলিটিটা কী? এর উত্তর পরিষ্কারভাবে মেলা মুশকিল। এখনও... কাল শেষ দফার ভোটের দিনেও। ‘বিকাশ’ হয়েছে। কিন্তু সবার হয়নি। ‘আচ্ছে দিন’ আসা নিয়ে তো ধনী ব্যবসায়ী ছাড়া আর কেউ খুব একটা নিশ্চিত নন (তাঁরাও আবার মুখে বলছেন না)। অসমে নাগরিকপঞ্জি হল। তাতে বহু নাগরিক হঠাৎ ‘বিদেশি’ হয়ে গেলেন। তাঁদের সর্বনাশ। আবার সেই রাজ্যেরই কিছু মানুষের পৌষ মাস! ওই একই রাজ্যের ভিন্ন প্রান্তে আবার এনআরসি নিয়ে হেলদোল নেই। সেখানে চিন্তার ভাঁজ ফেলেছে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল। একটা কিছু তো থাকবে, যা হতে পারে ভোটের ইউনিভার্সাল ইস্যু! রাজনৈতিক দল যদি তার ভোটব্যাঙ্কের কথা ভেবে উন্নয়নের বরাত দেয়, প্রয়োজন অনুযায়ী জাত-ধর্ম দেখে ভোটার কার্ড বানায়... তাহলে বিভাজন আটকানো কি সম্ভব?
আর হল ব্যক্তি মেরুকরণ। মোদি ঝড় গত লোকসভা ভোটেও ছিল। কিন্তু বিজেপির মতো একটা পার্টি এভাবে মোদিত্ব নির্ভর হয়ে যায়নি। গেরুয়া শিবিরের প্রচারের অভিমুখই এবার একটা, মোদি সরকার (বিজেপি সরকার নয়)! অর্থাৎ একটা রাজনৈতিক দলকে দেখে ভোট দেওয়ার পাঠ চুকল। আঞ্চলিক দলের ক্ষেত্রে এই প্রবণতাটা নতুন নয়। বরং চিরকালের। জয়ললিতা, করুণানিধির প্রয়াণের পরও যে ধারা বজায় রেখে চলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, মায়াবতীরা। এবং এবারের মোদি-বিরোধী মহাজোটের ক্ষেত্রেও কিন্তু বিষয়টা ধীরে ধীরে সেই ব্যক্তিকেন্দ্রিকই হয়ে পড়ছে। কারণ, বিজেপিকে আক্রমণের ব্যাটনটা পুরোপুরি তুলে নিয়েছেন মমতা। রাহুল গান্ধী, অখিলেশ যাদব, মায়াবতী, তেজস্বী বা স্ট্যালিন... আগে কোনও লোকসভা ভোটে বিরোধী রাজনীতি কিন্তু এভাবে মমতাময়ী হয়ে ওঠেনি। আর তার প্রমাণ রাখছেন মোদি স্বয়ং। বারবার বাংলায় আসছেন, এবং তাঁর টার্গেট শুধুই তৃণমূল নেত্রী। আসলে বিজেপি বুঝে গিয়েছে, উত্তরপ্রদেশ থেকে খুব বেশি কিছু এবার পাওয়ার নেই। যতটুকু ঝুলিতে আসবে তাতেই আনন্দ করতে হবে। আর তা যদি ৩০-৩৫টা আসন হয়, তার জন্য অনেকটা ধন্যবাদ প্রাপ্য থাকবে প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর। সোনিয়া কন্যা বহু প্রতীক্ষর পর রাজনীতিতে। এবং তাঁর আগমনেই কংগ্রেসের কর্মী-সমর্থক মহল মোটামুটি চাঙ্গা। উত্তরপ্রদেশে কংগ্রেসের নিজস্ব যে ভোটব্যাঙ্ক আছে, একপ্রকার নিশ্চিত হয়ে বলা যায়, প্রিয়াঙ্কা তাতে ফাটল ধরতে দেবেন না। অর্থাৎ, অখিলেশ-মায়াবতী সব নিন্দুকের মুখে ছাই দিয়ে জোট করলেও এই একটা জায়গাতেই ফাঁক থেকে যাবে। বিজেপি ধর্ম এবং হিন্দুত্বের নামে ভোট চেয়ে উত্তরপ্রদেশের ভোটারদের একটা অংশ ধরে রেখে দেবে। বাকি অংশ একত্র হলে (অর্থাৎ কংগ্রেস+সমাজবাদী পার্টি+বহুজন সমাজ পার্টি), তাহলে নিশ্চিতভাবে মোদির বিজেপিকে ধুলোয় মিশিয়ে দেওয়া যেত। কিন্তু তা সম্ভব হচ্ছে না। ভোটকাটুয়া হয়ে প্রিয়াঙ্কা মোদিরই সুবিধা করে দেবেন। এভাবে যতটুকু সম্ভব উত্তরপ্রদেশ থেকে আদায় করে বাকি রসদের জন্য পূর্ব ও উত্তর-পূর্ব ভারতের দিকে তাকিয়েছেন মোদি। এখানে তাঁর সবচেয়ে বড় অন্তরায়ের নাম মমতা। মোদির সাফল্য, মহাজোটের প্রচারে মমতাকে বাংলার বাইরে যাওয়া থেকে আটকে দিতে পেরেছেন তিনি। আর তৃণমূল নেত্রীর সাফল্য, বিরোধী রাজনীতির অভিমুখটাকেই তিনি ঘুরিয়ে দিতে পেরেছেন নিজের দিকে। ২৩ তারিখ যদি কেন্দ্রে সরকার গড়ার ক্ষেত্রে বিরোধী মহাজোটের পথ প্রশস্ত হয়, মমতাই কিন্তু প্রধানমন্ত্রী হওয়ার দৌড়ে অনেকটা এগিয়ে থাকবেন। রাহুল গান্ধী কংগ্রেসের সভাপতি হওয়ার এতদিন পরও সেই গ্রহণযোগ্যতায় জায়গায় পৌঁছতে পারেননি। ভোটাররা কতটা তাঁকে প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য নম্বর দেবে, তা নিয়ে তর্ক হতে পারে, বিরোধী তথা আঞ্চলিক দলগুলি যে মোটেই একবাক্যে রাহুলকে মেনে নেবে না, সে ব্যাপারে সন্দেহ নেই। তবে হ্যাঁ, প্রথম ইউপিএ সরকারের জমানায় সোনিয়া গান্ধী যেভাবে গোটা দুনিয়াকে হতচকিত করে সবচেয়ে লোভনীয় পদটি ছেড়ে দিয়েছিলেন, ঠিক একইভাবে যদি এবার তিনি বিরোধী মহাজোটের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেন, তাহলে পুরো সমীকরণটাই বদলে যেতে পারে। তাঁর প্রচণ্ড অসুস্থতা সত্ত্বেও। ইতিমধ্যেই ভোটের ফলের দিন মহাজোটের বৈঠক আয়োজনের সব দায়িত্ব তিনি কাঁধে তুলে নিয়েছেন। আর সোনিয়া প্রধানমন্ত্রিত্বের দৌড়ে চলে এলে সেটা সত্যিই হবে আর একটা মাস্টারস্ট্রোক। সেই বহুদলীয় সরকার তখন টেকসইও হবে।
সে অবশ্য পরের ব্যাপার। আপাতত প্রতিশ্রুতির প্রচার থেকে মুখ ফিরিয়েছে সব শিবিরই। গত কয়েক দফার ভোটের প্রচার শুধুই আক্রমণ ও প্রতি আক্রমণে সীমাবদ্ধ। তাই মোদির প্রচারে না আছে কর্মসংস্থানের কথা, না প্রত্যেকের অ্যাকাউন্টে ১৫ লক্ষ টাকা করে দেওয়ার বার্তা। কৃষকদের দানছত্র দেওয়ার প্রচার অনেক দলের মুখেই শোনা যাচ্ছে। তাতেও কি চাষিদের আত্মহত্যা ঠেকানো গিয়েছে? গত বছর ৬ মার্চ থেকে ১২ মার্চ নাসিক থেকে মুম্বই স্তব্ধ হয়ে গিয়েছিল কৃষক লং মার্চে। প্রায় ৫০ হাজার মানুষের পদযাত্রা। দাবি, নিঃশর্ত কৃষিঋণ মকুব। বাণিজ্যনগরীর রাজপথ রক্তিম বর্ণ ধারণ করেছিল বাম পতাকায়। ফল? ছয় সদস্যের কমিটি গঠিত। তারা ঠিক করবে, বিষয়টি নিয়ে কী করা যায়। সরকারি ভাষায়, প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গিয়েছে। ঋণ মকুব এবার সময়ের অপেক্ষা...। সত্যি কি তাই? ভোটের গুঁতো যে ভয়ানক! মহারাষ্ট্র সরকার তথা বিজেপি তখনই প্রমাদ গুনেছিল, সামনের বছর ভোট। কিছু তো একটা করতে হবে! কমিটি হল। পর্যালোচনা হল। ভোটও চলে এল। কিন্তু যে লোকসভা কেন্দ্র থেকে এই কৃষক লং মার্চের জন্ম, সেই দিন্দোরি আসনের ছবি তো এক বছরেও বদলায়নি! এখানে গ্রামে গ্রামে... ঘরে ঘরে এখনও পরিবারের লোকজন রাত জাগে বাবা বা স্বামীর পাহারায়। আত্মহত্যার আশঙ্কায়। কোথায় গেল বছরে দু’কোটি চাকরির প্রতিশ্রুতি? সবই ফিকে... আর তাই অস্ত্র তো করতেই হবে মেরুকরণকে। সেটাই করছে কমবেশি সব দল। পকে কী উন্নয়ন করেছে, তা আজ আর বিবেচ্য নয়। বরং কার কী দুর্নীতি, সেটাই প্রচারের দাবার ছক। যেখানে ধর্ম যদি রাজা হয়, মন্ত্রী তাহলে পিছড়ে বর্গ। ঘুঁটি সাজানো চলছে। নিরন্তর...। ভোটটা যদি সত্যিই দেশের নামে হতো!
18th  May, 2019
নিস্তেজ অর্থনীতির সত্যটা সরকার ভুলে যাচ্ছে 
পি চিদম্বরম

রাষ্ট্রপতি ভবন হল সরকারের ক্ষমতার আসনের প্রতীক। এক কিলো মিটার ব্যাসার্ধের মধ্যে সংসদ ভবন, প্রধানমন্ত্রীর অফিস (পিএমও), নর্থ ব্লক ও সাউথ ব্লক—মানে স্বরাষ্ট্র, অর্থ, প্রতিরক্ষা ও বিদেশ-এর মতো উচ্চ মন্ত্রকগুলি রয়েছে।   বিশদ

সভাপতি পদে সোনিয়াজির প্রত্যাবর্তনে কংগ্রেস কি ছন্দ ফিরে পাবে
শুভা দত্ত

ছন্দ তো হারিয়েছে বহুদিন। ছন্দে ফেরার চেষ্টা—সেও শুরু হয়েছে বহুদিন। কিন্তু কিছুতেই যেন সেই পুরনো দমদার ছন্দে ফিরতে পারছে না জাতীয় কংগ্রেস! নেহরু-ইন্দিরার আমল থেকে গান্ধী পরিবারের ছত্রচ্ছায়ায় এবং নেতৃত্বে দলের যে অপ্রতিরোধ্য ছন্দ গোটা দেশকে কংগ্রেসি তেরঙ্গায় বেঁধে রেখেছিল, যে ছন্দ কংগ্রেস প্রতীক ইন্দিরার পাঞ্জার উপর বছরের পর বছর দেশের মানুষের আস্থা বিশ্বাস ও আবেগ ধরে রেখেছিল, জরুরি অবস্থা, নাসবন্দির মতো কাণ্ডের পরও যে ছন্দ ক্ষমতার কেন্দ্রে ফিরিয়ে এনেছিল কংগ্রেসকে, ইন্দিরা এবং ইন্ডিয়া হয়ে উঠেছিলেন সমার্থক—জাতীয় কংগ্রেসের সেই অমিত শক্তি রাজনৈতিক ছন্দ অনেক কাল আগেই ইতিহাসের পাতায় ঠাঁই নিয়েছে।
বিশদ

18th  August, 2019
ওয়াল স্ট্রিটের ‘নেকড়ে’-র গল্প!
মৃণালকান্তি দাস

ওয়াশিংটনের অপরিচিত কোনও এক পথে হাঁটতে হাঁটতে গল্পটা শুনিয়েছিলেন এমিলি ব্রাউন। গল্প বলতে, এক অপরাধীর ঘুরে দাঁড়ানোর কাহিনী। জর্ডন বেলফোর্টের গল্প। যিনি জীবনে অপরাধের নেশায় পড়ে সবকিছু হারিয়েছিলেন। কে এই জর্ডন বেলফোর্ট, জানেন? যাঁর জীবন কাহিনী শুনলে মনে হবে, এ এই মার্কিন মুলুকেই সম্ভব! বিশদ

17th  August, 2019
স্বাধীনতা ৭৩ এবং ভূস্বর্গের মুক্তি
মেরুনীল দাশগুপ্ত

গরিবি যতদিন না যাবে ততদিন এই উপত্যকায় শান্তি আসবে না। কারণ, কাশ্মীরি মানুষের গরিবিই ওদের একটা বড় হাতিয়ার। গরিব মানুষজনের অনেকেই ক’টা টাকার লোভে পড়ে সীমান্তর ওপার থেকে আসা লোকজনকে আশ্রয় দিয়ে, লুকিয়ে রেখে, খাবারদাবারের ব্যবস্থা করে ভ্যালির বিপদ বাড়িয়ে তুলছে।
বিশদ

15th  August, 2019
বনে থাকে বাঘ 
অতনু বিশ্বাস

ছেলেবেলায় ‘সহজ পাঠ’-এ পড়েছিলাম ‘বনে থাকে বাঘ’। যদিও এই পাঠটা যে খুব সহজ আর স্বাভাবিক নাও হতে পারে, অর্থাৎ বনে বাঘ নাও থাকতে পারে, সেটা বুঝতে বেশ বড় হতে হল। ছোটবেলায় অবশ্য মনে বদ্ধমূল ধারণা ছিল, বন-জঙ্গল গিজগিজ করে বাঘে। 
বিশদ

13th  August, 2019
রক্ষক আইন যেন ভক্ষক না হয়
শান্তনু দত্তগুপ্ত 

ভিক্টরি ম্যানসনে ঢুকলেন উইনস্টন স্মিথ। বহুতলে ঢুকেই নজরে আসবে দো’তলা সমান আখাম্বা ছবিটা। শুধু একটা মুখ। নীচে ক্যাপশন করা, বিগ ব্রাদার কিন্তু তোমাকে দেখছে। জর্জ অরওয়েলের কালজয়ী উপন্যাস ১৯৮৪-এর শুরুতেই উল্লেখ এই ছবির। আর এই নভেলের সারমর্মও লুকিয়ে এই ছবিতে—বিগ ব্রাদার দেখছে, তাই সাবধান। সাবধান হও সবাই... সরকারি কর্মচারী, ব্যবসায়ী, সাফাইকর্মী, বেসরকারি চাকুরে... মোদ্দা কথা নারী-পুরুষ নির্বিশেষে। সবসময় নজরদারি।  
বিশদ

13th  August, 2019
পুতিন কি পারবেন নতুন বিশ্বের নেতৃত্ব দিতে?
গৌরীশঙ্কর নাগ

 ১৯১৭ খ্রিস্টব্দে বা তার কিছু আগে থেকে লেনিন, ট্রটস্কি প্রমুখ নিবেদিত প্রাণ কমরেডের হাত ধরে সোভিয়েত সমাজতন্ত্র নামক যে মহীরুহটি ধীরে ধীরে গড়ে উঠেছিল তা গর্বাচেভ ক্ষমতাসীন হওয়ার পর কীভাবে তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়েছে—বিস্ময়ের সঙ্গে আমরা সেটা দেখেছি।
বিশদ

12th  August, 2019
স্টেট নয়, শুধুই রিয়াল এস্টেট
পি চিদম্বরম

 জম্মু ও কাশ্মীর নিয়ে প্রায়ই লিখি কিন্তু আজকেরটা অন্যরকম। জম্মু ও কাশ্মীর আর আগের জম্মু ও কাশ্মীর নেই। এটা আর রাজ্য নয়। এটাকে বিভক্ত করা হয়েছে। এখন দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল—লাদাখ এবং জম্মু ও কাশ্মীর। ভারতের সংবিধানে কোনও রাজ্যকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের স্তরে নামিয়ে আনার ঘটনা এর আগে ঘটেনি।
বিশদ

12th  August, 2019
রাহুল সরে দাঁড়াতেই কংগ্রেস এমন নেতৃত্বহীনতায় ভুগছে কেন?
শুভা দত্ত

 প্রশ্নটা আজ দেশের সর্বস্তরে। পথে-ঘাটে অফিসে আড্ডায় যেখানেই চলতি রাজনীতি নিয়ে তর্ক-বিতর্কের উদয় হচ্ছে সেখানেই প্রশ্নটা যেন অনিবার্যভাবে এসে পড়ছে! কংগ্রেসের হলটা কী! রাহুল গান্ধী না বলে দিতেই আর সভাপতি খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না কংগ্রেসে! গান্ধী ফ্যামিলি ছাড়া কংগ্রেস সভাপতি খুঁজে পাচ্ছে না— এ তো বড় অদ্ভুত ব্যাপার! কংগ্রেসের জন্মের পর থেকে গান্ধী ফ্যামিলির বাইরের দেশ রাজনীতির কত দিকপালই তো জাতীয় কংগ্রেসের সভাপতির আসন অলঙ্কৃত করেছেন—উমেশচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়, দাদাভাই নৌরজি, সুরেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায়, সুভাষচন্দ্র, অ্যানি বেসান্ত, চিত্তরঞ্জন, সরোজিনী নাইডু, বল্লভভাই প্যাটেল, কামরাজ, জগজীবন রাম—কত নাম বলব। নিশ্চয়ই এই তালিকায় নেহরু থেকে ইন্দিরা, রাজীব, সোনিয়া হয়ে রাহুল—গান্ধী পরিবারের সদস্যরাও ছিলেন।
বিশদ

11th  August, 2019
শুধু উন্নয়ন নয়, ভোটের জন্য চাই ভালো মাস্টার
তন্ময় মল্লিক

মোটা বেতন দিয়ে মাস্টার রাখলেই ছেলেমেয়ে মানুষ হয় না। তেমনটা হলে সব বড়লোকের ছেলেমেয়েই উচ্চশিক্ষিত হতো। কিন্তু, তা তো হয় না। ছাত্রছাত্রীর পড়াশোনায় আগ্রহ, মেধা যেমন থাকা দরকার, তেমনই নজরদারিটাও জরুরি। ফাঁকিবাজি থাকলেই ছাত্র হয় গাড্ডু খাবে, অথবা ‘বিবেচনায়’ পাশ।
বিশদ

10th  August, 2019
পঞ্চায়েত নির্বাচন, ৩৭০ কিংবা ৩৫এ
শুভময় মৈত্র

পশ্চিমবঙ্গ ২০১৮, আর ত্রিপুরা ২০১৯। পঞ্চায়েত ভোটে ফলাফল একইরকম। ঠিক কত আসন সেটা গোনার দরকার নেই। সহজ অঙ্কে বিষয়টা এরকম। ধরা যাক, মোট আসন ১০০, শাসক দল বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী ৭০টি আসনে। বাকি তিরিশের মধ্যে তীব্র লড়াইয়ের শেষে শাসক দল ২০, বিরোধীরা দশ। পাটিগণিতের অঙ্ক একেবারে মিলে গেল।
বিশদ

10th  August, 2019
কাশ্মীর: নতুন চ্যালেঞ্জ
সমৃদ্ধ দত্ত

 প্রকৃত চ্যালেঞ্জ সরকারের। কাশ্মীরকে আন্তরিকভাবে ভারতের অন্তঃস্থলে মিশিয়ে দেওয়ার কাজটিই কিন্তু হবে কাশ্মীরের নয়া ইতিহাস রচনা। সেটা নিছক একটা ভূমিখণ্ড দখল নয়। কাশ্মীরিয়াৎকে আপন করে নেওয়া। একমাত্র তাহলেই পাকিস্তান সবথেকে বেশি ধাক্কা খাবে! আর কাশ্মীরিদের আমরা যদি শত্রু বিবেচনা করে চলি, তাহলে কিন্তু টেনিসের পরিভাষায় অ্যাডভান্টেজ পাকিস্তান হয়ে যাবে! সে সুযোগ দেব কেন?
বিশদ

09th  August, 2019
একনজরে
সংবাদদাতা, কাঁথি: রবিবার দীঘার সমুদ্রে স্নান করতে নেমে তলিয়ে যাওয়া এক পর্যটক যুবককে উদ্ধার করেছেন নুলিয়ারা। ওই যুবক বর্তমানে দীঘা স্টেট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এদিন নিউ দীঘার ক্ষণিকা ঘাটে ঘটনাটি ঘটে।   ...

 লে, ১৮ আগস্ট (পিটিআই): জম্মু ও কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার করে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে লাদাখকে। এবার লাদাখকে সংবিধানের ষষ্ঠ তফসিলি হিসেবে ঘোষণার দাবি জানালেন সেখানকার বিশিষ্ট নেতারা। লাদাখবাসীর জমির সুরক্ষা ও পরিচিতির কথা মাথায় রেখে কেন্দ্রের ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: বিকেন্দ্রীকৃত কাউন্সেলিংয়ের দ্বিতীয় দিনেই ভরে গেল যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের সব আসন। যদিও আর্কিটেকচার এবং ফার্মাসিতে হাতে গোনা কয়েকটি আসনই খালি রয়ে গিয়েছে। অনলাইন কাউন্সেলিংয়ের পর মোট ২৬১টি আসন ফাঁকা ছিল। ...

গোপাল মিস্ত্রি, শিলিগুড়ি, বিএনএ: এরাজ্যের অন্যতম ভিআইপি ট্রেন দার্জিলিং মেলের যাত্রাপথ শিলিগুড়ি জংশন পর্যন্ত সম্প্রসারণে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে জবরদখল। রেলকর্তৃপক্ষের বক্তব্য, অনেক আগেই এনজেপির পরিবর্তে ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

শরীর নিয়ে চিন্তায় থাকতে হবে। মাথা ও কোমরে সমস্যা হতে পারে। উপার্জন ভাগ্য শুভ নয়। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

বিশ্ব মনুষ্যত্ব দিবস
১৯৪০: পরিচালক গোবিন্দ নিহালনির জন্ম
১৯৯৩: অভিনেতা উৎপল দত্তের মৃত্যু

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৫৯ টাকা ৭২.২৯ টাকা
পাউন্ড ৮৪.৮১ টাকা ৮৭.৯৪ টাকা
ইউরো ৭৭.৮৩ টাকা ৮০.৭৮ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
17th  August, 2019
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,২৪৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,২৮৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৬,৮৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৩,৯০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৪,০০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
18th  August, 2019

দিন পঞ্জিকা

২ ভাদ্র ১৪২৬, ১৯ আগস্ট ২০১৯, সোমবার, চতুর্থী ৫৫/৩০ রাত্রি ৩/৩০। উত্তরভাদ্রপদ ৩৬/১৫ রাত্রি ৭/৪৮। সূ উ ৫/১৮/২২, অ ৬/২/২৪, অমৃতযোগ দিবা ৬/৫৯ মধ্যে পুনঃ ১০/২৪ গতে ১২/৫৭ মধ্যে। রাত্রি ৬/৪৮ গতে ৯/২ মধ্যে পুনঃ ১১/১৭ গতে ২/১৮ মধ্যে, বারবেলা ৬/৫৪ গতে ৮/২৯ মধ্যে পুনঃ ২/৫১ গতে ৪/৪৬ মধ্যে, কালরাত্রি ১০/১৫ গতে ১১/৪০ মধ্যে। 
১ ভাদ্র ১৪২৬, ১৯ আগস্ট ২০১৯, সোমবার, চতুর্থী ৪৭/৩৯/৪৭ রাত্রি ১২/২১/২৫। উত্তরভাদ্রপদনক্ষত্র ৩২/১৮/৫৫ সন্ধ্যা ৬/১৩/৪, সূ উ ৫/১৭/৩০, অ ৬/৫/১৪, অমৃতযোগ দিবা ৭/২ মধ্যে ও ১০/২১ গতে ১২/৫০ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/৩৫ গতে ৮/৫৪ মধ্যে ও ১১/১২ গতে ২/১৭ মধ্যে, বারবেলা ২/৫৩/১৮ গতে ৪/২৯/১৬ মধ্যে, কালবেলা ৬/৫৩/২৮ গতে ৮/২৯/২৬ মধ্যে, কালরাত্রি ১০/১৭/২০ গতে ১১/৪১/২২ মধ্যে। 
১৭ জেলহজ্জ 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
২ দিনের সফরে দীঘায় পৌঁছলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় 

03:55:11 PM

নেতাজি মৃত্যু নিয়ে ট্যুইট প্রত্যাহার পিআইবির 

03:27:00 PM

নিউ মার্কেট এলাকায় বাড়ির একাংশ ভেঙে জখম ১ 

03:09:00 PM

রাজ্য নেতাদের বিরুদ্ধে মুখ খোলায় মালদহের প্রাক্তন জেলা সভাপতি সঞ্জিৎ মিশ্রকে বহিষ্কার করল বিজেপি 

02:02:28 PM

কোহলিদের খুনের হুমকি দিয়ে পাক বোর্ডে উড়ো মেল 
ভারতীয় ক্রিকেট দলের উপর হামলা হতে পারে এই মর্মে পাকিস্তান ...বিশদ

01:44:02 PM

বেলুড় স্টেশনে তরুণীকে ধারালো অস্ত্রের কোপ 
সাত সকালে বেলুড় স্টেশনে এক তরুণীকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত ...বিশদ

01:09:06 PM