বিশেষ নিবন্ধ
 

উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা: পূর্ব সাগরে সিঁদুরে মেঘ?

গৌরীশঙ্কর নাগ : অতি সম্প্রতি উত্তর কোরিয়ার একের পর এক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার পরিপ্রেক্ষিতে, আমেরিকা তথা পশ্চিমি শক্তি-জোটের যে উদ্বেগ তা যেন মুহূর্তে কোরীয় দ্বীপপুঞ্জের ছবিটাই বদলে দিয়েছে। এর ফলে একদিকে দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপান যেমন ত্রস্ত হয়ে উঠেছে, তেমনি মার্কিন তৎপরতাও লক্ষণীয় মাত্রায় পৌঁছেছে। বিভিন্ন ইলেকট্রনিক মিডিয়া চ্যানেলের ছবিতে প্রকাশ পাচ্ছে, ইতিমধ্যেই মার্কিন প্রশাসন সেনেটরদের ডেকে পরিস্থিতির ব্রিফিং দিয়েছে। আবার উত্তর কোরিয়াকে চাপে রাখতে আমেরিকা পারমাণবিক শক্তিসম্পন্ন সাবমেরিন ও বিখ্যাত রণতরি কার্ল ভিনসেনকে উত্তর কোরিয়ার দিকে যেতে নির্দেশ দিয়েছে, যা জাপানের নাগাসাকির উপকূল এলাকা দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। প্রসঙ্গত কার্ল ভিনসেন হল সেই পরীক্ষিত রণতরি যা অপারেশন ইরাকি ফ্রিডম, অপারেশন এনডিয়োরিং ফ্রিডম ইত্যাদি সামরিক অভিযানে আমেরিকা সাফল্যের সঙ্গে ব্যবহার করেছে।
দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রকও সন্ত্রস্তভাবে পরিস্থিতির দিকে লক্ষ রাখছে, কারণ সামরিক উত্তেজনা যদি শেষ পর্যন্ত সামরিক বিরোধের পর্যায়ে উন্নীত হয় তবে তার প্রথম ঢেউ এসে পড়বে দক্ষিণ কোরিয়ার উপর। সামরিকভাবে তো বটেই, এমনকী মানবিক সংকট যেমন শরণার্থী সমস্যায় দক্ষিণ কোরিয়া নাজেহাল হতে পারে। উল্লেখ্য যে, দক্ষিণ কোরিয়ার অবস্থাও তথৈবচ। কারণ দক্ষিণ কোরিয়ার প্রধান সমস্যা একদিকে যেমন উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে বিবাদজনিত স্থায়ী নিরাপত্তার সমস্যা, তেমনি তার সঙ্গে গোদের উপর বিষফোঁড়ার মতো যুক্ত ছিল দুর্নীতির কালো মেঘ। আপাতভাবে গণতান্ত্রিক প্রকরণ থাকলেও সমালোচকদের মুখ বন্ধ করে দেওয়ারও চেষ্টা হচ্ছিল। প্রশাসনে এতটাই দুর্নীতির অনুপ্রবেশ ঘটেছিলে যে, দুর্নীতিগ্রস্ত বরখাস্ত-হওয়া প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি পার্ক গুয়েন হুইয়ের শাস্তির দাবিতে সাধারণ মানুষ পথে নেমেছিল। সাংবিধানিক আদালতে তাঁর বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করা হয়েছিল। দক্ষিণ কোরিয়া ভিত্তিক একটি নামী বহুজাতিক কোম্পানি যেভাবে দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত হয়েছে, তার রেশ যে দক্ষিণ কোরিয়ার অর্থনীতিকে ভবিষ্যতে বেশ ভোগাবে, তা বলাই বাহুল্য।
কোরিয়ার সংকটের সঙ্গে যে আঞ্চলিক শক্তি ওতপ্রোতভাবে যুক্ত তার নাম কমিউনিস্ট চীন। ফলে এই মুহূর্তে চীন কিন্তু চাপে পড়ে গিয়েছে। ঘাড়ের উপর নিঃশ্বাস ফেলছে ট্রাম্পের আমেরিকা। আমেরিকা চাইছে, চীন কিম উনকে বোঝাক যাতে পিয়ংইয়ং পারমাণবিক ও মিসাইল পরীক্ষা-নিরীক্ষা থেকে হাত গুটিয়ে নেয়। আমেরিকা এও আশঙ্কা করছে, উত্তর কোরিয়ার হাতে মারাত্মক বায়োলজিকাল ও রাসায়নিক অস্ত্রভাণ্ডার রয়েছে। ফলে সামরিক দ্বৈরথের ক্ষেত্রে বীভৎসতা মাত্রা ছাড়াতে পারে। বিশেষত আশঙ্কার বড় কারণ হল উত্তর কোরিয়ার প্রতি চীনের প্রচ্ছন্ন সমর্থন। মুখে উত্তর কোরিয়াকে সতর্ক করলেও নতুন করে উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে কোনও অনাস্থা আনা হোক বা অর্থনৈতিক অবরোধ তৈরি করা হোক তা চীন চায় না। বরং চীনের অবস্থান স্পষ্ট। যদি আমেরিকা দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে যৌথ সামরিক মহড়া বন্ধ করে, তবে উত্তর কোরিয়াও সংযত হবে।
কিন্তু, চীনের এ জাতীয় কোনও প্রস্তাব মানতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র রাজি নয়। বরং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কাছে উত্তর কোরিয়া হল দায়িত্বজ্ঞানহীন, জঙ্গি ও আগ্রাসী পারমাণবিক শক্তি। তাই রাষ্ট্রসংঘের নিষেধাজ্ঞাকে বৃদ্ধাঙ্গুষ্ট দেখিয়ে অবাধ্য উত্তর কোরিয়া বারংবার সামরিক অতি প্রস্তুতির মাধ্যমে আঞ্চলিক অস্থিরতা সৃষ্টি করতে চায়। তাই এই আপদকে উচিত শিক্ষা দেবার সময় এসেছে। মার্কিন উপ-রাষ্ট্রপতি মাইক পেন্স সম্প্রতি বলেছেন, উত্তর কোরিয়ার ব্যাপারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ধৈর্যচ্যুতি ঘটেছে।
এখন দেখা যাক, আমেরিকার সামনে এই সংকটের মোকাবিলায় কী কী নীতিগত বিকল্প রয়েছে: ১) কূটনৈতিক আলাপ-আলোচনা চালিয়ে যাওয়া। কিন্তু বর্তমান উত্তপ্ত আবহে সেটা কতখানি ফলপ্রসূ হবে, তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। তাছাড়া ২০১৭-র ট্রাম্প। মার্চে প্রশাসন উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে ব্যাক-চ্যানেল কূটনীতি আপাতত স্থগিত রেখেছে। ফলে কূটনৈতিক আদানপ্রদানের রাস্তা ক্রমশ রুদ্ধ হয়ে যাবে, তাতে সন্দেহ নেই।
২) আমেরিকা চাইবে রাষ্ট্রসংঘের মাধ্যমে অর্থনৈতিক অবরোধকে জোরদার করা; সেই সঙ্গে উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে নতুন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া। টিলারসন রাষ্ট্রসংঘকে সম্প্রতি এ কথা বোঝাতে চেয়েছেন যে উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে আশু ব্যবস্থা না নিলে তা আন্তর্জাতিক নিরাপত্তাকে বিঘ্নিত করবে। উল্লেখ্য ফ্রান্স, ব্রিটেনসহ ইউরোপের অগ্রবর্তী শক্তিসমূহ আমেরিকার এই অবস্থানকে সমর্থন করেছে। ফলে নিকট ভবিষ্যতে সামরিক বল প্রয়োগের ক্ষেত্রে এরাও আমেরিকার সঙ্গী হতে পারে।
৩) আমেরিকা একসময় আর এক পরিকল্পনার কথাও বলেছিল যার উদ্দেশ্য উত্তর কোরিয়ার সামরিক একনায়ক কিম উনকে সরিয়ে দেওয়া। তবে আমেরিকা এই বক্তব্য থেকে সরে এসেছে।
৪) চীনের মাধ্যমে উত্তর কোরিয়াকে শায়েস্তা করা যায় কি না সেটাও আমেরিকাকে ভাবাচ্ছে। চাপের মুখে ফেব্রুয়ারি মাসের প্রথম দিকে উত্তর কোরিয়া থেকে কয়লা আমদানি চীন সাময়িকভাবে স্থগিত রেখেছে। কিন্তু বন্ধু রাষ্ট্র উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে কোনও বড় রকমের বিরোধিতার পথে চীন হাঁটবে কি না সন্দেহ আছে।
ফলে সবশেষে যে বিকল্প হাতে থাকে, তা হল সামরিক পদক্ষেপ। তবে সেটা কতটা রাজনৈতিক প্রজ্ঞার পরিচায়ক হবে, তা খতিয়ে দেখা প্রয়োজন। কারণ উত্তর কোরিয়ার হাতে রয়েছে পারমাণবিক অস্ত্র, আর সেই সঙ্গে ইন্টার কন্টিনেন্টাল ব্যালিস্টিক মিসাইল যা ওয়াশিংটনের কপালে চিন্তার ভাঁজ ফেলবেই। তাছাড়া দক্ষিণ কোরিয়া ও আমেরিকার যৌথ সামরিক মহড়ায় রুষ্ট চীন ও রাশিয়া যদি উত্তর কোরিয়ার পাশে গিয়ে দাঁড়ায় তাহলে তো কথাই নেই। তাহলে সিরিয়া সংকটের মতো আমেরিকা নতুন সংকটে পড়তে বাধ্য। উত্তর কোরিয়ার সাম্প্রতিক বক্তব্যে স্পষ্ট যে তার মধ্যবর্তী পাল্লার মিসাইল পারমাণবিক সমরাস্ত্র বহন করতে সক্ষম। তাছাড়া দক্ষিণ কোরিয়া ও আমেরিকার যৌথ সামরিক মহড়াকে ইলেকট্রনিক সিগনালের মাধ্যমে উত্তর কোরিয়া যেভাবে বানচাল করতে চাইছে, তাতে এ কথাই প্রমাণিত হয় যে উত্তর কোরিয়া সাইবার যুদ্ধে অপটু নয়। ফলে কেবল সামরিক প্যাঁচ কষে উত্তর কোরিয়াকে কাবু করা সহজ হবে না, তা বলাই বাহুল্য। উপরন্তু দক্ষিণ কোরিয়ায় অতি সম্প্রতি রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে জয়ী মুন জো বামপন্থী মনোভাবাপন্ন হওয়ায় তাঁকে হাতিয়ার করে উত্তর কোরিয়ার উপর নতুনভাবে চাপ সৃষ্টির ট্রাম্পীয় রণনীতি ততটা সফল হবে বলে মনে হয় না।
এ প্রসঙ্গে ভারতের গঠনমূলক শান্তি প্রচেষ্টার উদ্যোগের কথা এসে পড়ে। ১৯৫০-৫৩ কোরিয়া যুদ্ধের সময় সমস্যা সমাধানের জন্য রাষ্ট্রসংঘের উদ্যোগে যে অস্থায়ী কমিশন গঠিত হয়, তার সভাপতির আসন লাভ করেন ভারতের কূটনৈতিক কে পি এস মেনন। মেনন এ ব্যাপারে বৃহৎ শক্তিবর্গকে ঐক্যবদ্ধ হবার আবেদন করেন। তাছাড়া নেহরুর ভারত আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সেই যুদ্ধ মেটানোর প্রক্রিয়া চালু রাখে। এতে ভারতের ভাবমূর্তি যেমন উজ্জ্বল হয়, তেমনি রাষ্ট্রসংঘের গুরুত্বও বৃদ্ধি পায়। ভারতের এই দৃষ্টিভঙ্গি ঠান্ডা যুদ্ধোত্তর পরিস্থিতিতেও বিদ্যমান। তাছাড়া ভারত নিজে পারমাণবিক শক্তিধর রাষ্ট্র হওয়া সত্ত্বেও বিশ্বে পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণের দৃঢ় সমর্থক। সুতরাং কোরিয়ার বর্তমান সংকট দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক সংকট নয় বলেই ভারত সে ব্যাপারে নীরব/উদাসীন থাকবে—এ কথা বলা যায় না। চীন-বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক স্মরণ সিংয়ের মতে, এখনই যুদ্ধের সম্ভাবনা নেই। তবে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে। কারণ, পরিস্থিতি যে দিকে গড়াচ্ছে তাতে পূর্ব এশিয়ায় কোরীয় সংকট ঘনীভূত হলে তা যে ভারতের ‘পুবে তাকাও’ নীতি এবং ভারত-চীন সম্পর্ককে জর্জরিত করবে— তা বলাই বাহুল্য।
লেখক সিধো কানহো বীরসা বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক
18th  May, 2017
গুম-নিখোঁজ ও পরমানন্দ মন্ত্রণালয়
সৌম্য বন্দ্যোপাধ্যায়

বাংলাদেশে ‘লিট ফেস্ট’ শুরু ও শেষ হল। সেই কারণে কি না জানি না, অরুন্ধতী রায়ের দ্বিতীয় উপন্যাস ‘দ্য মিনিস্ট্রি অব আটমোস্ট হ্যাপিনেস’ হুট করে সংবাদপত্রে চর্চার কেন্দ্রে উঠে এল। এই মুহূর্তে বাংলাদেশের অত্যন্ত জনপ্রিয় সাহিত্যিক ও সাংবাদিক, আমার অতি ঘনিষ্ঠ ও প্রিয় আনিসুল হক এই উপন্যাসের বাংলা নাম দিয়েছেন ‘পরমানন্দ মন্ত্রণালয়’।
বিশদ

লন্ডন, এডিনবরা এবং মমতা
শুভা দত্ত

দুর্গাপুজোর দিন যত এগিয়ে আসে, আনন্দটা তার সঙ্গে সমানুপাতিক হারে বাড়ে। এ আমাদের বাঙালি সংস্কৃতির চিরন্তন সত্য। আর মা দুর্গাকে ঘিরে সেই উৎসবের রামধনু রং ফিকে হতে শুরু করে নবমীর সন্ধ্যা থেকেই। আজ বাদে কাল দশমী। মায়ের ফিরে যাওয়ার পালা।
বিশদ

চীনের প্রেসিডেন্ট বনাম ভারতের ডিফেন্স রিসার্চ
প্রশান্ত দাস

জিনপিং দেশের বিখ্যাত বিজ্ঞানীদের বললেন—আমাদের সমাজতন্ত্র দেশকে তরতর করে এগিয়ে নিয়ে চলেছে। এগিয়ে চলেছে আমাদের অর্থনীতি। কিন্তু গত পাঁচ বছরে আপনারা ক’টি অবিশ্বাস্য অস্ত্র দিতে পেরেছেন সেনাদের? ভারতের ডিআরডিও কী করে পৃথিবীতে দু’নম্বর রিসার্চ সেন্টার হল? কী নেই আপনাদের? যা যা চাই, তালিকা পাঠান। যতদিন না আমরা ডিআরডিও-কে ছাপিয়ে যেতে পারছি, ততদিন আমরা নিজেদের এশিয়ার মধ্যে এক নং বলতে পারব না।
বিশদ

18th  November, 2017
রাজ্যের লাইব্রেরিগুলিকে বাঁচাতেই হবে
পার্থজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়

মনে পড়ছে গত ডিসেম্বরের কথা। বীরভূম জেলার সরকারি বইমেলার আয়োজন হয়েছিল সিউড়িতে, ইরিগেশন কলোনির মাঠে। আমি উদ্বোধক, মঞ্চে জেলার মন্ত্রীরা, সঙ্গত কারণেই উপস্থিত ছিলেন গ্রন্থাগারমন্ত্রীও। মঞ্চে বসেই সিদ্দিকুল্লা চৌধুরীর সঙ্গে পরিচয়, আলাপচারিতা।
বিশদ

18th  November, 2017
মোদির আমলে শিশুদের খিদের যন্ত্রণা তীব্র, কারণ শিশু ও মহিলা উন্নয়নে গুরুত্ব কম
দেবনারায়ণ সরকার

কেন্দ্রীয় সরকারের গত ৩ বছরের বাজেটের তথ্য সার্বিকভাবে বিচার করলে দেখা যাচ্ছে কেন্দ্রীয় বাজেটে মোট ব্যয় যেখানে ২১ শতাংশের বেশি বেড়েছে (টাকার অঙ্কে অতিরিক্ত প্রায় ৩ লক্ষ ৫১ হাজার কোটি টাকা), সেখানে মহিলা ও শিশু উন্নয়নে ব্যয় কপর্দকও বাড়েনি, বরং প্রায় ১ শতাংশ কমেছে। একইভাবে মহিলা ও শিশু উন্নয়ন ব্যয় বাজেটের মোট ব্যয়ের ১ শতাংশের অনেক নীচে নেমেছে। মোদ্দা কথা হল, যে দেশের কেন্দ্রীয় বাজেটে মহিলা ও শিশু উন্নয়নের ব্যয় বাজেটে মোট ব্যয়ের ১ শতাংশেরও কম এবং এই ব্যয় মোদির জমানায় যেহেতু আরও কমছে, সেই দেশে রোজ রাতে খালি পেটে শুতে যাওয়া শিশুদের সংখ্যা ক্রমশ বৃদ্ধিটাই স্বাভাবিক। তাই ভারতে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে অপুষ্টিও।
বিশদ

17th  November, 2017
ডেঙ্গু: রাজনীতি ছেড়ে হাত মিলিয়ে কাজের সময়
অনিরুদ্ধ কর

অবিলম্বে একটা স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিওর বা নিয়মাবলী প্রকাশ করতে হবে সরকারের তরফে। সরকারি নির্দেশ মানতে বাধ্য সকল সরকারি বেসরকারি ও প্রাইভেট চিকিৎসা কেন্দ্র। অতীতের দিকে নজর দিলে দেখা যাবে বার্ড ফ্লু বা সোয়াইন ফ্লু-র সময় সরকারের তরফে এমন নিয়মাবলী প্রকাশ করা হয়েছিল। চিকিৎসাব্যবস্থায় কী কী থাকতে হবে এবং কোথায় থাকবে তাও বলে দেওয়া হয়েছিল। ফ্লু-র ওষুধ একমাত্র সরকার দিত। খোলাবাজারে মিলত না সেই ওষুধ। কারণ সেক্ষেত্রে ওষুধ নিয়ে কালোবাজারি এবং চড়া দামে ওষুধ বিক্রি হওয়ার আশঙ্কা থেকে যেত। এছাড়া একটি রাজ্যস্তরের কমিটি ছিল পর্যালোচনার জন্য।
বিশদ

17th  November, 2017
প্যারিস, পরিবেশ এবং উচ্চাকাঙ্ক্ষী ভারত
শান্তনু দত্তগুপ্ত

 পরিবেশ মানে হল যেখানে সেখানে থুতু না ফেলা। মন্তব্যটি আমারই এক ঘনিষ্ঠ বন্ধুর। এবং কী ভয়ঙ্কর সাবলীল স্বীকারোক্তি। যে দেশে ৩০ কোটি মানুষ এখনও দারিদ্রসীমার নীচে বসবাস করেন, যেখানে সাক্ষরতা বলতে বোঝানো হয় নিজের নাম সই করতে পারা, সেখানে সচেতনতার প্রাথমিক পাঠটা এমন একটা মন্তব্য দিয়ে শুরু করলে মন্দ কী!
বিশদ

16th  November, 2017
সার্ধশতবর্ষের শ্রদ্ধাঞ্জলি টেম্‌স থেকে গঙ্গা: ভগিনী নিবেদিতার দার্শনিক যাত্রা
জয়ন্ত কুশারী

 আয়ারল্যান্ডের স্বল্প জনবসতি শহর ডুং গানন। স্যামুয়েল রিচমন্ড নোবেল নামে এক ধর্মযাজক ও তাঁর ভক্তিমতী স্ত্রী মেরি ইসাবেল হ্যামিলটন বাস করেন এই শহরে। এঁরা সর্বশক্তিমান ঈশ্বরের কাছে করজোড়ে প্রার্থনা করেন সুখপ্রসবে প্রথম সন্তানটি হলে তাঁরা ঈশ্বরের চরণেই সদ্যোজাতকে সমর্পণ করবেন।
বিশদ

16th  November, 2017
নোট বাতিল: উত্তরপ্রদেশের ভোট, রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক এবং চে গুয়েভারা
শুভময় মৈত্র

নোট বাতিলের কারণ এবং ফল সংক্রান্ত আলোচনা দেখে, শুনে এবং পড়ে জনগণ এই বিষয়ে যথেষ্ট অবহিত, হয়তো বা কিছুটা ক্লান্তও বটে। বিজেপি সরকার কেন এই সিদ্ধান্ত নিলেন, এর কী কী ভুল ভ্রান্তি আছে, দেশের কী ক্ষতি হল, সাধারণ মানুষ ঠিক কতটা ভুগলেন এই নিয়ে আমরা যতটা আলোচনা করেছি সেই পরিমাণটা সময় এবং সম্পদের হিসেবে পাঁচশো আর হাজার টাকার মোট বাতিল নোটের মূল্যের থেকে বেশিও হয়ে যেতে পারে।
বিশদ

14th  November, 2017
বুকে লাল গোলাপের সেই মানুষটির কথা আজ খুব মনে পড়ছে
মোশারফ হোসেন

স্বপনদা বলত, পচার চাই। বুঝলে ভায়া, পচারটাই আসল। বাঁকুড়া মানুষ স্বপনদা র-ফলা উচ্চারণ করতে পারত না। তার মুখে ‘প্রচার’ শব্দটা ‘পচার’ হয়েই বেরত। আগ্রার ভঁপু চক্কোত্তিও একই কথা বলেছিলেন। ভঁপুবাবুর সঙ্গে আমার আলাপ হয়েছিল ১৯৯৩ সালে। এরকমই এক নভেম্বরে। উত্তরপ্রদেশের বিধানসভা ভোটের খবর করতে গিয়ে।
বিশদ

14th  November, 2017
ফাইলের ভয় দেখিয়ে মুকুল কি রাজ্য রাজনীতিতে জায়গা করতে পারবেন?
শুভা দত্ত

ভয় দেখাচ্ছেন মুকুল রায়, ফাইলের ভয়। মারাত্মক তথ্য ঠাসা গোপন সব ফাইল নাকি সদ্য গেরুয়াধারী মুকুল রায়ের হাতে! সেসব ফাইলের তথ্য প্রকাশ পেলেই নাকি ধরাশায়ী হবে তৃণমূল! মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রাজত্ব চলে যাবে! আর সেই সুযোগে ড্যাং ড্যাং করে মুকুল রায়ের বিজেপি পশ্চিমবঙ্গের দখল নেবে। মমতা ভুলে বাংলার জনতাও মোদিজি অমিতজির বন্দনায় আত্মহারা হবে।
বিশদ

12th  November, 2017
ভারতের স্বাস্থ্য পরিষেবা ব্যবস্থাকে আরও জনকল্যাণমুখী ও সংগঠিত করা প্রয়োজন
বরুণ গান্ধী

 এবারে আমার আলোচনার বিষয়বস্তু হল, আমাদের দেশের সামগ্রিক স্বাস্থ্য পরিষেবা নিয়ে। খুব বেশিদিন নয়, মাত্র মাসদুয়েক আগের কথা। গোরখপুরের বি আর ডি হাসপাতালে ৬০ জন ছোট ছেলে-মেয়ে পাঁচ দিনের মধ্যে প্রায় বিনা চিকিৎসায় মারা গেল। এর থেকে দুঃখের ঘটনা আর কিছু হয় না। খবরে প্রকাশ, প্রতিদিন এই হাসপাতালে গড়ে ২০০/২৫০ জন এনসেফ্যালাইটিস রোগে আক্রান্ত রোগী ভরতি হচ্ছিলেন। রোগীর এহেন ভিড়ে এখানকার চিকিৎসার পরিকাঠামো একরকম ভেঙে পড়ে। বিশদ

12th  November, 2017
একনজরে
বিএনএ, কোচবিহার: পঞ্চায়েত নির্বাচনকে পাখির চোখ করে আজ, রবিবার থেকে আদাজল খেয়ে ময়দানে নামছে কোচবিহার জেলা বিজেপি। নভেম্বরের মধ্যেই তৃণমূল স্তরে সংগঠনের বুথস্তরের কমিটি তৈরির কাজ শেষ করে ভিতকে আরও মজবুত করার ব্যাপারে রাজ্য থেকে জেলাতে নির্দেশ পাঠানো হয়েছে। ...

হারারে, ১৮ নভেম্বর: জিম্বাবোয়ের প্রেসিডেন্ট রবার্ট মুগাবেকে গৃহবন্দি করে রাখার ঘটনাটিকে সামরিক অভ্যুত্থান হিসেবেই দেখছে আফ্রিকান ইউনিয়ন। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম মুগাবে উৎখাতের এই অভ্যুত্থানের নেপথ্যে ...

 আমেদাবাদ, ১৮ নভেম্বর: গুজরাত নির্বাচনের প্রাক্কালে হার্দিক প্যাটেলকে নিয়ে চাপে পড়ল কংগ্রেস। পাটিদার সংরক্ষণের দাবি মেনে নিতে কংগ্রেসকে নতুন করে চরমসীমা দিল ‘পাটিদার আনামত আন্দোলন সমিতি’ (পাস)। সেইমতো কংগ্রেসের উপর চাপ বাড়িয়ে বেশ কিছু টিকিট আদায় করে নিতে চাইছে হার্দিকের ...

 নয়াদিল্লি, ১৮ নভেম্বর: এই প্রথম চীন থেকে আমদানি করা স্টেইনলেস স্টিলের ওপর ব্যাপকভাবে ‘কাউন্টারভেইলিং’ শুল্ক আরোপ করেছে কেন্দ্র। আগামী পাঁচ বছর চীন থেকে কেউ এই পণ্য আমদানি করলে তাকে ১৮.৯৫% হারে ‘কাউন্টারভেইলিং’ শুল্ক (সিভিডি) দিতে হবে বলে অর্থ মন্ত্রক থেকে ...


আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যার্থীদের বিষয় নির্বাচন সঠিক হওয়া দরকার। কর্মপ্রার্থীরা কোন শুভ সংবাদ পেতে পারেন। কারও সঙ্গে সম্পর্কহানি ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৩৮: সমাজ সংস্কারক কেশবচন্দ্র সেনের জন্ম
১৮৭৭: কবি করুণানিধান বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯১৭: ভারতের তৃতীয় প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর জন্ম
১৯২২: সঙ্গীতকার সলিল চৌধুরির জন্ম
১৯২৮: কুস্তিগীর ও অভিনেতা দারা সিংয়ের জন্ম
১৯৫১: অভিনেত্রী জিনাত আমনের জন্ম

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৪.০০ টাকা ৬৫.৬৮ টাকা
পাউন্ড ৮৪.৩২ টাকা ৮৭.১৯ টাকা
ইউরো ৭৫.২০ টাকা ৭৭.৮৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
18th  November, 2017
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩০,১৯৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ২৮,৬৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ২৯,০৮০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪০,২০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪০,৩০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৩ অগ্রহায়ণ, ১৯ নভেম্বর, রবিবার, প্রতিপদ রাত্রি ৭/১৫, নক্ষত্র-অনুরাধা রাত্রি ৯/৫৭, সূ উ ৫/৫৫/৪৩, অ ৪/৪৮/১৭, অমৃতযোগ দিবা ঘ ৬/৪০ গতে ৮/৫০ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৪ গতে ২/৩৮ মধ্যে। রাত্রি ঘ ৭/২৩ গতে ৯/১১ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৯ গতে ১/৩৪ মধ্যে পুনঃ ২/২৭ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ১০/০ গতে ১২/৪০ মধ্যে, কালরাত্রি ১২/৫৯ গতে ২/৩৯ মধ্যে।
ইতু পূজা।
 
২ অগ্রহায়ণ, ১৯ নভেম্বর, রবিবার, প্রতিপদ রাত্রি ৫/৪৫/৪১, অনুরাধানক্ষত্র ৯/২৭/৫২, সূ উ ৫/৫৬/১২, অ ৪/৪৭/১৯, অমৃতযোগ দিবা ৬/৩৯/৩৬-৮/৪৯/৩৮, ১১/৪৩/০-২/৩৬/২১, রাত্রি ৭/২৫/৬-৯/১০/১৬, ১১/৪৮/৩-১/৩৩/১৪, ২/২৫/৫০-৫/৫৬/৫৮, বারবেলা ১০/০/২২-১১/২১/৪৫, কালবেলা ১১/২১/৪৫-১২/৪৩/৯, কালরাত্রি ৯/৪৩/১৩-১১/২১/৫৮।
ইতু পূজা।

২৯ শফর

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আজ শহরের তাপমাত্রা থাকবে ২৯ ডিগ্রির কাছাকাছি

08:15:00 AM

নিলামে বিক্রি হচ্ছে ট্রাম্প-মেলেনিয়ার বিয়ের কেক
নিলামে বিক্রি হতে চলেছে ট্রাম্প-মেলেনিয়ার বিয়ের কেক। স্মারক হিসাবে মার্কিন ...বিশদ

08:10:00 AM

ইন্টারলকিংয়ের কাজের জন্য আজ সকাল থেকে ১২ঘণ্টা খড়্গপুর স্টেশনে কোনও ট্রেন ঢুকবে না
বিশ্বমানের ইন্টারলকিংয়ের কাজের জন্য আজ, রবিবার সকাল থেকে ...বিশদ

08:00:00 AM

 ইতিহাসে আজকের দিনে
 ১৮৩৮: সমাজ সংস্কারক কেশবচন্দ্র সেনের জন্ম
১৮৭৭: কবি করুণানিধান বন্দ্যোপাধ্যায়ের ...বিশদ

08:00:00 AM

আই এস এল: নর্থইস্ট ইউনাইটেড :০ জামশেদপুর এফ সি :০
আজ গুয়াহাটির ইন্দিরা গান্ধী অ্যাথেলেটিক স্টেডিয়ামে আই এস এল-এ মুখোমুখি ...বিশদ

18-11-2017 - 10:04:08 PM