বিশেষ নিবন্ধ
 

রিঙ্কু, রিঙ্কুর মা এবং বাবুবিবি বৃত্তান্ত
সৌম্য বন্দ্যোপাধ্যায়

আধুনিক নাগরিক সমাজে ‘গেটেড সোসাইটি’ বলে যা পরিচিতি পেয়েছে, রাজধানী ও তার আশপাশে এইরকম কিছু আবাসনে ইদানীং কয়েকটা ঘটনা ঘটেছে। শেষ ঘটনাটা চিন্তাজনক।
এই আবাসনগুলি পাঁচিল দিয়ে ঘেরা এবং তাতে ঢোকা ও বেরনো মোটেই চাট্টিখানি কথা নয়। প্রাইভেট সিকিউরিটি গার্ড চব্বিশ ঘণ্টা পাহারায় থাকে। গোটা আবাসন সিসিটিভির নজরবন্দি। কারও কাছে যেতে গেলে সিকিউরিটি আগে ইন্টারকমে জানতে চাইবে। অনুমতি পেলে তবেই ছাড়পত্র। তবে তার আগে ভিজিটর বুকে নাম-ধাম লেখা বাধ্যতামূলক। অনেক হ্যাপা। আবাসনের অভ্যন্তর সাধারণত বেশ ঝকঝকে-তকতকে। সে জন্য আবাসিকদের মাসিক মূল্য ধরে দিতে হয়। কলকাতাতেও এমন আবাসন এখন অনেক।
দিল্লি এবং তার লাগোয়া নয়ডা ও গুরুগ্রামের (আগে নাম ছিল গুরগাঁও) বেশ কিছু আবাসন তাদের মতো করে কিছু নিয়ম সৃষ্টি করেছে। যেমন, কোথাও নিয়ম রয়েছে পোষ্য হিসেবে কুকুর রাখা চলবে না। কেননা তারা নাকি সকাল-সন্ধে আবাসন নোংরা করে। পলিথিন বোঝাই কুকুরের ‘পটি’ এখানে-সেখানে দেখা যায়। কাদের কুকুর বা তার মালিক/মালকিন এই অপকম্মটি করছে তা বোঝা দুষ্কর বলে এই নিয়ম। দেশ যেহেতু গণতান্ত্রিক এবং যেহেতু আবাসনের বেশিরভাগ গৃহেই এমন ‘অবলা পোষ্য’ নেই, তাই গভর্নিং বডির বৈঠকে অধিকাংশের মতোই প্রাধান্য পেয়েছে।
কিছু আবাসন আবার অবিবাহিত ছেলে বা মেয়েকে ভাড়া না-দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কারণ সহজেই অনুমেয়। কোনও কোনও আবাসন আবার আফ্রিকানদের ওপর বেজায় খাপ্পা। তাদের সংস্কৃতি, উদ্দাম জীবন দর্শন ‘ভারতীয়ত্বের সঙ্গে বেমানান’ বলে। প্রতিটি সিদ্ধান্তই কিন্তু গণতান্ত্রিক উপায়ে গৃহীত। এ নিয়ে গণমাধ্যমে আলোচনা যে হয়নি বা হচ্ছে না তা নয়। কিন্তু আবাসিকেরা যদি সিদ্ধান্ত নেন, সরকারের কীই বা বলার থাকে?
ক’দিন আগে নয়ডায় যে-ঘটনাটা ঘটল সেটা কিন্তু অন্য ধরনের এবং চিন্তাজনক। কাগজে পড়লাম, চুরির অভিযোগে এক গৃহকর্তা ও তাঁর পরিচারিকার মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। অভিযোগ, পরিচারিকাটি নাকি অনেকক্ষণ ‘নিখোঁজ’ ছিলেন এবং গৃহকর্তার গাড়ির ‘বুট’ থেকে নাকি তাঁকে পাওয়া যায়। পুলিশ অবশ্য জানায়, পরিচারিকাটিকে তাঁর ঝুপড়ি-ঝুগ্গিতেই দেখা গিয়েছে। এর পরের ঘটনা হল মারাত্মক। ঝুপড়িবাসী মানুষ লাঠি, রড, কাঠের টুকরো ও ইটপাটকেল নিয়ে আবাসন আক্রমণ করেন। নিরাপত্তারক্ষীদের সঙ্গে তাঁদের মারপিট হয়। অনেকেই আহত। তারপর পুলিশ ও আদালত।
এই ঘটনার পরেই ওই আবাসন কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নেয়, সেখানে কোনও বাংলাদেশিকে আর কখনও পরিচারক বা পরিচারিকা অথবা পাহারাদার কিংবা ড্রাইভারের কাজে বহাল করা হবে না। কারণ, ‘ওরা নাকি স্বভাবগতভাবে ঝঞ্ঝাটের মানুষ এবং অবিশ্বাসী।’
যাঁর বিরুদ্ধে চুরির অভিযোগ, তিনি মুসলমান, বাঙালি এবং পশ্চিমবঙ্গ থেকে আসা। আবাসনের বাঙালি আবাসিকদের ঘোরতর সন্দেহ, আদতে তাঁরা বাংলাদেশি।
অস্বীকার করার উপায় নেই, দিল্লির কিছু কিছু এলাকায় বাংলাদেশি বোঝাই। নয়ডাসহ দিল্লি-লাগোয়া উত্তরপ্রদেশ ও হরিয়ানার কোনও কোনও এলাকাতেও। মাঝে মাঝেই এই বিদেশিদের বিরুদ্ধে পুলিশি অভিযান চলে। কিন্তু তাতে বিশেষ কিছুই হয় না। আমাদের দেশের রাজনীতি ও পুলিশি-চরিত্র ওই বিশেষ কিছু না-হওয়ার প্রধান কারণ। তাছাড়া ‘বাংলাদেশি ধরো’ অভিযানকে কিছু কিছু রাজনৈতিক দল ‘বাঙালি ধরো’ বলে তকমা দিয়ে তা প্রতিরোধে এগিয়েও আসে। মানবাধিকার কর্মীরাও তাঁদের পাশে দাঁড়ান। অভাবী এই মানুষজন পেটের দায়ে চলে এসে রাজধানীর ‘ডোমেস্টিক হেল্প’-এর বিপুল চাহিদা অনেকাংশে পূরণ করছেন। পুরানো দিল্লির প্রতি পাঁচজন রিকশ চালকের একজন বাঙালি। বাঙালি সিকিউরিটি গার্ডও অগুনতি।
রাজধানীর আশপাশে চলে আসা সব বাংলাদেশিই যে বাঙালি তাতে সন্দেহ নেই। কিন্তু সব বাঙালিই বাংলাদেশি নন। পশ্চিবঙ্গের সীমান্তবর্তী নদীয়া, দুই চব্বিশ পরগনা, মালদহ ও মুর্শিদাবাদ এবং ঝাড়খণ্ড থেকে প্রতিদিন কিছু না কিছু দরিদ্র কিশোরী ও যুবতী আড়কাঠির হাত ধরে দিল্লি আসছে। এদের কেউ কেউ পরিচারিকা হয়ে ভালোমন্দ অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে দিন কাটাচ্ছে, কারও কারও জীবন হয়ে উঠেছে দুর্বিষহ। শারীরিক ও মানসিক শোষণের শিকার হয়ে কেউ কেউ আত্মহননের পথও বেছে নিয়েছে। কারও স্থান হয়েছে বেশ্যাপল্লিতে। কে বাঙালি, কে বাংলাদেশি, কে মুসলমান, কেই বা হিন্দু আড়কাঠিদের কাছে এসব বিচার অবান্তর। তাদের মন নেই। মানবিকতার ধারও তারা ধারে না। তারা জানে একটা মেয়ে পাচার করতে পারলে তারাও ক’টা মাস নিশ্চিন্তে খেতে পারবে।
সেদিন নয়ডায় এক পরিচিতের বাড়ি গিয়েছিলাম। সে বাড়ির পরিচারিকা মা ও মেয়ে। দু’জনে ভাগাভাগি করে কাজ করে। বাঙালি। কিশোরীটির নাম রিঙ্কু, তার মা ‘রিঙ্কুর মা’। কথায় কথায় রিঙ্কুর মা স্বীকার করলেন, তাঁরা বাংলাদেশি। পেটের দায়ে দেশত্যাগী হয়েছেন। রিঙ্কুর বাবা দেশে মাছ ধরতেন, এখন গাজিয়াবাদের মাছের মন্ডিতে সকালবেলায় কাজ করেন। বাকি সময় রিকশ চালান। সেই রিকশর মালিক আবার পুলিশ। ধরপাকড়ের সম্ভাবনা তাই কম।
সহানুভূতিশীলের কাছে দুর্গত সব সময়েই আশ্রয় খোঁজে। রিঙ্কুর মাও তাই অকপট। বললেন, ইদানীং খরচ ও ভয় খুব বেড়ে গেছে। সস্তার গো-মাংস অমিল। মোষের মাংস যেটুকু পাওয়া যায় লুকিয়ে-চুরিয়ে। অচেনাদের কাছে মুসলমান পরিচয় গোপন রাখা কঠিন হয়ে পড়ছে। ধরা পড়ার চেয়ে মার খেয়ে মরার ভয় দিন দিন বেশি জাঁকিয়ে বসছে।
আমি হাঁ করে রিঙ্কুর মায়ের কথা শুনতে শুনতে আগডুম বাগডুম কত কিছু ভাবি। ভাবতে ভাবতে ভেসে উঠল দিল্লিতে বাংলাদেশ হাইকমিশনের মিনিস্টার (কনসুলার) মোশারফ হোসেনের মুখ। ক’দিন আগেই ডেপুটি হাই কমিশনার সালাউদ্দিন নোমান চৌধুরিকে নিয়ে তিনি পুনে গিয়েছিলেন দুর্গতদের উদ্ধার করে দেশে ফেরত পাঠানোর প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করতে। বাংলাদেশ পুলিশের ডিআইজি পদমর্যাদার মোশারফ ভাই সেই কাহিনি শোনাচ্ছিলেন। শুনতে শুনতে চোখে জল এসে যাচ্ছিল। আড়কাঠি ও পাচারকারীদের মন থাকে না। আবেগও নয়। কারও কান্না তাদের মন ছোঁয় না। কাউকে গৃহহীন করে পাতালে নিক্ষেপ করতে তাদের মায়া হয় না।
মোশারফ ভাই কেরল গিয়েছেন। বেঙ্গালুরু। পুনে। পাঞ্জাবেও। বাংলাদেশিদের শনাক্ত করে তাদের ফেরত পাঠানোর হ্যাপা প্রচুর। তবু তিনি তাঁর মতো চেষ্টা করে যাচ্ছেন। ইতিমধ্যে প্রায় সাড়ে চারশো পুরুষ ও নারী বাংলাদেশিকে দেশে ফেরত পাঠানোর কাজ তিনি শেষ করতে পেরেছেন। যাঁরা যাচ্ছেন তাঁদের কেউ কেউ স্ব-ইচ্ছায়। কেউ ধরা পড়ে বাধ্য হয়ে। কেউ বা স্রেফ অনিচ্ছায়।
অনিচ্ছায়, কেননা, এত কাঠখড় পুড়িয়ে এত চোখ এড়িয়ে এত খরচ করে ভারতে এসে ফের দেশের অনিশ্চিত জীবনে কেইবা ফিরে যেতে চায়?
বাংলাদেশের রাজনীতিকবৃন্দ এবং সরকার ভারতে ‘লাগামহীন’ অনুপ্রবেশের তত্ত্ব প্রকাশ্যে মানতে নারাজ। অথচ অসম ও পশ্চিমবঙ্গের ছবি এবং অভিজ্ঞতা ভিন্ন। সত্যটা ভারতের দক্ষিণপন্থী রাজনীতিবিদ এবং বাংলাদেশের সরকারি কর্তাদের পরস্পর-বিরোধী দাবির মধ্যবর্তী কিছু একটা।
আমি বরং বাংলাদেশের উপর ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সাম্প্রতিক চাপ সৃষ্টির কাহিনিটা শোনাই। ইউরোপের বিভিন্ন দেশে ডিঙি নৌকায় ভূমধ্যসাগর পেরিয়ে অবৈধভাবে পাড়ি দেওয়া বাংলাদেশিদের রমরমায় ইউরোপীয় ইউনিয়ন উদ্বিগ্ন। তাদের প্রস্তাব, গ্রেপ্তার করা বাংলাদেশিদের পরিচয় জানানোর আটচল্লিশ ঘণ্টার মধ্যে বাংলাদেশ সরকারকে তাদের পরিচয় সম্পর্কে ইইউকে নিশ্চিত করতে হবে। না হলে তাদের ফেরত পাঠানো হবে। আপাতত এ নিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে ইউরোপীয় ইউনিয়নের চাপান-উতোর চলছে।
অনুপ্রবেশ নিয়ে ভারতীয় রাজনীতিকদের দাবি যত সহজে পাশ কাটানো সম্ভব, এক্ষেত্রে অস্বীকার করা ততটাই কঠিন। আমার চোখে এসব ছাপিয়ে ভেসে ওঠে বেঁচে থাকার তাগিদে প্রাণ হাতে করে ডিঙি নৌকোয় সাগরপাড়ের দুঃসাহস। কিংবা পেটের খিদে মেটাতে কাঁটাতারের বেড়া পেরিয়ে দেশান্তরী মানুষদের মনুষ্যেতর জীবনযাপনের অন্ধকারে মাখামাখি হওয়ার কাহিনি।
বাংলাদেশিদের কাজে বহাল না করার যে-সিদ্ধান্ত নয়ডার ‘গেটেড সোসাইটি’ নিয়েছে, তা আদৌ কত দিন মানা যাবে সন্দেহ। বাংলাদেশিদের সস্তার শ্রম অচ্ছুৎ হলে ফ্ল্যাটবাসীদেরও যে চিল-চিৎকার শোনা যাবে না, কে তা বলতে পারে? আমি ভাবছি অন্য কথা। এইসব শ্রমজীবীকে সপ্তাহান্তে এক দিন ছুটি দিতেও ফ্ল্যাটবাড়ির বাবু ও বিবিরা বাড়াবাড়ি মনে করেন। তাঁদের ছুটি চাইতে নেই, অসুখ হতে নেই, শখ-আহ্লাদ করতে নেই, বাড়তি টাকা দাবি করতে নেই, স্বপ্ন দেখতে নেই, নিদেনপক্ষে পেট চালানোর মতো অর্থ দাবি করার মুরোদও দেখাতে নেই। বাবু-বিবিদের করুণা, কিছু উচ্ছিষ্ট ও সময়-অসময়ের লাথি-ঝাঁটা তাঁদের একমাত্র পাওনা।
16th  July, 2017
দূষণ নিয়ন্ত্রণে পিপিপি মডেল ভাবনা 

কল্যাণ বসু: পিপিপি বললে এক লহমায় মনে আসে পাবলিক, প্রাইভেট, পার্টনারশিপের কথা—যা এখনকার দুনিয়ায় বহুচর্চিত একটি বিষয়। আবার বিশ্বের প্রধান তিন সমস্যা বা প্রবলেম (এর আদ্যক্ষরটিও ‘পি’) বোঝাতেও সেই পিপিপি—পপুলেশন, পভার্টি, পলিউশন। বিশ্বজুড়ে প্রতিবছরই একটা করে ‘পরিবেশ দিবস’ সমারোহে ‘উদ্‌যা঩পিত’ হয়। এবছরও হয়েছে যথাসময়ে, যথারীতি।  বিশদ

অন্য এক মীরা: স্বাধীনতার ইতিহাসের এক নীরব অধ্যায় 

সর্বাণী বসু: ব্রিটিশ নৌবাহিনীর অ্যাডমিরাল স্যার এডমন্ড স্লেড তাঁর ড্রিঙ্করুমের সোফা সেটে বসে আছেন, এক হাতে পানীয়ের গ্লাস অন্য হাতে ধরা একটি চিঠি। মনোযোগ দিয়ে তিনি চিঠিটি পড়ছেন। মুখে খেলে যাচ্ছে অপ্রসন্ন অসহায়তার মেঘ। সামনের সোফায় বসে মিসেস স্লেড উৎকণ্ঠিত মুখে তাকিয়ে।
বিশদ

পাহাড়জুড়ে রাজ্যের শান্তি প্রক্রিয়া এবং
উন্নয়নের মাঝেও কেন এই রাজনীতি?
নিমাই দে

রাজ্যে এক সময় ৬০ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী ছিল। এখন তা কমে এসে দাঁড়িয়েছে মাত্র ৪৮ কোম্পানিতে। অথচ বিজেপি শাসিত অন্য কয়েকটি রাজ্যের দিকে তাকালে চিত্রটা পরিষ্কার হয়ে যাবে। ছত্তিশগড়ে ২৫২ কোম্পানি, ঝাড়খণ্ডে ১৪৪ কোম্পানি, দিল্লি ৪০ কোম্পানি ইত্যাদি। তারপরেও গত ১৫ অক্টোবর সাতসকালে কেন্দ্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক থেকে ফ্যাক্সবার্তায় জানিয়ে দেওয়া হল, পাহাড়ে থাকা মাত্র ১৫ কোম্পানির মধ্যে ১০ কোম্পনিই প্রত্যাহার করে নেওয়া হবে।
বিশদ

20th  October, 2017
নিজেদের মহানুভবতা সম্পর্কে উদাস বলেই
এদেশে কৃষকরা এত উপেক্ষার শিকার
রঞ্জন সেন

মহাত্মা গান্ধী বলেছিলেন, ‘‘কৃষকরা বিশ্বের পিতা, কিন্তু তাঁদের মহানুভবতা এই যে তাঁরা তা নিজেরাই জানেন না। তাঁরা নিজেরাই জানেন না তাঁদের কতটা মূল্য। তাঁরা তার ধারও ধারেন না।’’ কিন্তু স্বাধীনতার প্রায় ৭০ বছর পরেও দেশও কি তাদের মূল্য বুঝল?
বিশদ

20th  October, 2017
২০১৭ সালে অর্থনীতিতে নোবেল পুরস্কার প্রাপক থেলারের কাছ থেকে অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের শিক্ষা নিক মোদি সরকার
দেবনারায়ণ সরকার

 যুক্তিবাদী অর্থনীতি থেকে জীবনমুখী অর্থনীতিতে উত্তরণের অন্যতম মুখ্য পথপ্রদর্শক হলেন ২০১৭ সালে অর্থনীতিতে নোবেল পুরস্কারপ্রাপ্ত বিখ্যাত অর্থনীতিবিদ রিচার্ড থেলার। থেলার তাঁর বিখ্যাত ‘‘Misbehaving: The making of behavioural economics’’ (‘অশোভন আচরণ: আচরণগত অর্থনীতির উদ্ভাবন’) গ্রন্থে বলেছিলেন, ‘অভিজ্ঞতা থেকে শিখতে গেলে দুটি উপাদান আবশ্যকীয়: বারবার অভ্যাস বা চর্চা করা এবং অবিলম্বে তাদের প্রতিক্রিয়া গ্রহণ করা’ বিশদ

19th  October, 2017
খিদে কি শুধুই পরিসংখ্যান?
শুভময় মৈত্র

 খবর এসে গিয়েছে যে খিদের সূচকে ভারত নাকি বিশ্বের মধ্যে বেশ খারাপ জায়গায়। আমাদের স্থান কাঁটায় কাঁটায় একশো, গত বছর যেটা ৯৭ ছিল। আশেপাশের দেশগুলোর মধ্যে ভারতের থেকে খিদে যাদের বেশি পাচ্ছে তারা হল পাকিস্তান (১০৬) আর আফগানিস্তান (১০৭)। ভারতের আগে আছে নেপাল (৭২), মায়নামার (৭৭), শ্রীলঙ্কা (৮৪) এবং বাংলাদেশ (৮৮)। যুদ্ধবিদ্ধস্ত ইরাক ৭৮-এ আর পরমাণু বোমা নিয়ে পেশিসঞ্চালনে পটুত্ব দেখানো উত্তর কোরিয়া ৯৩।
বিশদ

19th  October, 2017
একনায়ক কি জনপ্রিয়তা হারাচ্ছেন?
হিমাংশু সিংহ

 পুজোয় কয়েকদিন বারাণসীতে ছিলাম। পুরীর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে যুগ যুগ ধরে বাঙালির দ্বিতীয় হোমটাউন বলে কথা। তার ওপর দেশের ইতিহাসে হালফিল সবচেয়ে ক্ষমতাশালী প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সংসদীয় কেন্দ্র।
বিশদ

17th  October, 2017
কলকাতার ভূকম্প প্রবণতা কি আদৌ বিপজ্জনক?
গৌতম পাল

 ভূমিকম্প একটি প্রাকৃতিক দুর্ঘটনা। ভূস্তরের অভ্যন্তরে লিথোস্ফেরিক যে কোনও দুটি প্লেটের অভিসারী বিচলনই ভূমিকম্পের মুখ্য কারণ। ভূমিকম্প পুরোপুরিই একটি অনিশ্চিত ঘটনা। কারণ, ভূমিকম্পের উৎসস্থল, বিস্তৃতি এবং তীব্রতা বা বিপর্যয়ের মাত্রা প্রভৃতি সম্পর্কে পূর্বাভাস দেওয়া কখনওই সম্ভব নয়।
বিশদ

15th  October, 2017
১৯০৫-এর বঙ্গভঙ্গের দহন
কখনও বিস্মৃত হবার নয়
শমিত কর

 মহারাষ্ট্রের স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রবাদপ্রতিম নেতা গোপালকৃষ্ণ গোখলে বাংলা সম্পর্কে যে সুবিখ্যাত উক্তি করেছিলেন তা ভারতবাসীর চিরকাল মনে থাকবে। তিনি বলেছিলেন, ‘বাংলা আজ যে-কথা চিন্তা করে তা ভারত আগামীদিনে করে।’ নতুন চিন্তা-চেতনা-মতবাদ উদ্রেকে বাংলা ও বাঙালিদের যেন কোনও জুড়ি নেই।
বিশদ

14th  October, 2017
একনজরে
সঞ্জয় গঙ্গোপাধ্যায়, কলকাতা: পাহাড়ে যে কোনও উন্নয়নমূলক কাজের শেষে ইউটিলাইজেশন সার্টিফিকেট (ইউসি) জমা দিতে বলা হল জিটিএ’কে। নবান্ন থেকে এই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, ...

 ইসলামাবাদ, ২০ অক্টোবর (পিটিআই): দুর্নীতি সংক্রান্ত তৃতীয় মামলাতেও ধাক্কা খেলেন পাকিস্তানের ক্ষমতাচ্যুত প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। বিদেশে এবং অন্যান্য সংস্থায় বিনিয়োগ নিয়ে নওয়াজকে অভিযুক্ত করেছে আদালত। এই মামলায় নওয়াজ দোষী সাব্যস্ত হলে তাঁর কারাদণ্ড হতে পারে। ...

সমৃদ্ধ দত্ত,নয়াদিল্লি, ২০ অক্টোবর: নোট বাতিল ও জিএসটি। এই দুটি ইস্যুই আগামী নির্বাচনে বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে বলে আশঙ্কা করছে বিজেপি ও সরকার। গুজরাত থেকে ...

সংবাদদাতা, দিনহাটা: শুক্রবার সকালে কোচবিহার শহরের কলাবাগানে এক যুবকের মৃতদেহ উদ্ধার হয়। কোতোয়ালি থানা জানিয়েছে, মৃতের নাম মহাদেব বণিক(৩১)। তাঁর বাড়ি কলাবাগানেই। পুলিশ জানিয়েছে, মৃতদেহটি ময়না তদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। ...


আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

নিকটবন্ধু দ্বারা বিশ্বাসঘাতকতা। গুরুজনদের স্বাস্থ্যহানি। মামলা-মোকদ্দমায় পরিস্থিতি নিজের অনুকূলে থাকবে। দাম্পত্যজীবনে ভুল বোঝাবুঝিতে সমস্যা বৃদ্ধি।প্রতিকার: ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮০৫: ত্রাফালগারের যুদ্ধে ভাইস অ্যাডমিরাল লর্ড নেলসনের নেতৃত্বে ব্রিটিশ নৌবাহিনীর কাছে পরাজিত হয় নেপোলিয়ানের বাহিনী
১৮৩৩: ডিনামাইট ও নোবেল পুরস্কারের প্রবর্তক সুইডিশ আলফ্রেড নোবেলের জন্ম
১৮৫৪: ক্রিমিয়ার যুদ্ধে পাঠানো হয় ফ্লোরেন্স নাইটেঙ্গলের নেতৃত্বে ৩৮ জন নার্সের একটি দল
১৯৩১: অভিনেতা শাম্মি কাপুরের জন্ম
১৯৪০: আর্নেস্ট হেমিংওয়ের প্রথম উপন্যাস ফর হুম দ্য বেল টোলস-এর প্রথম সংস্করণ প্রকাশিত হয়
১৯৪৩: সিঙ্গাপুরে আজাদ হিন্দ ফৌজ গঠন করলেন নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু
১৯৬৭: ভিয়েতনামের যুদ্ধের প্রতিবাদে আমেরিকার ওয়াশিংটনে এক লক্ষ মানুষের বিক্ষোভ হয়
২০১২: পরিচালক ও প্রযোজক যশ চোপড়ার মৃত্যু

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৪.২০ টাকা ৬৫.৮৮ টাকা
পাউন্ড ৮৩.৭৮ টাকা ৮৬.৬৩ টাকা
ইউরো ৭৫.৬০ টাকা ৭৮.২৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩০,১৩৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ২৮,৫৯০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ২৯,০২০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৯,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৯,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
20th  October, 2017

দিন পঞ্জিকা

৪ কার্তিক, ২১ অক্টোবর, শনিবার, দ্বিতীয়া রাত্রি ৩/১, নক্ষত্র-স্বাতী, সূ উ ৫/৩৯/১৭, অ ৫/৩/২৯, অমৃতযোগ দিবা ঘ ৬/২৫ মধ্যে পুনঃ ৭/১০ গতে ৯/২৭ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৪ গতে ২/৪৬ মধ্যে পুনঃ ৩/৩২ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ঘ ১২/৩৮ গতে ২/১৮ মধ্যে, বারবেলা ঘ ৭/৫ মধ্যে পুনঃ ১২/৪৭ গতে ২/১২ মধ্যে পুনঃ ৩/৩৭ গতে অস্তাবধি, কালরাত্রি ঘ ৬/৩৮ মধ্যে পুনঃ ৪/৬ গতে উদয়াবধি।
৪ কার্তিক, ২১ অক্টোবর, শনিবার, দ্বিতীয়া রাত্রি ১/৩০/৪৬, স্বাতীনক্ষত্র, সূ উ ৫/৩৯/৪, অ ৫/৩/১৫, অমৃতযোগ দিবা ঘ ৬/২৪/৪১ মধ্যে ও ৭/১০/১৭-৯/২৭/৮ মধ্যে ও ১১/৪৩/৫৮-২/৪৬/২৫ মধ্যে ও ৩/৩২/১-৫/৩/১৫ মধ্যে। রাত্রি ঘ ১২/৩৬/৪৫-২/১৭/৩১ মধ্যে, বারবেলা ১২/৪৬/৪১-২/১২/১২, কালবেলা ৭/৪/৩৫ মধ্যে, ৩/৩৭/৪৩-৫/৩/১৫, কালরাত্রি ৬/৩৭/৪৪ মধ্যে, ৪/৩/৩-৫/৩৭/৩২ মধ্যে।
৩০ মহরম 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
উচ্চরক্তচাপের সমস্যা, হাসপাতালে উপ-রাষ্ট্রপতি 
উচ্চরক্তচাপ ও সুগারের সমস্যা নিয়ে হাসপাতালে ভরতি হলেন ...বিশদ

20-10-2017 - 08:59:00 PM

প্রায় ৭০০টি ট্রেনের গতি বাড়তে চলেছে 

নভেম্বরে ভারতীয় রেল প্রায় ৭০০টি-র মতো দুরপাল্লার ট্রেনের গতি বাড়াতে ...বিশদ

20-10-2017 - 07:47:47 PM

নির্বাসন না তুললে অন্য দেশের হয়ে খেলার ইঙ্গিত দিলেন নির্বাসিত শ্রীসন্থ

20-10-2017 - 06:55:00 PM

 প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের দাদা পীযূষ মুখোপাধ্যায় প্রয়াত

20-10-2017 - 06:05:00 PM

প্রবল বৃষ্টি, সেচ দপ্তরে চালু কন্ট্রোল রুম

প্রবল বৃষ্টিতে নজর রাখতে সেচ দপ্তরে চালু কন্ট্রোল রুম। মনিটরিং ...বিশদ

20-10-2017 - 04:28:40 PM

কানপুরে প্ল্যাস্টিকের গোডাউনে আগুন, ঘটনাস্থলে দমকলের ৬টি ইঞ্জিন

20-10-2017 - 04:08:00 PM

দুপুরের পর থেকে আলিপুরদুয়ারে শুরু বৃষ্টি

20-10-2017 - 03:52:00 PM