Bartaman Patrika
গল্পের পাতা
 


দারোগা চমকিতচরণ
 
রতনতনু ঘাটী


 দরকার পড়লে দারোগাবাবুকে চোর খুঁজতেও বেরতে হয়। কিন্তু আজ তিন দিন হল উদ্ভুট্টিডিহি থানা এলাকায় এক আজব কাণ্ড ঘটেছে। বড় দারোগা চমকিতচরণ দত্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, এই থানা এলাকার দাগি চোরদের ধরে ধরে এনে থানায় পুরবেন। তিনি অঞ্চলটাকে চোরমুক্ত থানা হিসেবে মিডিয়ার কাছে তুলে ধরতে চান। কেন্দ্রীয় সরকার চোরমুক্ত থানাকে পাঁচ লক্ষ টাকা করে পুরস্কার দেবেন ঘোষণা করেছেন। হরণীধর দাস উদ্ভুট্টিডিহির সবচেয়ে দাগি চোর। তাই প্রথম দিন তিনি হরণীধর দাসকে এনে এই কাজের শুভ সূচনা করবেন বলে বিকেল বিকেল তাকে খুঁজতে বেরিয়ে গিয়েছেন।
তিন দিন পার হয়ে গেছে, তিনি আর ফিরে আসেননি। অথচ, হরণীধর দিব্যি গায়ে হাওয়া লাগিয়ে এলাকায় ঘুরছে! চুরি-চামারিও করে বেড়াচ্ছে বলে খবর এসেছে থানায়।
থানার মেজদারোগা বিস্মরণ নিয়োগী বড়বাবু চমকিতচরণ দত্তর মিসিং খবরটা উপরতলায় জানাজানি হোক, চাননি।
মেজদারোগার বিস্মরণ নাম তাঁর বিষম ভুলে যাওয়ার জন্য। ভুলে যাওয়ার ব্যাপারটা তাঁর ছেলেবেলা থেকেই। তাই তাঁর বাবা ওরকম নাম রেখেছিলেন। পরে অনেক চেষ্টায় ব্যায়াম-ট্যায়াম করে ভুলে যাওয়া অসুখটা অনেকটা কাটিয়ে উঠেছেন। স্কুলে দু’-একবার ক্লাসে ফার্স্টও হয়েছিলেন।
মেজবাবু সাত-পাঁচ ভেবে হরণীধর দাসকে ডেকে দায়িত্ব দিলেন, বড়দারোগা চমকিতচরণ দত্তকে খুঁজে আনার জ঩ন্যে। বললেন, ‘হরণীধর, বড়বাবু যখন তোকেই খুঁজতে বেরিয়ে গেছেন, তখন তোরই দায়িত্ব, তাঁকে খুঁজে আনার। কি, ঠিক কিনা?’
ঠিক কি ভুল, এই ষাট বছর বয়সেও বোঝার ক্ষমতা একটুও বাড়েনি হরণীধরের। বাড়বে কী করে? হরণীধর রাতে চুরি করতে যায়, আর দিনে পড়ে পড়ে ঘুমিয়ে কাটায়। তাই যথেষ্ট জল-আলো-বাতাসের অভাবে গাছ যেমন বাড়ন্তি হয় না, হরণীর বুদ্ধিবৃত্তিও দিনের আলোর অভাবে ছেলেবেলার মতোই অপরিপক্ব থেকে গেছে।
আজ হরণীধর দিনের বেলা এ গ্রামে ও গ্রামে ঘুরে ফিরে এসে থানায় মেজদারোগা বিস্মরণবাবুর কাছে রিপোর্ট করল, ‘ছ্যার, তেনাকে কোত্থাও পেলাম না!’
খাতা থেকে মুখ তুলে কপাল কুঁচকে মেজদারোগা মনে করার চেষ্টা করলেন মিনিট পাঁচেক। কিন্তু কিছুতেই মনে করতে পারলেন না, হরণী কাকে খুঁজে পেল না? হরণী কাকেই বা খুঁজতে গিয়েছিল? তাঁর নিজের বিস্মৃতির ব্যাপারটা এই বয়সে যাতে পাঁচকান না হয়ে যায়, তাই তিনি গম্ভীর গলায় ঘাড় নেড়ে বললেন, ‘ঠিক আছে!’
হরণীধরের হাতে বেশি সময় নেই। ঝমঝম করে চারদিকে অন্ধকার নামছে! বাড়ি ফিরেই তাকে চুরি করতে বেরতে হবে। সে মনে মনে ভেবে দেখেছে, বড়দারোগাকে খোঁজার ব্যাপারে একটু-আধটু খামতি হলেও চলতে পারে। কিন্তু দুই বউ আর পাঁচ ছেলে-মেয়ের সংসার মাথায় নিয়ে চুরি করতে না বেরলে তার চলবে কী করে?
ঘণ্টা দুয়েক পরে যখন মেজদারোগা বিস্মরণবাবুর হঠাৎ ফস করে মনে পড়ে গেল, হরণীধর কাকে খুঁজে পায়নি! তখনই তিড়িং করে চেয়ার থেকে লাফ কেটে উঠে দাঁড়ালেন। একজন কনস্টেবলকে কড়া গলায় হুকুম করলেন, ‘এক্ষুনি দাগি চোর হরণীধর দাসকে থানায় এনে হাজির করো!’
কনস্টেবল ঘণ্টাখানেক পর ফিরে এসে বলল, ‘স্যার, হরণীধর বাড়িতে নেই। তার দাদা ধরণীধর বলল, সে চুরি করতে বেরিয়ে গেছে।’
ছেলেবেলা থেকেই হরণী লোকের জিনিস ‘হরণ’ মানে চুরি করে বেড়াত বলে প্রতিবেশীরা ওর এরকম নাম রেখেছে।
টপাস করে কব্জিটা ঘুরিয়ে ঘড়ি দেখে নিয়ে ঘাড় নেড়ে মেজদারোগা বললেন, ‘যাবেই তো! যাবেই তো! ওর কি আর আমাদের মতো অত দেরি করলে চলে?’
এখনও তিন মাস হয়নি বড়দারোগা চমকিতচরণ দত্ত মায়াবীনগর থানা থেকে ট্রান্সফার হয়ে উদ্ভুট্টিডিহি থানায় এসেছেন। মায়াবীনগর ছেড়ে এসে এখানে এসে প্রথমে একদম মন বসেনি তাঁর। আজকালকার দিনে শহর ছেড়ে গাঁ-গঞ্জে পোস্টিং নিতে কারই বা ভালো লাগে? পুলিস লাইনে অনেকেই এই ধরনের ট্রান্সফারকে উপহাস করে বলে, ‘এসব হল পানিশেবল ট্রান্সফার।’
ট্রান্সফার হয়ে এখানে আসার পর দিন দশেক কেটেছে কি কাটেনি, হঠাৎ একদিন বিকেল থেকে বড় দারোগা চমকিতচরণের উদ্ভুট্টিডিহি জায়গাটা ভালো লাগতে শুরু করল। পাহাড়ছোঁয়া দিগন্ত, সবুজ গাছগাছালিতে ভরা জায়গাটা, অনেকটা পুরুলিয়া-পুরুলিয়া দেখতে। নীচে লাল মাটি, উপরে নীল আকাশ, চারপাশে সবুজ বন।
চমকিতচরণ দত্ত চাকরির জায়গায় কখনও কলকাতা থেকে মাথায় করে তাঁর সংসার বয়ে আনেননি। বর্ন ব্যাচেলরের মতো কাটিয়ে গেলেন সারা জীবন। আর তো বছর তিনেক। তবে বড়বাবু ভেবে দেখেছেন, নিরিবিলিতে নিজের মনের সঙ্গে কথাও বলা যায় এখানে।
উদ্ভুট্টিডিহিতে আসার পর স্থানীয় লোকজন বলেছিল, ‘আগে বসন্তটা আসতে দিন স্যার! দেখবেন কেমন পলাশ ফোটে!’
এখন তপ্ত গ্রীষ্ম। একটু জলের ক্রাইসিস আছে বটে। চাঁদি-ফাটা গরমও পড়েছে। তা হলেও জায়গাটা মন্দ নয়। বিকেলে আকাশপথে মালার আকারে দল বেঁধে পাখপাখালির ঘরে ফেরার সময় থেকে পরদিন সূর্য ওঠা পর্যন্ত চরাচর জুড়ে চমৎকার হিমেল বাতাস বইতে থাকে।
এখানে আসার পর থেকে বড় দারোগাবাবু থানার সামনেটায় খাকি রঙের পুলিস-প্যান্ট পরে, খালি গায়ে নীল রঙের প্লাস্টিকের হাতলওলা চেয়ারে বসে ভুঁড়িটা এলিয়ে দিয়ে অনেক রাত পর্যন্ত হাওয়া খান। আজ তিন দিন এই দৃশ্য কারও গোচর হয়নি।
পুলিস-দারোগার ভুঁড়ি থাকা চলবে না— এরকম একটা ফতোয়া জারি করেছিলেন বটে দেশের মন্ত্রী। কিন্তু বড়লোকের ব্যাঙ্ক ব্যালেন্সের মতো কেমন করে যে পুলিস-দারোগার ভুঁড়িও বেড়ে ওঠে, তা পুলিস-দারোগা কেন, কেউ বলতে পারে না!
আজ তিন দিন ধরে চমকিতচরণ দত্তকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। এই খবরটা মেজদারোগা বিস্মরণবাবু চেপে রাখলেও কেমন করে যে চাউর হয়ে গেল! ফোর্থ ডে-তে হেড অফিস থেকে দুপুর নাগাদ এসপি সাহেব ব্যাপারটার তল্লা করতে এসে হাজির হলেন।
এসেই তিনি তেন্ডাইমেন্ডাই করতে শুরু করে দিলেন, ‘বিস্মরণবাবু, আপনি থানায় মিসিং ডায়েরি লঞ্চ করেননি কেন?’
প্রথমে বিস্মরণবাবু মনে করার চেষ্টা করলেন, এসপি সাহেব কার বিরুদ্ধে মিসিং ডায়েরি লঞ্চ করতে বলছেন? কে মিসিং? কিছুতেই মনে করতে পারলেন না। মনে মনে বললেন, ‘দুর ছাই! ভুলো মনের দোষে এবার পাকা চাকরিটা না চলে যায়!’
এসপি সাহেব জিজ্ঞেস করলেন, ‘কী ব্যবস্থা নিয়েছেন?’
মেজদারোগা তাঁর মুখের দিকে নিষ্পলক তাকিয়ে থাকলেন। নিজের ওপর নিজেই রাগ করছিলেন মনে মনে, ‘কেন যে ঠিক কথাটা ঠিক সময়ে মনে পড়ে না!’
ব্যাপারটা চাপা দেওয়ার জন্যে শশব্যস্তে উঠে গিয়ে এসপি সাহেবের জন্যে জলখাবারের নির্দেশ দিয়ে এলেন। তারপর নিজের সিটে এসে বসার পরই টকাং করে মনে পড়ে গেল বিস্মরণবাবুর, ও হো! বড়সাহেব তো আজ তিন দিন ধরে নিখোঁজ হয়ে আছেন!
ততক্ষণে থানার বাইরে মহা হইচই শুনে সজাগ হয়ে বসলেন বিস্মরণবাবু। ফের মনে করার চেষ্টা করলেন, এখন বাইরে কী ঘটছে? কী ঘটতে পারে? কিন্তু তাঁর একবারও মনে পড়ল না, বড়সাহেব চমকিতচরণ দত্ত কি ফিরে আসতে পারেন?
এমন সময় হরণীধর দাস বীরদর্পে এসে ঢুকল মেজদারোগার ঘরে, ‘ছ্যার, বড় সাহেবকে পাকড়াও করে এনেছি!’
এসপি সাহেব পিছন ফিরে তার দিকে তাকিয়ে খি খি করে হাসতে লাগলেন। বিস্মরণবাবু মনে মনে বললেন, ‘যাঃ! আবার কী যে হয়ে গেল! এসপি সাহেবের হাসির কারণ তো মনে পড়ছে না?’
বিস্মরণ নিয়োগী হরণীকে দেখে মনে করতে পারলেন না, লোকটাকে চেনা-চেনা লাগছে বটে, কিন্তু লোকটার নামটা তো মনে পড়ছে না! কোথায় যেন কী কারণে লোকটার সঙ্গে দেখা হয়েছিল?
তক্ষুনি ফের কী যে হল! বিস্মরণ নিয়োগী অমনি লাফ কেটে উঠে দাঁড়িয়ে এসপি সাহেবের দিকে তাকিয়ে বললেন, ‘এবার মনে পড়ে গেছে স্যার! কী যে ভাবছিলাম, সেটাই তো মনে করতে পারছি না!’
ছোট ছেলেকে স্কুলের অ্যাডমিশন টেস্টে বাবা-মা যেমন করে বলেন— ‘বাবা, মনে করার চেষ্টা করো! এক্ষুনি মনে পড়ে যাবে!’ এসপি সাহেব ওরকম ভঙ্গিতে বললেন, ‘চেষ্টা করুন, চেষ্টা করুন! এবার সব মনে পড়ে যাবে! আপনার কিছু না মনে পড়লে আমি হেড অফিসে ফিরে গিয়ে কী বলব বলুন? আমাকেও তো চাকরিটা বাঁচাতে হবে?’
হরণীধর দাস হাত দুটো দু’দিকে মেলে ধরে বলল, ‘হুজুর, বড়সাহেবকে ধরে এনেছি!’
হাত দুটো পিছমোড়া করে বাঁধা অবস্থায় দু’জন কনস্টেবল একটা হাতল-ছাড়া চেয়ারে বসিয়ে নিয়ে এল চমকিতচরণ দত্তকে। তখনও তিনি ঘুমে ঢলে পড়ে যাচ্ছেন। চোখ মেলে তাকাতেই পারছেন না।
হরণীধর বলল, ‘উনি তাজ্জবগঞ্জের বাজারে তিন দিন ধরে এক যাত্রাদলের সঙ্গে ভিড়ে সারারাত ধরে হিরোর পার্ট করছিলেন আর দিনের বেলা নতুন পালার হিরোর রিহার্সাল দিচ্ছিলেন। উনি আসতে চাইছিলেন না। অনেক কসরত করে ধরে-বেঁধে ঘুমন্ত অবস্থায় তুলে এনেছি!’
এসপি সাহেব ধরণীর দিকে তাকিয়ে টকাস করে মুখ ফিরিয়ে নিয়ে বিস্মরণবাবুকে বললেন, ‘মশাই, আপনি উপায়টা তো ভালোই বের করেছেন!’
মোবাইলের টাওয়ার চলে যাওয়ার মতো আবার বিস্মরণবাবুর স্মৃতি চলে গেল। কিছুতেই মনে করতে পারলেন না কোন উপায়টার কথা বলছেন এসপি সাহেব? জিজ্ঞাসু মুখে তাকিয়ে থাকলেন।
এসপি সাহেব বললেন, ‘এই যে চোর দিয়ে দারোগা ধরার ব্যাপারটা, এ আপনার উর্বর মস্তিষ্কের ফসল।
আমি কলকাতায় হেড অফিসে ফিরে গিয়ে আপনার জন্যে মোটা অঙ্কের পুরস্কারের সুপারিশ করব।’ বলে উঠে পড়লেন এসপি সাহেব।
তখনই ফের বিস্মরণবাবুর মনে পড়ে গেল, ও হো, হরণীধরকে দিয়ে বড়বাবুকে খুঁজে আনার প্ল্যানটার জন্যে তারিফ করলেন এসপি সাহেব! মুখটা আত্মতৃপ্তিতে থইথই করে উঠল। হরণীধর ব্যস্ত হয়ে বলল, ‘ছ্যার, আমি কিন্তু কথা দিয়ে এসেছি, বড়বাবুকে যাত্রাদলের কাছে ফিরিয়ে দিয়ে আসব। কথার খেলাপ হলে চলবে না। নতুন পালার হিরো না পেলে ওরা কিন্তু ভীষণ বিপদে পড়ে যাবে ছ্যার!’ তখন চমকিতচরণ দত্ত চেয়ারে হাত বাঁধা অবস্থায় বসে ঘুমে ঢলতে ঢলতে বলে উঠলেন, ‘ওরে পামর, আজি নিস্তার তব নাহি!’ বলে হাত বাঁধা অবস্থায় কোমরের কাছ থেকে তরবারি বের করার ভঙ্গি করতে লাগলেন।
বিস্মরণবাবুর দিকে ঝুঁকে হরণীধর নিচু গলায় বলল, ‘আপনাকে বলছেন না ছ্যার। ওটা যাত্রাপালার ডায়লেগ!’
28th  July, 2019
এ ফেরা অন্য ফেরা
তপন বন্দ্যোপাধ্যায়

উচ্চতা ৪ ফুট ৬ ইঞ্চি, গায়ের রং আধাফর্সা, রোগা-পাতলা চেহারা। পরনে অতিসাধারণ শাড়ি-ব্লাউজ, কিন্তু পরিষ্কার। ঈষৎ গম্ভীর থাকে কাজের সময়। ঠিক সময়ে ঘরে ঢোকে, দ্রুত নিজের কাজটি সেরে বেরিয়ে যায় অন্য বাড়ির উদ্দেশে। কামাই প্রায় করেই না।
বিশদ

18th  August, 2019
পুণ্য ভূমির পুণ্য ধূলোয়
বহুচরা দেবী
ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায়

গুজরাত প্রদেশে আর এক তীর্থে আছেন বহুচরা দেবী। দিল্লি অথবা আমেদাবাদ থেকে মাহেসানায় নেমে এই তীর্থে যেতে হয়। স্থানীয়রা এই দেবীকে বলেন বেচরাজি। কিন্তু কেন ইনি বেচরাজি? প্রবাদ, বহুকাল আগে এক চাষি চাষ করতে করতে এখানকার দেবী দুর্গা বা অম্বিকাকে খেতের মধ্যে কুড়িয়ে পান।
বিশদ

18th  August, 2019
ছায়া আছে কায়া নেই
অপূর্ব চট্টোপাধ্যায়

 পাত্রীর ডাকনাম ফুলি, ভালোনাম ভবতারিণী। বিয়ের পর স্বামী রবীন্দ্রনাথ স্ত্রীর আর একটি ডাক নাম পদ্মের সঙ্গে মিলিয়ে রাখলেন মৃণালিনী। শুরু হল তাঁদের দাম্পত্য জীবন। বিশদ

18th  August, 2019
ছায়া আছে কায়া নেই
অপূর্ব চট্টোপাধ্যায়  

২৩

অপমৃত্যু নিয়ে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নিজস্ব একটা মতামত ছিল। পরিণত বয়সে তিনি এ সম্পর্কে তাঁর মতামত মংপুতে থাকাকালীন মৈত্রেয়ী দেবীর কাছে ব্যক্ত করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন,‘অপমৃত্যু সম্বন্ধে একটা কথা কি মনে হয় জানো, হঠাৎ যে বন্ধন ছিন্ন হয়, হয়তো তা সুসমঞ্জসভাবে ছিন্ন হয় না।  
বিশদ

11th  August, 2019
পুণ্য ভূমির পুণ্য ধূলোয়
আরাসূরীর অম্বাজি, পর্ব-২৩
ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায়  

গিরনারের অম্বাজির পর আরাসূরীর অম্বাজিকেও দর্শন করে আসা যাক এবার। রাজস্থানের অর্বুদ শিখরে ৫২ সতীপীঠের অন্তর্গত দেবী অম্বাজি আছেন। অম্বাজিতে আমি আগেও গিয়েছি।  
বিশদ

11th  August, 2019
যে মেঘ গাভীর মতো চরে
সুতপা বসু 

বেডরুমের লাগোয়া বারান্দায় তখন সিদ্ধার্থ আর বারিষ বৃষ্টির ছাট নিয়ে খেলছে। সিদ্ধার্থ বললো,‘ওই ছড়াটা বল, মনে আছে?’ বারিষ বুঝল তার বাবাই কোন ছড়ার কথা বলছে। সে লাফাতে লাফাতে সুর করে বলল, ‘বৃষ্টি পড়ে টাপুর টুপুর নদে এল বান...’ 
বিশদ

04th  August, 2019
ছায়া আছে কায়া নেই
অপূর্ব চট্টোপাধ্যায় 

২২

শ্যামলাল গঙ্গোপাধ্যায়। জোড়াসাঁকোর বিখ্যাত ঠাকুর পরিবারের বাজার সরকার। মাসিক বেতন কুড়ি টাকা। ঠাকুর পরিবারের সঙ্গে তাঁর কেমন লতায়-পাতায় আত্মীয়তা ছিল বলেও শোনা যায়।  
বিশদ

04th  August, 2019
পুণ্য ভূমির পুণ্য ধূলোয়
গিরনারের অম্বাজি পর্ব-২২
ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায় 

মরুভূমি ত্যাগ করে এবার যাওয়া যাক রৈবতক পর্বতে। এখানে বিরাজ করছেন অম্বাজি। সারা ভারতে, বিশেষ করে হিন্দিবলয়ে দেবী দুর্গা অম্বাজি নামেই প্রসিদ্ধ। অম্বিকা থেকে অম্বা, অম্বে, অম্বাজি।  
বিশদ

04th  August, 2019
পুণ্যভূমির পুণ্য ধুলোয়
মরুতীর্থ ও ওশিয়াঁ
ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায়

করাচি শহর থেকে ৩০০ কিমি দূরে লাসাবেলার বিস্তীর্ণ ও ভয়াবহ মরুভূমির বুকে হিঙ্গুলা নদীর তীরে যেমন হিংলাজ মাতার গুহা মন্দির, তেমনই রাজস্থানের থর মরুভূমির বুকে যোধপুর থেকে ৬৫ কিমি দূরে হল ওশিয়াঁ মাতার রম্য মন্দির। মরুভূমির বুকে মহাতীর্থ। মরুতীর্থ ওশিয়াঁ।
বিশদ

28th  July, 2019
 ছায়া আছে কায়া নেই
অপূর্ব চট্টোপাধ্যায়

 ঘরে উপস্থিত সবাই বুঝতে পারলেন নিত্যরঞ্জন ঘোষের শরীরে কোনও অতৃপ্ত, ক্রুদ্ধ আত্মা ভর করেছেন। সেজবাতির আলোটা একটু বাড়িয়ে দিয়ে ডাক্তার রাজকৃষ্ণ মিত্র বললেন, হ্যাঁ, আমরা আপনার সম্পর্কে সবকিছু জানতে চাই। আপনি কে? আপনার নাম কী?
বিশদ

28th  July, 2019
পুণ্য ভূমির পুণ্য ধূলোয়
মরুতীর্থের দেবী, পর্ব ২০
ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায়

 আমার বারো বছর বয়সের সময় বাবা-মায়ের সঙ্গে তীর্থযাত্রায় গিয়ে দ্বারকা থেকে ফেরার পথে ভাটিয়া স্টেশনে নেমে সমুদ্রের খাড়ি পার হতে হয়েছিল। ওখান থেকে গন্তব্য ছিল সুদামাপুরী (পোরবন্দর)। পথে যেতে যেতে এক জায়গায় বাসযাত্রীরা সবাই নেমে পড়লেন এক জাগ্রতা দেবীকে দর্শন করবার জন্য।
বিশদ

21st  July, 2019
ছায়া আছে কায়া নেই
অপূর্ব চট্টোপাধ্যায়

 একদিন মিউগেন্স সাহেবকে বললাম, আমি বাড়িতে মাঝে মাঝে মিডিয়াম হয়ে ‘স্পিরিটের’ সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেছি। কিন্তু খুব ভালো পারছি বলে মনে হচ্ছে না। মিউগেন্স সাহেবের গম্ভীর মুখের দিকে তাকিয়ে আবার বললাম, — অথচ বিলেতের কাগজে পড়েছি, এফিসিয়েন্ট মিডিয়ামের সাহায্যে তারা একান্ত আপনজনের স্পিরিট নিয়ে আসছে....
বিশদ

21st  July, 2019
এমনি বরষা ছিল সেদিন
ছন্দা বিশ্বাস

দশ দিন হতে চলল অর্ণব ঠাকুরপোকে পাওয়া যাচ্ছে না। অনিকেতের ছেলেবেলার বন্ধু অর্ণব। আমার বিয়ের পরে বেশ কয়েকবার আমাদের বাড়িতে এসেছে। তারপর বহুদিন আর দেখা হয়নি। মাঝখানে হঠাৎ একদিন এসেছিল আমাদের বাড়িতে। সেও বেশ কিছুদিন হতে চলল। অনিকেত শুনলাম থানায় একটা মিসিং ডায়েরি করেছে।
বিশদ

14th  July, 2019
একনজরে
 নয়াদিল্লি, ২২ আগস্ট (পিটিআই): বুধবার রাতে নাটকীয় পরিস্থিতিতে গ্রেপ্তারের পর জেলে রাত কাটানো ভিআইপি তালিকায় ঢুকে পড়লেন প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদম্বরম। আইএনএক্স মিডিয়ায় ৩০৫ কোটি ...

 ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে যেসব সংস্থার শেয়ার গতকাল লেনদেন হয়েছে শুধু সেগুলির বাজার বন্ধকালীন দরই নীচে দেওয়া হল। ...

সংবাদদাতা, ইসলামপুর: ইসলামপুর পুরসভার ১৪ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলার তৃণমূল কংগ্রসের রঞ্জন মিশ্রের কাছ থেকে কাটমানি ফেরত পেতে বৃহস্পতিবার শতাধিক বাসিন্দা এবার পুরসভার চেয়ারম্যান কানাইয়ালাল আগরওয়ালের দ্বারস্থ হলেন। এদিন সকালে তাঁরা পুরসভা কার্যালয়ে এসে কানাইয়াবাবুর কাছে কাটমানি ফেরাতে পদক্ষেপের দাবি করেন। ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: দীর্ঘ ১৯ বছর পর মোহন বাগান ঐতিহাসিক ডুরান্ড কাপ জয়ের সামনে দাঁড়িয়ে। মোহন বাগান শেষবার ডুরান্ডে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ২০০০ সালে। সেবার দিল্লির ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

উচ্চপদস্থ ব্যক্তির সহায়তায় কর্মস্থলে জটিলতার সমাধান। বাতজ বেদনায় কষ্ট পাবার সম্ভাবনা। প্রেম-প্রণয়ে সাফল্য। পরশ্রীকাতর ব্যক্তির ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৯৮-কথা সাহিত্যিক তারাশংকর বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৪৪- অভিনেত্রী সায়রাবানুর জন্ম
১৯৯৪- ইংলিশ চ্যানেল অতিক্রমকারী সাঁতারু আরতি গুপ্তর (সাহা) মৃত্যু

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৭৯ টাকা ৭২.৪৯ টাকা
পাউন্ড ৮৫.৩৪ টাকা ৮৮.৫১ টাকা
ইউরো ৭৭.৯৮ টাকা ৮০.৯৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,২৮৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৩২৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৬,৮৭০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৪,০৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৪,১৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৬ ভাদ্র ১৪২৬, ২৩ আগস্ট ২০১৯, শুক্রবার, সপ্তমী ৭/৪ দিবা ৮/৯। কৃত্তিকা ৫৬/৯ রাত্রি ৩/৪৭। সূ উ ৫/১৯/৪১, অ ৫/৫৯/১৩, অমৃতযোগ দিবা ৭/০ মধ্যে পুনঃ ৭/৫১ গতে ১০/২৩ মধ্যে পুনঃ ১২/৫৬ গতে ২/৩৭ মধ্যে পুনঃ ৪/১৮ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ৭/৩০ গতে ৯/১ মধ্যে পুনঃ ৩/৩ গতে ৩/৪৮ মধ্যে, বারবেলা ৮/২৯ গতে ১১/৩৯ মধ্যে, কালরাত্রি ৮/৪৯ গতে ১০/১৪ মধ্যে।
৫ ভাদ্র ১৪২৬, ২৩ আগস্ট ২০১৯, শুক্রবার, অষ্টমী ৫৫/৩০/৩৯ রাত্রি ৩/৩১/১। কৃত্তিকানক্ষত্র ৪৭/২৮/৩০ রাত্রি ১২/১৮/৯, সূ উ ৫/১৮/৪৫, অ ৬/২/১৩, অমৃতযোগ দিবা ৭/২ মধ্যে ও ৭/৫২ গতে ১০/২০ মধ্যে ও ১২/৪৮ গতে ২/২৭ মধ্যে ও ৪/৬ গতে ৬/২ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/১২ গতে ৮/৫১ মধ্যে ও ৩/৪ গতে ৩/৫১ মধ্যে, বারবেলা ৮/২৯/৩৭ গতে ১০/৫/৩ মধ্যে, কালবেলা ১০/৫/৩ গতে ১১/৪০/২৯ মধ্যে, কালরাত্রি ৮/৫১/২১ গতে ১০/১৫/৫৫ মধ্যে।
২১ জেলহজ্জ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
হলদিয়ায় প্রতারণার অভিযোগে গ্রেপ্তার ১
 

সরকারি চাকরি পাইয়ে দেওয়ার নামে আট লক্ষ টাকার প্রতারণার অভিযোগ। ...বিশদ

04:01:36 PM

হাওড়ায় নাবালিকাকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার ১ 
এক নাবালিকাকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার অভিযুক্ত। বৃহস্পতিবার রাতে হাওড়ার শ্যামপুর ...বিশদ

03:49:00 PM

লুধিয়ানায় সাইকেল মার্কেট এলাকায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড 

02:28:00 PM

চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা, গ্রেপ্তার ৩
চাকরি পাইয়ে দেবার নাম করে ৩৭ লক্ষ টাকার প্রতারণার অভিযোগ। ...বিশদ

02:17:00 PM

৭০০ পয়েন্ট উঠল সেনসেক্স 

02:15:00 PM

সোমবার পর্যন্ত চিদম্বরমকে গ্রেপ্তার করতে পারবে না ইডি, জানাল সুপ্রিম কোর্ট  

01:40:00 PM